ভবঘুরে কথা

উদ্বোধন ও উপদেশ

ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

খোল মা প্রকৃতি

(ভৈরব-একতালা) খোল মা প্রকৃতি, খোল মা দুয়ার, কর আবরণ উম্মোচন। তোমার মন্দিরে, তোমার ঈশ্বরে, করিব অর্চ্চন-বন্দন। লহরে লহরে তুলিয়া তান, গাইছে বিহগ তাঁর গুণ-গান; শুনিয়া সে গান, ভেসে যায় প্রাণ, আর কি মানে বারণ! প্রভাতী-কুসুমে ভরিয়া ডালি, অরুণ-কনক-প্রদীপ জ্বালি’ পূজিছ যাঁরে, দিবে কি মা তাঁরে, (আমার) ভক্তি-অশ্রু-চন্দন! কি জানি তাঁহারে কি ব’লে পূজিব, কি ধ্যান […]

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

হইবে জীবন সফল

(ভৈরব-একতালা) পাপ-নাশনে কর রে স্মরণ, হইবে জীবন সফল। সুখ-মোক্ষদাতা, অখিল-বিধাতা, পাপী-তাপীর সম্বল। সেই পূণ্য-সূর্য্য হইলে প্রকাশ, মোহ-অন্ধকার হইবে বিনাশ, ফুটিবে হৃদয়-সরসী-সলিলে, শত শত প্রেম-শতদল। পূণ্যের সৌরভে হবে পুলকিত, আনন্দ-সাগরে ভাসিবে নিয়ত, তাঁর পূণ্য-সহবাসে নিরন্তর ভুঞ্জিবে বাসনা সকল। হৃদয়-মন্দিরে দেখ রে আজ, সেই পূর্ণময় করেন বিরাজ, ভক্তি-পুষ্প ল’য়ে কৃতাঞ্জলি হ’য়ে পূজ রে ভক্তবৎসল।।

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

ডাক রে সবে পরম ব্রহ্মে

(ভৈরব-একতালা) ডাক রে সবে পরম ব্রহ্মে, মনের হরিয়ে যতনে। জগত-কারণ জগতজীবন, ভবভয়াবরণে। সৃজন-কারণ, পালন, তারণ, বিঘ্ন-বিনাশন, পতিতপাবন, সে জনে অন্তরে করিলে স্মরণ, ভয় কি বল শমনে? যাহার কারণে পেয়েছ জ্ঞান, গাও রে মন তাঁর গুণ-গান, কাম, ক্রোধ, লোভ, মান, অভিমান, অঞ্জলি দাও তাঁর চরণে।।

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

স্মর রে ভবতারণে

(ভৈরবী-একতালা) প্রাত:সময়, জাগ রে হৃদয়, স্মর রে ভবতারণে! চেয়ে দেখ নিশি যায় যায় যায়, সরোজ-বান্ধব সমুদিত প্রায়, ঝলসিছে নব নীল নীরদ, দেখ রে স্নিগ্ধ গগনে। এই ছিল বিশ্ব নিস্তব্ধ নীরব, নিদ্রাগত প্রাণী বিহঙ্গ, মানব, জীবকোলাহল, আহা, ঐ শোন, উঠিল পুন: ভুবনে। যাঁহার প্রসাদে লভিলে জীবন, যার কৃপাবলে মেলিলে নয়ন, প্রেমমূর্ত্তি তাঁর হায় রে এখন, হের […]

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

ঐ রে তরী দিল খুলে

(ভৈরবী-রূপকড়া) ঐ রে তরী দিল খুলে! তোর বোঝা কে নেবে তুলে? সামনে যখন যাবি ওরে, থাকনা পিছন পিছে প’ড়ে, পিঠে তারে বইতে গেলি, একলা প’ড়ে রইলি কূলে। ঘরের বোঝা টেনে টেনে, পারের ঘাটে রাখলি এনে, তাই যে তোরে বারে বারে, ফিরতে হ’ল গেলি ভূলে। ডাকরে আবার মাঝিরে ডাক, বোঝা তোমার যাক ভেসে যাক, জীবনখানি উজাড় […]

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

অসীম কাল-সাগরে

(ভৈরবী-ঝাঁপতাল) অসীম কাল-সাগরে ভুবন ভেসে চলেছে, অমৃতভবন কোথা আছে তাহা কে জানে? হের আপন হৃদয়-মাঝে ডুবিয়ে, এ কি শোভা! অমৃতময় দেবতা সতত বিরাজে, এই মন্দিরে সুধা-নিকেতন।।

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

আনন্দে বিশ্বজন

(ভৈরব মিশ্র-একতালা) আনন্দে বিশ্বজন, বন্দে বিশ্ব-জীবনে, প্রভাত মঙ্গল-গীত গায়; মিলায়ে কণ্ঠ সে অনন্ত স্বরে, গাও সবে জয় জগদীশ হবে, ডুব পরম ব্রহ্মনাম অমৃত-ধারায়। না ছিল এ ভব, না ছিল অপন, না ছিল শশী তারা অগণন, তাঁহারি ইচ্ছায় হইল সৃজন, জাগিল নিখিলে নবীন জীবন, আলোক-সাগরে করিয়া স্নান, গাহিল প্রকৃতি আদি নাম-গান, বিরাজিত ভুবননাথ মহা মহিমায়।।

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

বিশ্বনাথে কর প্রণাম

(ভৈরব-কাওয়ালী) বিমল প্রভাতে, মিলি এক সাথে, বিশ্বনাথে কর প্রণাম। উদিল কনকরবি রক্তিম রাগে, বিহঙ্গকুল সব হরষে জাগে, তুমি মানব, নব অনুরাগে, পবিত্র নাম তাঁর কররে গান।।

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

প্রেমে কে ডুবে আছে

(ভৈরব-একতালা) তাঁহার প্রেমে কে ডুবে আছে? চাহে না সে তুচ্ছ সুখ-ধন-মান। বিরহ নাহি তার, নাহি রে দু:খ-তাপ, সে প্রেমের নাকি অবসান।।

বিস্তারিত পড়ুন
ব্রহ্মসঙ্গীত উদ্বোধন ও উপদেশ

দীর্ঘ জীবন-পথ

দীর্ঘ জীবন-পথ, কত দু:খ-তাপ, কত শোক-দহন; গেয়ে চলি তবু তাঁর করুণার গান। খুলে রেখেছেন তাঁর অমৃতভবনদ্বার; শ্রান্তি ঘুচিবে, অশ্রু মুছিবে, এ পথের হবে অবসান। অনন্তের পানে চাহি, আনন্দের গান গাহি, ক্ষুদ্র শোক-তাপ নাহি নাহি রে। অনন্ত আলয় যায়, কিসের ভাবনা তার, নিমিষের তুচ্ছ ভারে হব না রে ম্রিয়মাণ।। আসোয়ারী-ঝাঁপতাল

বিস্তারিত পড়ুন
error: Content is protected !!