ভবঘুরে কথা

স্বামী স্বরূপানন্দের বাণী

শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

উপদেশ’২ : বাণী : স্বামী স্বরূপানন্দ

শিলচর-মহাকাব্যের উপসংহার হঠাৎ পুরকায়স্থ মহাশয় জিজ্ঞাসা করিলে-কাল কি আপনি আমার গৃহে এসেছিলেন? -না তো।-আমি আপনাকে দেখেছি। -কোথায়? কখন? -আমার এই ঘরে। রাত দশটার সময়।-না, আমি আসিনি। আমি শিলংপট্টিতে প্রতাপ বাবুর ঘরে বসে চিঠিপত্র লেখায় ব্যস্ত ছিলাম। আমি তখন আসব কি করে? আপনি স্বপ্ন দেখেছেন। -না, আমি জাগ্রত ছিলাম। আপনি এসে বল্লেন, আমার এক জোড়া মোজা […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

উপদেশ : বাণী : স্বামী স্বরূপানন্দ

আমি অসীমকে ভালবাসি। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ যিনি শিব, তিনিই পার্বতী, যিনি পূজ্য, তিনিই পূজক। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ আমি তোমাদের নিত্যসঙ্গী হইবার জন্য তপস্যা করিয়াছি। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ আমি পৃথিবীতে নূতন ইতিহাস সৃষ্টি করিতে আসিয়াছি, গতানুগতিকতা আমার প্রন্থা নহে। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ তোমার শাস্ত্রই বলছে, ধর্মের মূল হচ্ছে বেদ, বেদের মূল হচ্ছে গায়ত্রী, আর গায়ত্রীর মূল […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

কবিতা/গান

ধ্যান কর অবিরত নিজ মহিমার, ব্রহ্মময়ী মহাশক্তি জননী তোমার। তোমার ইন্দ্রিয়চয়ে তার অনুভূতি প্রস্ফুটিত করি, দিবে অখন্ডের জ্যোতি।। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ চতুর্দিক-গর্জ্জে যদি সহস্র সংশয়, মধুময় নাম তব পরম অভয়। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ তাদেরি লাগিয়া পিয়াসী নয়ন। যৌবন-ছবি করিছে চয়ন, একবার শুধু দেখিলে যাদেরে পাগল হইয়া যাই।। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ সবার শিকল ছিড়ঁবে যেদি- আমার […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

উপাসনা : বাণী : শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ

সংক্ষিপ্ত ব্যক্তিগত উপাসনা ক) ব্রহ্মগায়ত্রী তিনবার পাঠ করিবেই, কারন তুমি ব্রাহ্মণ খ) জগন্মঙ্গল-সঙ্কল্প করিবেই, কারন তুমি স্বরূপানন্দ-সন্তান এবং অখন্ডমন্ত্রের অধিকারী, জগন্মঙ্গল চিন্তা ও জগন্মঙ্-কার্য্যই ব্রাহ্মণের প্রকৃত লক্ষণ। গ) তারপরে অখন্ড নাম করিবেই, কারন ইহাই তোমার পরমা গতি। -শ্রীশ্রী উপাসনা প্রণালী পৃষ্ঠা ২১ সমবেত উপাসনায় শ্রীশ্রীবাবামণির অঞ্জলি আমার অনুপস্থিতিতে আমার জন্য রক্ষিত পুস্প বিল্বপত্রাদি কেহ নিজ […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ স্বামী স্বরূপানন্দের বাণী

চিঠিপত্র : বাণী : শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ

কল্যাণীয়েষু স্নেহের বাবা, চষা জমিতেই বীজ বুনিতে হয়, যেখানে সেখানে বীজ ফেলিলে বীজে অঙ্কুর নাও গজাইতে পারে। তত্ত্বাবধানযোগ্য সুরক্ষিত ভূমিতে বীজ না বুনিলে অঙ্কুরিত হইবার পরে পাখিতে খাইয়া ফেলে। খেতের আইলে বেড়া বা পাহাড়া না -িলে গরু-ছাগলে সব নষ্ট করে। এইগুলি ভুলিয়া গিয়া কাজ করিও না। পাঠ,কীর্ত্তন ও উপাসনার সহায়তায় চতূর্দ্দিকের জমি নিয়ত কর্ষিতে থাক। […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

সরল ব্রহ্মচর্য্য

সরল ব্রহ্মচর্য্য দক্ষিণা-বঞ্চিত, অন্নাভাব-ক্লিষ্ট অথবা চিপিটক-সর্ব্বস্ব কুল পুরোহিত একান্ত দায়ে ঠেকিয়াই মাথার টিকি আর ললাটের ফোঁটা কষ্ট সৃষ্টে বজায় রাখিয়াছেন। আয়ুর্বেদ বিশারদ আজ মোদক বেচিতেই ব্যস্ত, আর শক্তিমান লেখক কামাতুর নায়ক-নায়িকার মনস্তত্ত্ব বিশ্লেষনে মগ্ন। ফলে, সমাজের ক্ষত-বিক্ষত সর্ব্বাঙ্গে ব্রহ্মচর্য্যের শান্তি-প্রলেপ তাহাদিগকে নিজের চেষ্টাতেই মাখিতে হইবে, যাহারা অসংযমের আগুনে জ্বলিয়া পুড়িয়া তারপরে কল্যানের পন্থা পাইয়াছে। এই […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

গুরু-শিষ্য বাণী

গুরুদীক্ষিত হইয়াও অনেকে সাধন করিতেছে না। ইহা যে কত বড় মূর্খতা, আর কত বড় ক্ষতি, অবোধ বলিয়া ইহা ইহাদের বুঝিবার সামর্থ্য নাই। সৎপ্রেরণা দিয়া ইহাদের প্রতিজনকে সাধনে উন্মুখ কর। নিজে সাধন কর। তাহা হইলে সকলে তোমার ইচ্ছার দাম দিবে,কথার মূল্য স্বীকার করিবে। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ (১লা কার্তিক, ১৩৬৮)(৫২) হরিওঁ লিখি বলি-লি-ণব নহ-ু লিখি বলিয়াই আমি […]

বিস্তারিত পড়ুন
শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ বাণী

স্বামী স্বরূপানন্দের বাণী

সৎকার্য্যে যাহারা বদ্ধপরিকর হইয়াছে, তাহাদের হাতে হাত, কাঁধে কাঁধ মিলাও। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ (পথের সন্ধান-৪৫৪) নিখিল বিশ্বের কুশল হোক, সাম্প্রদায়িকতার অবসান হোক, জাতি-বৈর নির্মূল হোক, সকল পর আপন হোক। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ আমি জানিতে চাই না,তুমি কতখানি হিন্দু, তুমি কতখানি খ্রিস্টান, তুমি কতখানি মুসুলমান, আমি জানিতে চাহি, তুমি কতখানি মানুষ। -শ্রীশ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ জীবিকা অর্জনের […]

বিস্তারিত পড়ুন
error: Content is protected !!