ভবঘুরে কথা

স্বামী বিবেকানন্দ

স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : আমন্ত্রণ

আমন্ত্রণ রোদন কি হেতু সখা? সর্বশক্তি তোমারি তো অন্তরে নিহিত! জ্ঞান-বীর্য-প্রদ সেই নিজ দিব্য স্বরূপেরে কর উদ্বোধিত- ত্রিলোকে যা কিছু আছে সবই তব পাদমূলে আসিবে তখন! আত্মার শক্তিই হয় চিরজয়ী-জড়শক্তি নহে কদাচন। ত্রিভুবন উপাড়িব, তারকা চিবায়ে খাব [করি অট্টহাস]! জান না কি কেবা মোরা? বীর গতভয় মোরা রামকৃষ্ণ দাস। দেহকেই ‘আমি’ ভাবে-নাস্তিক্য ইহারি নাম-যারা অনিক্ষণ […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : আমারই আত্মাকে

আমারই আত্মাকে ধরে থাক আরও কিছুকাল, অটল হৃদয়, ছিন্ন করো নাকো এই আজন্ম বন্ধন, যদিও অস্পষ্ট ক্ষীণ এই বর্তমান-ভবিষ্যৎ ঘনতমোময়! কেটে গেছে যেন এক যুগ-তোমাতে আমাতে মিলে যাত্রা শুরু করিলাম-জীবনের উঁচু-নীচু পথে, অপূর্ব সমুদ্রে কভু ভেসে যাই শান্ত ধীর পালে, আমি মোর তব কাছে, তার চেয়ে তুমি আরও কাছে, মাঝে মাঝে, মনের তরঙ্গগুলি উঠিবার আগে […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : জীবন্মুক্তের গীতি

জীবন্মুক্তের গীতি বিস্তারে বিশাল ফণা দলিতা ফণিনী; প্রজ্বলিত হুতাশন যথা সঞ্চালনে, শূন্য ব্যোম-পথে যথা উঠে প্রতিধ্বনি মর্মাহত কেশরীর কুপিত গর্জনে। প্লাবনের ধারা ঢালে যথা মহা ঘন, দামিনী ঝলকে তার হৃদি বিদারিয়া, আত্মার গভীর দেশে করিলে স্পন্দন, মহাপ্রাণ উচ্চ তত্ত্ব দেয় প্রকাশিয়া। স্তিমিত হউক নেত্র, অন্তর মূর্ছিত, বিফল বন্ধুত্ব-প্রেম প্রতারণা হোক, নিয়তি পাঠাক তার ভীতি অগণিত […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : শান্তি

শান্তি ওই দেখ-আসে মহাবেগে মহাশক্তি, যাহা শক্তি নয়– অন্ধকারে আলোকস্বরূপ তীব্রালোকে ছায়ার আভাস আনন্দ যা হয়নি প্রকাশ, অবেদিত দুঃখ সুগভীর, অযাপিত অমৃত জীবন- অশোচিত মৃত্যু সনাতন। দুঃখ নয়, আনন্দও নয় মাঝে তার তারে বোধ হয়, রাত্রি নয়, ঊষাও সে নয়- উভয়ের মাঝে জুড়ে রয়। সঙ্গীতের মাঝে মধু সম- সুপবিত্র ছন্দ মাঝে যতি, নীরবতা কথার অন্তরে, […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : মুক্তি

মুক্তি ওই দেখ মিলাইয়া যায় কালো মেঘপুঞ্জ যত রাত্রির আঁধারে আরও ঘন করি, ধরণীর ’পরে তাহারা থমকি ছিল, অবসন্ন বিষাদ কালিমা! তোমার মোহন-স্পর্শে জগৎ জাগিয়া উঠে ওই! পাখীরা তুলিছে তান-ফুলদল তুলে ধরে তার শিশির-খচিত শত তারার মুকুট; সুস্বাগত জানায় তোমায় তারা দুলিয়া দুলিয়া। সরোবর প্রেমভরে মেলিয়াছে শত শত আঁখিশতদল- তোমারে বরিয়া নিতে, তার সারা গভীরতা […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : আশীর্বাদ

আশীর্বাদ বীরের সঙ্কল্প আর মায়ের হৃদয়, দক্ষিণের সমীরণ-মৃদুমধুময়, আর্যবেদী ’পরে দীপ্ত মুক্ত হোমানলে যে পুণ্য সৌন্দর্য আর যে শৌর্য বিরাজে- সকলই তোমার হোক, আরও, আরও কিছু স্বপ্নেও ভাবেনি যাহা অতীতের কেহ। ভারতের ভবিষ্যৎ সন্তানের তরে তুমি হও বন্ধু, দাসী, গুরু—একাধারে।

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : শান্তিতে সে লভুক বিশ্রাম

শান্তিতে সে লভুক বিশ্রাম চল আত্মা, শীঘ্রগতি, তারকা-খচিত তব পথে, ধাও হে আনন্দময়, যেথা নাহি বাঁধে মনোরথে; দেশকাল দৃষ্টিপথ যেথা নাহি করে আবরণ! চিরশান্তি আশীর্বাদ যেথা করে তোমারে বরণ! সার্থক তোমার সেবা, পরিপূর্ণ তব আত্মদান, অপার্থিব প্রেমপূর্ণ হৃদয়েতে হোক তব স্থান; মধুময় তব স্মৃতি দেশকাল দিয়াছে মিলায়ে, বেদীতলে পুষ্পসম রেখে গেলে সৌরভ বিছায়ে! টুটেছে বন্ধন […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : আলোক

আলোক সম্মুখে পশ্চাতে চেয়ে দেখি- সব ঠিক, সকলি সার্থক। বেদনার গভীর আমার জ্বলে এক চিন্ময় আলোক।

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : জাগ্রত দেবতা

জাগ্রত দেবতা সেই এক বিরাজিত অন্তরে বাহিরে, সব হাতে তাঁরি কাজ, সব পায়ে তাঁরি চলা, তাঁরি দেহ তোমরা সবাই, কর তাঁর উপাসনা, ভেঙে ফেলো আর সব পুতুল প্রতিমা। মহামহীয়ান যিনি, দীন হতে দীন, একাধারে কীট ও দেবতা যিনি, পাপী পুণ্যবান, দৃশ্যমান, জ্ঞানগম্য, সর্বব্যাপী, প্রত্যক্ষ মহান্‌, কর তাঁর উপাসনা, ভেঙে ফেলো আর সব পুতুল প্রতিমা। অতীত […]

বিস্তারিত পড়ুন
স্বামী বিবেকানন্দ কথা

সপ্তম খণ্ড : কবিতা (অনুবাদ) : পানপাত্র

পানপাত্র এই তব পানপাত্র, তোমারি উদ্দেশে সৃষ্টির উন্মেষ হতে এ পাত্র-রচনা। জানি জানি এ পানীয় কালকূট ঘোর, তোমারি মন্থিত সুরা-দূর অতীতের বাসনা বেদনা ভ্রান্তি যুগযুগান্তের। দুর্গম দুঃসহ পন্থা-এই তব পথ, প্রতি পদে অবিশ্রান্ত উপল-সঙ্ঘাত সে আমারি দান। দিয়েছি বন্ধুরে তব স্নিগ্ধ স্বচ্ছ পত্রখানি সানন্দযাত্রার। তোমারি মতন সেও পাবে মোর বক্ষে পরম আশ্রয়। তোমারে চলিতে হবে […]

বিস্তারিত পড়ুন
error: Content is protected !!