ভবঘুরে কথা

ষষ্ঠ অধ্যায়

রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : সপ্তম পরিচ্ছেদ

১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর অদৃষ্টপূর্বং হৃষিতোঽস্মি দৃষ্ট্বা, ভয়েন চ প্রব্যথিতং মনো মে ৷ তদেব মে দর্শয় দেব রূপং, প্রসীদ দেবেশ জগন্নিবাস ৷৷ [গীতা – ১১।৪৫] ব্রাহ্মসমাজের প্রার্থনাপদ্ধতি ও ঈশ্বরের ঐশ্বর্য-বর্ণনা [পূর্বকথা – দক্ষিণেশ্বরে রাধাকান্তের ঘরে গয়না চুরি – ১৮৬৯ ] শ্রীরামকৃষ্ণ (শিবনাথের প্রতি) – হ্যাঁগা, তোমরা ঈশ্বরের ঐশ্বর্য অত বর্ণনা কর কেন? অমি কেশব সেনকে ওই […]

বিস্তারিত পড়ুন
রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : ষষ্ঠ পরিচ্ছেদ

১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর যস্ত্বাত্মরতিরেব স্যাদাত্মতৃপ্তশ্চ মানবঃ ৷ আত্মন্যেব চ সন্তুষ্টস্তস্য কার্যং ন বিদ্যতে ৷৷ [গীতা – ৩।১৭] ঈশ্বরলাভের লক্ষণ – সপ্তভূমি ও ব্রহ্মজ্ঞানশ্রীরামকৃষ্ণ – বেদে ব্রহ্মজ্ঞানীর নানারকম অবস্থা বর্ণনা আছে। জ্ঞানপথ – বড় কঠিন পথ। বিষয়বুদ্ধির – কামিনী-কাঞ্চনে আসক্তির লেশমাত্র থাকলে জ্ঞান হয় না। এ-পথ কলিযুগের পক্ষে নয়। “এই সম্বন্ধে বেদে সপ্তভুমির (Seven Planes) কথা […]

বিস্তারিত পড়ুন
রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : পঞ্চম পরিচ্ছেদ

১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর ভক্ত্যা ত্বনন্যয়া শক্য অহমেবংবিধোঽর্জুন ৷ জ্ঞাতুং দ্রষ্টুং চ তত্ত্বেন প্রবেষ্টুং চ পরন্তপ ৷৷ [গীতা – ১১।৫৪] ঈশ্বরদর্শন – সাকার না নিরাকার? একজন ব্রাহ্মভক্ত জিজ্ঞাসা করিলেন, মহাশয় ঈশ্বরকে কি দেখা যায়? যদি দেখা যায়, দেখতে পাই না কেন? শ্রীরামকৃষ্ণ – হাঁ, অবশ্য দেখা যায় – সাকাররূপ দেখা যায়, আবার অরূপও দেখা যায়। তা […]

বিস্তারিত পড়ুন
রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : চতুর্থ পরিচ্ছেদ

১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর “যতো বাচো নিবর্তন্তে। অপ্রাপ্য মনসা সহ।” [তৈত্তিরীয় উপনিষদ্‌ – ২‌।৪] ব্রহ্মের স্বরূপ মুখে বলা যায় না একজন ব্রাহ্মভক্ত জিজ্ঞাসা করিলেন, ঈশ্বর সাকার না নিরাকার?শ্রীরামকৃষ্ণ – তাঁর ইতি করা যায় না। তিনি নিরাকার আবার সাকার। ভক্তের জন্য তিনি সাকার। যারা জ্ঞানী অর্থাৎ জগৎকে যাদের স্বপ্নবৎ মনে হয়েছে, তাদের পক্ষে তিনি নিরাকার। ভক্ত জানে […]

বিস্তারিত পড়ুন
রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : তৃতীয় পরিচ্ছেদ

১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর ক্লৈব্যং মাস্ম গমঃ পার্থ নৈতৎ ত্বয্যুপপদ্যতে ৷ ক্ষুদ্রং হৃদয়দৌর্বল্যং ত্যক্ত্বোত্তিষ্ঠ পরন্তপ ৷৷ [গীতা – ২।৩] শ্রীরামকৃষ্ণ – ভক্তির তমঃ যার হয়, তার বিশ্বাস জ্বলন্ত। ঈশ্বরের কাছে সেরূপ ভক্ত জোর করে। যেন ডাকাতি করে ধন কেড়ে লওয়া। “মারো কাটো বাঁধো!” এইরূপ ডাকাত-পড়া ভাব। ঠাকুর ঊর্ধ্বদৃষ্টি, তাঁহার প্রেমরসাভিসিক্ত কন্ঠে গাহিতেছেন: গয়া গঙ্গা প্রভাসাদি কাশী […]

বিস্তারিত পড়ুন
রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ

১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর মাঞ্চ যোঽথব্যভিচারেণ ভক্তিযোগেন সেবতে ৷ স গুণান্‌ সমতীত্যৈতান্‌ ব্রহ্মভূয়ায় কল্পতে ৷৷ [গীতা – ১৪।২৬] ভক্ত-সম্ভাষণেসহাস্যবদনে ঠাকুর শ্রীযুক্ত শিবনাথ আদি ভক্তগণের দিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করিতে লাগিলেন। বলিতেছেন, “এই যে শিবনাথ! দেখ, তোমরা ভক্ত, তোমাদের দেখে বড় আনন্দ হয়। গাঁজাখোরের স্বভাব, আর-একজন গাঁজাখোরকে দেখলে ভারী খুশি হয়। হয়তো তার সঙ্গে কোলাকুলিই করে।” (শিবনাথ ও […]

বিস্তারিত পড়ুন
রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব কথা

রামকৃষ্ণ কথামৃত : ষষ্ঠ অধ্যায় : সিঁথি ব্রাহ্মসমাজ-দর্শন ও শ্রীযুক্ত শিবনাথ প্রভৃতি ব্রাহ্মভক্তদিগের সহিত

কথোপকথন ও আনন্দ প্রথম পরিচ্ছেদ ১৮৮২, ২৮শে অক্টোবর উৎসবমন্দিরে শ্রীরামকৃষ্ণশ্রীশ্রীপরমহংসদেব সিঁথির ব্রাহ্মসমাজ-দর্শন করিতে আসিয়াছেন। ২৮শে অক্টোবর ইং ১৮৮২ খ্রীষ্টাব্দ, শনিবার। (১২ই কার্তিক) কৃষ্ণা দ্বিতীয়া তিথি। আজ এখানে মহোৎসব। ব্রাহ্মসমাজের ষাণ্মাসিক। তাই ভগবান শ্রীরামকৃষ্ণের এখানে নিমন্ত্রণ। বেলা ৩টা-৪টার সময় তিনি কয়েকজন ভক্তসঙ্গে গাড়ি করিয়া দক্ষিণেশ্বরের কালীবাটী হইতে শ্রীযুক্ত বেণীমাধব পালের মনোহর উদ্যানবাটীতে উপস্থিত হইলেন। এই উদ্যানবাটীতে […]

বিস্তারিত পড়ুন
error: Content is protected !!