যে সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে সে সর্বদাই আলো দেখে। ঠিক সেরকম যে ব্যক্তি সূর্য স্বরূপ ঈশ্বরের দিকে মুখ করে থাকে তার নিকট সবসময়ই আলোরূপ আনন্দই আনন্দ। যে সূর্যের দিকে পিছন ফিরে থাকে সে শুধু দেখতে পায় ছায়া বা দু:খ, তার দু:খই দু:খ। আর সূর্য যার মাথার উপরে থাকে তার ছায়া বা দু:খ দর্শন হয়ই না।

স্বামী পরমানন্দের বাণী: ছয়

২২৬.প্রেমের পূর্ণ অনুভূতি জীবনে এনে দেয় সন্তোষ, শান্তি ও পরমানন্দের প্রবাহ। আর কামুকতায় এনে দেয় দেহচিন্তা, দুখ, ঈর্ষা, দ্বেষ, অভিমান…

স্বামী পরমানন্দের বাণী: পাঁচ

১৮১.জীবনে সহজতা এলেই মানবতা বা মনুষ্যত্বের বিকাশ ঘটে। সহজতা ছাড়া মনুষ্যত্ব লাখ হয় না আর মনুষ্যত্ববিহীন জীবনে আধ্যাত্মিকতারও প্রকাশ ঘটে…

স্বামী পরমানন্দের বাণী: চার

১৩৬.ধর্ম-শাস্ত্রাদিতে বর্ণিত সত্য হৃদয় দিয়ে অনুভব করতে হয়। শুধু মুখস্ত করে অথবা ধর্মশাস্ত্রকে সিঁদুর, বেলপাতা দিয়ে পুজো করে কি লাভ?…

স্বামী পরমানন্দের বাণী: তিন

৯১. সঠিক পথে চলবে, হয়তো কষ্ট স্বীকার করতে হয় সঠিকপথে চললে, কিন্তু ভবিষ্যতে ভালো হয়- দুর্গতি হয় না। ৯২. একমাত্র…

স্বামী পরমানন্দের বাণী: দুই

৪৬.প্রেমিক গুরুর পাল্লায় না পড়লে সাধনার শেষ ধাপ অতিক্রম করা যায় না। ৪৭.যদি পরম সত্যকে বোধে বোধ করতে চাও তাহলে…

স্বামী পরমানন্দের বাণী: এক

১.সংকীর্ণতা ত্যাগ করে মুক্ত হও। ২.মানবের সাধনা হোক মনুষ্যত্বলাভ। ৩.অহংবোধ গেলেই ইশ্বরবোধ আসে। ৪.আত্মবিস্মৃতিই বন্ধন। জ্ঞানেই মুক্তি। ৫.মতবাদ ভুলে প্রেমসমুদ্রে…
error: Content is protected !!