ভবঘুরে কথা
স্বামী বিবেকানন্দ

স্বামীজীর কাছে অনেক লোক। শ্রীচৈতন্যদেবের কথা হইতেছে । হাসি-তামাসাও চলিতেছে। একজন বলিয়া উঠিলেন, ‘মহাপ্রভুর কথা নিয়ে এত রঙ্গরসের কারণ কি ? আপনার কি মনে করেন, তিনি মহাপুরুষ ছিলেন না, তিনি জীবের মঙ্গলের জন্য কোন কাজ করেননি ?’

স্বামী বিবেকানন্দ : কে বাবা তুমি ? কাকে নিয়ে ফষ্টিনষ্টি করতে হবে ? তোমাকে নিয়ে নাকি ? মহাপ্রভুকে নিয়ে রঙ্গ-তামাসা করাটাই দেখছ বুঝি ! তাঁর কাম-কাঞ্চন ত্যাগের জ্বলন্ত আদর্শ নিয়ে এতদিন যে জীবনটা গড়বার ও লোকের ভেতর সেই ভাবটা ঢোকাবার চেষ্টা করা হচ্ছে, সেটা দেখতে পাচ্ছনা ? শ্রীচৈতন্যদেব মহা ত্যাগী পুরুষ ছিলেন । স্ত্রীলোকের সংস্পর্শেও থাকতেন না । কিন্তু পরে চেলারা তাঁর নাম ক’রে নেড়া-নেড়ীর দল করলে । আর তিনি যে-প্রেমের ভাব নিজের জীবনে দেখালেন, তা স্বার্থশূন্য কামগন্ধহীন প্রেম । তা কখনও সাধারণের সম্পত্তি হতে পারে না । অথচ তাঁর পরবর্তী বৈষ্ণব গুরুরা আগে তাঁর ত্যাগটা শেখানোর দিকে ঝোঁক না দিয়ে তাঁর প্রেমটাকে সাধারণের ভেতর ঢোকাবার চেষ্টা করলেন । কাজেই সাধারণ লোকে সে উচ্চ প্রেমভাবটা নিতে পারলে না এবং সেটাকে নায়ক-নায়িকার দূষিত প্রেম করে তুললে।

প্রশ্ন : মহাশয়, তিনি তো আচন্ডালে হরিনাম প্রচার করলেন, তা সেটা সাধারণের সম্পত্তি হবে না কেন ?

স্বামী বিবেকানন্দ : প্রচারের কথা হচ্ছে না গো, তাঁর ভাবের কথা হচ্ছে—প্রেম, প্রেম-রাধাপ্রেম । যা নিয়ে তিনি দিন রাত মেতে থাকতেন, তার কথা হচ্ছে ।

প্রশ্ন : সেটা সাধারণের সম্পত্তি হবে না কেন?

স্বামী বিবেকানন্দ : সাধারণের সম্পত্তি কি করে হয়, তা এই জাতটা দেখে বোঝ না ? ওই প্রেম প্রচার করেই তো সমস্ত জাতটা ‘মেয়ে’ হয়ে গিয়েছে । সমস্ত উড়িষ্যাটা কাপুরুষ ও ভীরুর আবাস হয়ে গিয়েছে । আর এই বাঙলা দেশটায় চারশ’বছর ধরে রাধাপ্রেম করে কি দাঁড়িয়েছে দেখ! এখানেও পুরুষত্বের ভাব প্রায় লোপ পেয়েছে । লোকগুলো কেবল কাঁদতেই মজবুত হয়েছে । ভাষাতেই ভাবের পরিচয় পাওয়া যায় । তা চারশ’বছর ধরে বাঙলা ভাষায় যা কিছু লেখা হয়েছে, সে-সব এক কান্নার সুর । প্যানপ্যানানি ছাড়া আর কিছুই নেই। একটা বীরত্বসূচক কবিতারও জন্ম দিতে পারেনি!

প্রশ্ন : ওই প্রেমের অধিকারী তবে কারা হতে পারে ?

স্বামী বিবেকানন্দ : কাম থাকতে প্রেম হয় না—এক বিন্দু থাকতেও হয় না । মহাত্যাগী, মহাবীর পুরুষ ভিন্ন ও-প্রেমের অধিকারী কেউ নয় । ওই প্রেম সাধারণের সম্পত্তি করতে গেলে নিজেদের এখনকার ভেতরকার ভাবটাই ঠেলে উঠবে । ভগবানের উপর প্রেমের কথা মনে না পড়ে ঘরের গিন্নিদের সঙ্গে যে প্রেম, তার কথাই মনে উঠবে । আর প্রেমের যে অবস্থা হবে, তা তো দেখতেই পাচ্ছ !

প্রশ্ন : তবে কি ঐ প্রেমের পথ দিয়ে ভজন ক’রে—ভগবানকে স্বামী ও নিজেকে স্ত্রী ভেবে ভজন করে-তাঁকে (ভগবানকে) লাভ করা গৃহস্থের পক্ষে অসম্ভব ?

স্বামী বিবেকানন্দ : দু-এক জনের পক্ষে সম্ভব হলেও সাধারণ গৃহস্থের পক্ষে যে অসম্ভব, এ-কথা নিশ্চিত । আর এ-কথা জিজ্ঞাসারই বা এত আবশ্যক কি ? মধুরভাব ছাড়া ভগবানকে ভজন করবার আর কি কোন পথ নেই ? আরও চারটে ভাব আছে তো, সেগুলো ধরে ভজন কর না । প্রাণভরে তাঁর নাম কর না । হৃদয় খুলে যাবে । তারপর যা হবার আপনি হবে । তবে এ-কথা নিশ্চিত জেনো যে, কাম থাকতে প্রেম হয় না । কামশূন্য হবার চেষ্টাটাই আগে কর না । বলবে, তা কি করে হবে ?—আমি গৃহস্থ । গৃহস্থ হলেই কি কামের একটা জালা হতে হবে ? স্ত্রীর সঙ্গে কামজ সম্বন্ধ রাখতেই হবে ? আর মধুরভাবের ওপরই বা এত ঝোঁক কেন ?পুরুষ হয়ে মেয়ের ভাব নেবার দরকার কি ?

প্রশ্ন : হাঁ, নামকীর্তনটাও বেশ , সেটা লাগেও বেশ । শাস্ত্রেও কীর্তনের কথা আছে । চৈতন্যদেবও তাই প্রচার করলেন । যখন খোলটা বেজে ওঠে, তখন প্রাণটা যেন মেতে ওঠে আর নাচতে ইচ্ছে করে ।

স্বামী বিবেকানন্দ : বেশ কথা । কিন্তু কীর্তন মানে কেবল নাচাই মনে করোনা । কীর্তন মানে ভগবানের গুণগান, তা যেমন করেই হোক । বৈষ্ণবদের মাতামাতি ও নাচ ভাল বটে, কিন্তু তাতে একটা দোষও আছে । সেটা থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে যেও । কি দোষ জানো ? প্রথমে একেবারে ভাবটা খুব জমে, চোখ দিয়ে জল বেরোয়, মাথাটাও রি-রি করে, তারপর যেই সংকীর্তন থামে তখন সে ভাবটা হু হু করে নামতে থাকে । ঢেউ যত উঁচু উঠে, নামবার সময় সেটা তত নীচুতে নামে । বিচারবুদ্ধি সঙ্গে না থাকলেই সর্বনাশ, সে-সময়ে রক্ষা পাওয়া ভার । কামাদি নীচভাবের অধীন হয়ে পড়তে হয় । আমেরিকাতেও ওইরূপ দেখেছি , কতকগুলো লোক গির্জায় গিয়ে বেশ প্রার্থনা করলে, ভাবের সঙ্গে গাইলে, লেকচার শুনে কেঁদে ফেললে । তারপর গির্জা থেকে বেরিয়েই বেশ্যালয়ে ঢুকল।

প্রশ্ন : তা হলে মহাশয়, চৈতন্যদেবের দ্বারা প্রবর্তিত ভাবগুলির ভেতর কোনগুলি নিলে আমাদের কোনরূপ ভ্রমে পড়তে হবে না এবং মঙ্গলও হবে ?

স্বামী বিবেকানন্দ : জ্ঞানমিশ্রা ভক্তির সঙ্গে ভগবানকে ডাকবে । ভক্তির সঙ্গে বিচারবুদ্ধি রাখবে। এ ছাড়া চৈতন্যদেবের কাছ থেকে আরও নেবে তাঁর Heart (হৃদয়বত্তা), সর্বজীবে ভালবাসা, ভগবানের জন্য টান, আর তাঁর ত্যাগটা জীবনের আদর্শ করবে ।

প্রশ্নকর্তা : ঠিক বলেছেন, মহাশয় । আমি আপনার ভাব প্রথমে বুঝতে পারিনি । (করজোড়ে)মাপ করবেন । তাই আপনাকে বৈষ্ণবদের মধুরভাব নিয়ে ঠাট্টা তামাসা করতে দেখে কেমন বোধ হয়েছিল ।

উৎস : স্বামী বিবেকানন্দের বাণী ও রচনা , নবম খণ্ড , প্রকাশক উদ্বোধন কার্যালয় , কলকাতা

নির্মাতা
ভবঘুরে কথা'র নির্মাতা

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!