ভবঘুরে কথা

রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

সোনা-বন্ধু কালিয়া

সোনা-বন্ধু কালিয়া, আইল না শ্যাম কি দোইষ জানিয়া। বড়ো লইজ্জা পাইলাম–নিকুঞ্জে আসিয়া।। আর মনে বড়ো আশা করি– আইল না। শ্যাম–বংশীধারী। কতো চুয়া-চন্দন কটরায় ভরিয়া।। আর গাঁথিয়া বন-ফুলের মালা মালা হইল দ্বিগুণ জ্বালা। ও মালা নেও, নেও, দেও মালা জলেতে ভাসাইয়া।। আর ভাইবে রাধারমণ বলে, প্ৰেমানলে অঙ্গে জ্বলে : ও তার নয়নজলে বক্ষ যায় ভাসিয়া।।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

সুচিত্রে আমি কার

সুচিত্রে আমি কার লাগি গাঁথিলাম গো বিনাসুতে বিচিত্র মালা। মালা সে কি লো আর দ্বিগুণ জ্বলে কৃষ্ণপ্ৰেম বিচ্ছেদের মালা পরাইব প্ৰাণবন্ধুর গলে। গাঁথিয়াছি মালতীর মালা বকুলে। সেই মালা ভুজঙ্গ হইয়া দংশিল মুই অবলে চুয়া চন্দন গো ঘষে রাখিয়াছি কটরা ভরে সব সখী মিইল্যা। সেই চন্দন হইল গো বাসি আইল না গো চিকন কালা ভাইবে রাধারমণ […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

সজনী সই গো

সজনী—সই গো, আমি রইলাম কার আশায় : চুয়া-চন্দন–ফুলের মালা– আমি থাইছি কটরায়।। সজনী—সই গো।। গাঁথিয়া বনফুলের মালা আমি দিতাম কার গলায় : একেলা মন্দিরে ঝুরি– না আইল শ্যামরায়। সজনী—সই গো।। নিশি অলন শেষকালে বন্ধু ডাকছে কোকিলায় : দারুণ কোকিলার সুরে– আমার বন্ধে আমায় ছাড়িয়া যায় সজনী–সেই গো।। ভাইবে রাধারমণ বলে, আমি ঠেকিয়াছি প্রেমদায় : দারুণ […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

সখী রাত্র হইল ভোর

সখী রাত্র হইল ভোর আইনা না মোর প্রাণ প্রিয়া নিদয়া-নিষ্ঠুর।। ঘুরে ঘুরে পরে পরে পদ করিলাম খুর পন্থপানে চাইতে চাইতে আবি কইলাম ঘোর এক সখীর হন্তে ধরি আর সখী বলে ঘোর অন্ধকার রাত্রি পদ নাহি চলে। গাথিয়া মালতীর মালা আহ্বাদে প্ৰতুল আইল না প্ৰাণবন্ধু নিদয়া নিষ্ঠুর। সর চিনি মাখন ছানা আতর মধুর কার লাগি আনিলাম […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

যাও গো দূতী পুষ্পবনে

যাও গো দূতী পুষ্পবনে পুষ্প তুলো গিয়া আমি সাজাইতাম বাসর শয্যা প্ৰাণবন্ধুর লাগিয়া।। কাচা কাঞ্চন পুষ্প আন গো তুলিয়া আন টগর মালী সন্ধ্যামালী বকফুল ভরিয়া।। বিকশিত ফুলের মধু হইগেল তিতা কোন প্ৰাণে গেলা বন্ধু পন্থহারা হইয়া।। ভাইবে রাধারমণ বলে মনেতে ভাবিয়া অবশ্য আসিবা বন্ধু ফুলের মধু খাইয়া।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

বাহির হইয়া শুন সজনী

বাহির হইয়া শুন সজনী, ঐ করে কোকিলায় ধ্বনি ডালে বসে কোকিলা পাখী, কুহু কুহু রব শুনি আমার বন্ধু না আইল কুঞ্জে পোহাইল রজনী গাঁথিয়া বনফুলের মালা মালা হইল দ্বিগুণ জ্বালা আমার সাধ ছিল ফুলে ফুলে সাজাইতাম রসিকমণি। ভাইবে রাধারমণ বলে আসবে বন্ধু নিশা কালে আমার প্রাণবন্ধু আসিলে কুঞ্জে আমি হইতাম যৈবনদানী।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

বাসর শয্যা সাজাই

বাসর শয্যা সাজাই কার আশায় কই রইল মোর বন্ধু শ্যামরায় ওগো বিচ্ছেদ আগুন জ্বলছে হিয়ায় আতর গোলাপ কস্তুরী আনি পুষ্পশয্যা করি সাজাইবার আশায় ফুলের শয্যা বাসি আইল না গো কালশশী আমার বাসি শয্যা ভাসাও যমুনায় প্ৰাণ যাবে মোর নিশিগতে তাইতো তোমরা আমার সাথে অধীন রমণ বলে রাইখ রাঙা পায়।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

বাঁচিবার সাধ নাই

বাঁচিবার সাধ নাই গো সখী বাঁচিবার সাধ নাই দেহার মাঝে কি যন্ত্রণা করে বা দেখাই।। গাঁথিয়া বনফুলের মালা নিশিটি পোহাই প্ৰাণবন্ধু আইলো না গো কার গলে পাইরাই। একা বসি বাসরেতে নিশিটি পোহাই আজ আসবে কাল আসবে বলে মনরে বুঝাই আতর গোলাব চুয়াচিন্দন কটরায় সাজাই আইল না মোর প্রাণবন্ধু কার অঙ্গে ছিটাই। ভাবিয়া রাধারমণ বলে কমলিনী […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

বল না বল না সখী

বল না বল না সখী কি করি উপায় গো নিশি গত প্ৰাণনাথ রহিল কোথায় গো।। জ্বলতেছে শরীর আমার মদন জ্বালায় গো কার কুঞ্জে রইয়াছে নিলয় না পাই গো।। সাজাইয়াছি ফুলবিছানা আসিবার আশায় সেই আশা নৈরাশা হইল ভাবে বুঝা যায় গো। গাঁথিয়া বনফুলের মালা আসিবার আশায় সেই আশা ভুজঙ্গ হইয়া দংশিল আমায়। সৰ্পের বিষ ঝারলে নামে […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: বাসকসজ্জা পদ

প্ৰাণ সই রজনী পুষাইয়া

প্ৰাণ সই রজনী পুষাইয়া গেল প্ৰাণবন্ধু কই।। প্ৰাণবন্ধ প্ৰাণবন্ধু বলে ক্ষণে উঠি ক্ষণে বই।। সাজাইয়া ফুলের শয্যা যত্ন করি থই না আসিল প্ৰাণকৰ্ম্ম কোথায় রইল সই।। শুইলে স্বপনে দেখি রসের কথা কই জাগিয়া উঠিয়া দেখি বন্ধু কই আর আমি কই।। ভাইবে রাধারমণ বলে শুনলো সই এগো অগ্নিকুণ্ড সাজন করে অনলে পুড়াই।।

বিস্তারিত পড়ুন
error: Content is protected !!