ভবঘুরে কথা
রেইকি

-সায়মা সাফীজ সুমী

এক একটি রেইকি পরম্পরা এক একটি প্রক্রিয়া; যার মাধ্যমে একজন প্রশিক্ষিত শিক্ষার্থী রেইকি চিকিৎসা দিতে সক্ষমতা অর্জন করে। অর্থাৎ পরম্পরার মাধ্যমে শিক্ষা নিয়ে রেইকি মাস্টার হয়ে উঠেন। রেইকি ক্লাস রেইকি মাস্টার দ্বারা পরিচালিত হয়। অভিযোজন সময়, রেইকি মাস্টার রোগী বা শিক্ষার্থীর মাথা, কাঁধ ও হাত স্পর্শ করে এক বা একাধিক বিশেষ শ্বাস কৌশল ব্যবহার করে। কৌশলটা এমন যে, অনুভূতি শক্তি রেইকি মাস্টার মাধ্যমে শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রবাহিত হয়। এই বিশেষ শক্তিগুলি উচ্চশক্তি দ্বারা পরিচালিত হয় এবং শিক্ষার্থীর শক্তি পথগুলিতে সমন্বয় সাধন করে ; শিক্ষার্থীকে রেইকি’র মূল উৎস শক্তির সাথে যুক্ত করে। কারণ উচ্চশক্তি দ্বারা অনুকরণের অনলস দৃষ্টিভঙ্গি পরিচালিত হয়, এটি প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য সঠিকভাবে নিজেকে তৈরি করতে সহায়তা করে। কিছু শিক্ষার্থী সকল সময়ই ব্যাতিক্রমী। তারা হাতে উষ্ণতা অনুভব করতে পারে শুরু থেকেই এমনকি স্পর্শের মাধ্যমে অন্যদের মধ্যে রং দেখতে বা আধ্যাত্মিক দৃষ্টিভঙ্গি নিহ্নিত করতে পারে। যা হোক, রেইকি চিকিৎসা বা অনুশীলন করার জন্য অনুভূতির অভ্যন্তরীণ অভিজ্ঞতা থাকতেই হবে এমনটা নয়। সর্বাধিক সহজভাবে আরো স্বচ্ছন্দ বোধ করাই শিখতে হয় ধীরে ধীরে।

রেইকি চিকিৎসা বা পদ্ধতি অবলম্বন করলে রোগ ও নেতিবাচক অবস্থার উপর ইতিবাচক প্রভাব তৈরি হয়। এই চিকিৎসা পদ্ধতিতে সামান্য মাথা ব্যথা, পেটে ব্যথা, ঠাণ্ডা, টেনশন, উদ্বেগের উপশম থেকে শুরু করে হৃদরোগ, ক্যান্সার, লিউকেমিয়ার মতো গুরুতর রোগেও আরাগ্য লাভ সম্ভব। এ পদ্ধতি গ্রহণ করলে নিয়মিত চালিয়ে যাওয়া অন্যান্য চিকিৎসা বা চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলিও হ্রাস বা নির্মূল করতেও সহায়তা করে। এতে কেমোথেরাপির নেতিবাচক প্রভাব, অপারেটিভ ব্যথা ও বিষন্নতার পাশাপাশি দ্রুত উন্নতি এবং চিকিৎসালয়ে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় সময় কমিয়ে দেয়। রেইকি সকল প্রকার জটিলতাতেই রোগীকে শান্ত ও স্থির থাকতে সহায়তা করে। কিছু ক্ষেত্রে মানুষ সম্পূর্ণ নিরাময়ের অভিজ্ঞতা আছে; যা রেইকি চিকিৎসার আগে এবং পরে মেডিকেল পরীক্ষা দ্বারা নিশ্চিত করা হয়েছে। রেইকির সাথে কিছু অলৌকিক অভিজ্ঞতাও জড়িত ; তবে তা বিজ্ঞান দিয়ে প্রমাণ করা যাবে না। যা কিনা সেবা গ্রহণকারী ও সেবা দানকারীই গভীরতার মধ্যে অনুভব করতে পারে। তবে এটা প্রমাণিত সত্য যে, শারীরিক ও মানসিক অবস্থার কিছু উন্নতির সঙ্গে চাপ কমানো সবচেয়ে বড় অভিজ্ঞতা হলো রেইকি।

রেইকি শক্তি তীব্র উত্তেজনা, উদ্বেগ, ভয় বা অন্যান্য নেতিবাচক অনুভূতিগুলি শিথীল করার জন্য উৎসাহ দেয়; শান্তি ও কল্যাণময় অবস্থা অনুভব করার শক্তি ভেতর থেকে জাগ্রত করতে সহায়তা করে। চিকিৎসা শেষে রোগী পূর্বের চেয়ে আরো ইতিবাচক, সুষম দৃষ্টিভঙ্গির সাথে প্রশান্তিবোধ করে।

রেইকি চিকিৎসা প্রত্যেকের জন্যই ভিন্ন অভিজ্ঞতা তৈরি করে। কারণ একজন রেইকি মাস্টারের প্রত্যেক রোগীর সাথেই ভিন্ন ভিন্ন অভিজ্ঞতা হয়। কারণ রেইকি মাস্টার স্পর্শ শক্তির সাথে মনোজাগতিকতা নিয়ে কাজ করে। গভীর শিথিলতার অনুভূতি মধ্য দিয়ে সাধারণত সব অনুভূত হয়। অনেকে নিজের ভেতর ঘুরে ঘুরে বেড়ায় এমন এক বিস্ময়কর উজ্জ্বলতা অনুভব করে করার অভিজ্ঞতাও অর্জন করে। রেইকি শক্তি তীব্র উত্তেজনা, উদ্বেগ, ভয় বা অন্যান্য নেতিবাচক অনুভূতিগুলি শিথীল করার জন্য উৎসাহ দেয়; শান্তি ও কল্যাণময় অবস্থা অনুভব করার শক্তি ভেতর থেকে জাগ্রত করতে সহায়তা করে। চিকিৎসা শেষে রোগী পূর্বের চেয়ে আরো ইতিবাচক, সুষম দৃষ্টিভঙ্গির সাথে প্রশান্তিবোধ করে।

এই চিকিৎসা পদ্ধতিতে রোগীকে হাতের স্পর্শের মধ্যে শরীরের ভেতরের যে তরঙ্গ তা প্রবাহিতের মাধ্যমে সেবা দেয়া হয়। রোগীকে সাধারণত ম্যাসেজ টেবিলের উপর শুইয়ে বা চেয়ারে বসিয়ে এমনকি দাঁড় করিয়েও চিকিৎসা দেওয়া যেতে পারে। রোগী সম্পূর্ণরূপে পোশাক পরিহিতই থাকে। কেবল মাথা, কাঁধ, পেট এরকম ২৪টি পয়েন্টে হিলিং দেয়া হয়। যথাযথভাবে বলতে গেলে, সেবাগ্রহণকারীর কোন কোন পয়েন্টে হিলিং প্রয়োজন তার উপর ভিত্তি করে সেই সব পয়েন্টে হিলিং দেয়া হয়। সেবাগ্রহণকারীর প্রতিটি অবস্থানে কতটা রেমিক প্রয়োজন তার উপর নির্ভর করে প্রতিটি অবস্থান তিন থেকে দশ মিনিটের জন্য হিলিং দেয়া হয়। প্রতিটি রেইকি চিকিৎসা সেশন সাধারণত ৪৫ এবং ৯০ মিনিটের মধ্যে স্থায়ী হয়।

রেইকি প্রকৃতির আধ্যাত্মিক শক্তির উপর নির্ভরশীল হলেও এটা কোনো ধর্ম নয়। এই পদ্ধতিতে সেবা গ্রহণের জন্য তাই অনুশীলনকারী বা সেবাগ্রহণকারীদের কোন ধর্মীয় বা আধ্যাত্মিক বিশ্বাস পরিবর্তন করার প্রয়োজন পরে না। নিজেদেরে বিশ্বাসেই স্থির থেকে এই পদ্ধতিতে সেবা গ্রহণ করতে পারেন যে কেউ।

রেইকি শক্তি একটি সূক্ষ্ম শক্তি। এটা বিদ্যুৎ বা রাসায়নিক শক্তি বা শারীরিক শক্তি অন্যান্য ধরণের শক্তি অর্থাৎ আমাদের পরিচিত শক্তিগুলো থেকে ভিন্ন। রেইকি শক্তি উচ্চশক্তি থেকে আসে, যা আমাদের সাধারণ জ্ঞানের চেয়ে উচ্চমাত্রায় বিদ্যমান। যখন দেখাশোনা করা হয়, রেইকি শক্তি কসমিক শক্তি থেকে আসে। এই তরঙ্গ অনুশীলনকারীদের তালু দিয়ে প্রবেশ করে শরীরের মাধ্যমে হাত থেকে প্রবাহিত হয়। রেইকি শক্তি উৎস প্রথমে নিজের মধ্যে প্রদর্শিত হয়। তারপর তা অন্যের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া যায়। এর অর্থ এই নয় যে যিনি রেইকি সেবা দিচ্ছেন তিনি তার ব্যক্তিগত শক্তিকে ব্যবহার করছেন। মূলত ব্রহ্মাণ্ডের মূল শক্তিকে নিজের ভেতরে ধারণ করার মধ্য দিয়ে তা স্পর্শের মাধ্যমে অন্যের ভেতরে প্রবাহিত করে তাকে সতেজ করার সেবা দেয়া হয়।

-সায়মা সাফীজ সুমী
রেইকি মাস্টার হিলার

নির্মাতা
ভবঘুরে কথা'র নির্মাতা

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!