সোনা-বন্ধু কালিয়া

সোনা-বন্ধু কালিয়া, আইল না শ্যাম কি দোইষ জানিয়া। বড়ো লইজ্জা পাইলাম–নিকুঞ্জে আসিয়া।। আর মনে বড়ো আশা করি– আইল না। শ্যাম–বংশীধারী।…

সুচিত্রে আমি কার

সুচিত্রে আমি কার লাগি গাঁথিলাম গো বিনাসুতে বিচিত্র মালা। মালা সে কি লো আর দ্বিগুণ জ্বলে কৃষ্ণপ্ৰেম বিচ্ছেদের মালা পরাইব…

সজনী সই গো

সজনী—সই গো, আমি রইলাম কার আশায় : চুয়া-চন্দন–ফুলের মালা– আমি থাইছি কটরায়।। সজনী—সই গো।। গাঁথিয়া বনফুলের মালা আমি দিতাম কার…

সখী রাত্র হইল ভোর

সখী রাত্র হইল ভোর আইনা না মোর প্রাণ প্রিয়া নিদয়া-নিষ্ঠুর।। ঘুরে ঘুরে পরে পরে পদ করিলাম খুর পন্থপানে চাইতে চাইতে…

যাও গো দূতী পুষ্পবনে

যাও গো দূতী পুষ্পবনে পুষ্প তুলো গিয়া আমি সাজাইতাম বাসর শয্যা প্ৰাণবন্ধুর লাগিয়া।। কাচা কাঞ্চন পুষ্প আন গো তুলিয়া আন…

বাহির হইয়া শুন সজনী

বাহির হইয়া শুন সজনী, ঐ করে কোকিলায় ধ্বনি ডালে বসে কোকিলা পাখী, কুহু কুহু রব শুনি আমার বন্ধু না আইল…

বাসর শয্যা সাজাই

বাসর শয্যা সাজাই কার আশায় কই রইল মোর বন্ধু শ্যামরায় ওগো বিচ্ছেদ আগুন জ্বলছে হিয়ায় আতর গোলাপ কস্তুরী আনি পুষ্পশয্যা…

বাঁচিবার সাধ নাই

বাঁচিবার সাধ নাই গো সখী বাঁচিবার সাধ নাই দেহার মাঝে কি যন্ত্রণা করে বা দেখাই।। গাঁথিয়া বনফুলের মালা নিশিটি পোহাই…

বল না বল না সখী

বল না বল না সখী কি করি উপায় গো নিশি গত প্ৰাণনাথ রহিল কোথায় গো।। জ্বলতেছে শরীর আমার মদন জ্বালায়…

প্ৰাণ সই রজনী পুষাইয়া

প্ৰাণ সই রজনী পুষাইয়া গেল প্ৰাণবন্ধু কই।। প্ৰাণবন্ধ প্ৰাণবন্ধু বলে ক্ষণে উঠি ক্ষণে বই।। সাজাইয়া ফুলের শয্যা যত্ন করি থই…
error: Content is protected !!