ভক্ত যে, সে শুধু নৈর্ব্যক্তিক ধারণা নিয়ে খুশি থাকতে চায় না।সে চায় তার বাস্তব প্রকাশ। তাকে প্রীত করেই প্রীত হতে চায়, এর মধ্যই জীবনের সম্ভোগ। তাদের কাছে বাসুদেবই সব। সব কিছু তত্ত্ব ও বস্তুর সংহত পরিপূর্ণতা যা, তার থেকে কিছুই বাদ দিতে চায় না। তাই তারা বাসুদেবকেই আঁকড়ে ধরে। কারণ তার মধ্যেই আছে সবকিছু তত্ত্ব ও বস্তুর সুসঙ্গত কেন্দ্রায়িত সমাবেশ।

অনুকুল ঠাকুরের বাণী: পঞ্চবর্হি-সপ্তার্চ্চি

পঞ্চবর্হি: ১. এক-অদ্বিতীয়ের শরণ লও। ২. পূর্ব্বপূরণকারী প্রবুদ্ধ ঋষিগণের শরণ লও। ৩. তাঁহাদের পথ অনুসরণকারী পিতৃপুরুষগণের শরণ লও। ৪. অস্তিত্বের…

অনুকুল ঠাকুরের বাণী: তিন

৬১. পরমপিতা দিলে হয়, আমি বুদ্ধি করে বা চেষ্টা করে কিছু বলতে পারি না। তিনি যখন যা যোগান, তেমনি বলি,…

অনুকুল ঠাকুরের বাণী: দুই

৩১. কীর্তন আগুনে যজ্ঞ ছেয়ে ফেল। কীর্তনময় হলেই নামময় হল। আবার শ্যামের বাঁশি বেজে উঠবে। ৩২. ভূত মহেশ্বরের একটা দিক…

অনুকুল ঠাকুরের বাণী: এক

১. যতই পরের দোষ দিবি তুই নিজের যা দোষ এড়াতে, পেয়ে বসবে সে দোষ তোমায় দেবে না পা বাড়াতে।। ২.…
error: Content is protected !!