গোলোক পালের পুত্র

পরিশিষ্ট খণ্ড : তৃতীয় তরঙ্গ
বন্দনা

জয় জয় হরিচাঁদ জয় কৃষ্ণদাস।
জয় শ্রী বৈষ্ণব দাস জয় গৌরী দাস।।
জয় শ্রী স্বরূপ দাস পঞ্চ সহোদর।
পতিত পাবন হেতু হৈলা অবতার।।
জয় জয় গুরুচাঁদ জয় হীরামন।
জয় শ্রী গোলোকচন্দ্র জয় শ্রী লোচন।।
জয় জয় দশরথ জয় মৃত্যুঞ্জয়।
জয় জয় মহানন্দ প্রেমানন্দময়।।
(জয় শ্রীসুধন্যচাঁদ সভ্যভামাত্মজ।
প্রেমানন্দে হরি গুরু শ্রীপতিচাঁদ ভজ।।)
জয় নাটু জয় ব্রজ জয় বিশ্বনাথ।
নিজ দাস করি মোরে কর আত্মসাৎ।।

ভক্ত হরিপাল উপাখ্যান।
পয়ার

গোলোক পালের পুত্র হরিপাল নামে।
যশোহর অধীনে কেশবপুর গ্রামে।।
ওঢ়াকাঁদি হরিচাঁদ নিকটে না যায়।
উদ্দেশ্যে মতুয়া হ’য়ে হরিগুণ গায়।।
হরিপাল হরিবোলা হইয়া গিয়াছে।
মতুয়া বলিয়া নাম প্রচার হ’য়েছে।।
এই সময়েতে তার হ’য়েছিল জ্বর।
জ্বরেতে অজ্ঞান প্রায় হইয়া বিকার।।
তার পিতা ভয় ভীত হইয়া মনেতে।
ডাক্তার আনিতে যায় ঔষধ খাওয়াতে।।
অমনি চৈতন্য হ’য়ে হরিপাল কয়।
হরিবোলা হ’য়ে কি ঔষধ খাওয়া যায়।।
হরিবোলা হ’য়ে যেবা ঔষধ খাইল।
জানিবে সে হরিবোলা সেদিন মরিল।।
তবে যদি বাঁচে কোন ঔষধি খাইয়ে।
সে বাঁচা সে মিছা বাঁচা বাঁচে কি লাগিয়ে।।
আমি তারে মনে করি জ্ঞান প্রাণ হত।
মায়াদেহ কায়া যেন ছায়াবাজী মত।।
না রহে নৈষ্ঠিক তার নাম নিষ্ঠা হারা।
দিন দুই চারি খেলা জীয়ন্তে সে মরা।।
ওঢ়াকাঁদি হরিচাঁদ হ’য়েছে উদয়।
পতিত পাবন প্রভু বড় দয়াময়।।
যাই যাই ভাবি আমি যাইতে না পারি।
শ্রবণে শুনেছি নাম চক্ষে নাহি হেরি।।
না দেখিতে পারিলাম প্রভুর শ্রীঅঙ্গ।
হেনকালে শুনিলাম লীলা হ’ল সাঙ্গ।।
গোলোকের নিত্যধন গেলেন গোলোকে।
উদ্দেশ্য ভাবি শ্রীপদ মনের পুলকে।।
শুনেছি সাধুর মুখে কহে পরস্পর।
অধর ধরিবি যে ধরেছে তারে ধর।।
অধর মানুষ যে ধরেছে ধরাপর।
মানুষ পড়িবে ধরা সে মানুষ ধর।।
সূর্যনারায়ণ খুড়া ডুমুরিয়া আছে।
ঠাকুরের কথা শুনিয়াছি তার কাছে।।
আমারে বাঁচাও যদি ওঢ়াকাঁদি যাও।
হুকুম আনিয়া পিতা আমাকে বাঁচাও।।
চলিল গোলোক পাল ওঢ়াকাঁদি যেতে।
ডুমুরিয়া গেল সূর্যনারায়ণে নিতে।।
কহিল আমার সাথে যেতে হবে ভাই।
হরিপুত্র গুরচাঁদে আনিবারে যাই।।
সূর্যনারায়ণ এল হরি হরি বলে।
তেতুল গুলিয়া খাওয়াইল হরিপালে।।
কাঁচি দধি পান্তাভাত খাওয়াইয়া দিল।
কাঁচা জলে স্নান জ্বর ধুয়ে ফেলাইল।।
সূর্যনারায়ণ ল’য়ে পরামর্শ করে।
বল খুড়া ওঢ়াকাঁদি যাই কি প্রকারে।।
হরিচাঁদ জ্যেষ্ঠ পুত্র প্রভু গুরুচাঁদ।
সে প্রভু কেমন আমি দেখিব সে পদ।।
করিলেন দিন ধার্য ওঢ়াকাঁদি যেতে।
ঠিক হ’ল সূর্যনারায়ণ যা’বে সাথে।।
একখানা নৌকা আছে বাওয়ালে পাঠাবে।
নৌকা চালাইয়া শেষে ওঢ়াকাঁদি যাবে।।
নৌকার চালান দিল বাওয়ালেতে গেল।
বাদায় সুন্দরী বনে গাছ কাঁটা ছিল।।
চাঁদপাই দক্ষিণে সে সুন্দরীর চক।
সেখানে কাটিল গাছ মনেতে পুলক।।
গদাই নামেতে সেই বাওয়ালির পাড়া।
সেই চকে গাছ কাটে পড়ে গেল সাড়া।।
এদিকেতে ওঢ়াকাঁদি মানসী করিয়া।
পাড়ার বাওয়াল সবে কাঠ কাটে গিয়া।।
কাটিয়া কাটিয়া নিয়া নৌকায় বাঁধিল।
বাবা হরিচাঁদ বলি নৌকা ছেড়ে দিল।।
সে পাড়ার নৌকা ছিল অষ্টাদশ খান।
সব নৌকা সায়রে জোয়ারে দিল টান।।
চিলা হতে নৌকা ছাড়ে জোয়ারের গোণে।
রাত্রি দেখে নৌকা রাখে মাকড়ের টোনে।। (ঢোনে)
নৌকা রেখে সবে ঘুমাইল বিহুঁশিতে।
ভাটা লেগে তরণী ডুবিল অর্ধ রাতে।।
বাওয়ালিরা চারিজন নায় বাঁধে কাঁছি।
চেঁচা চেঁচি করে বলে কিসে মোরা বাঁচি।।
ভোর রাত্রি চারিজন অন্য নায় উঠে।
বাড়ী এসে বলে হরিপালের নিকটে।।
দিন ভরে অনাহারে হরিপাল রয়।
বাবা হরিচাঁদ বলে কাঁদে সর্বদায়।।
হত্যা দিয়ে থাকে শুয়ে দেখিল স্বপন।
স্বপ্নাদেশে কহে এসে সূর্যনারায়ণ।।
আর না কাঁদিস বাছা হ’য়ে অর্থলোভী।
চলে যা নৌকার কাছে নৌকা গাছ পাবি।।
সেই সব ভাগিদের সঙ্গেতে করিয়া।
ডোবা নৌকা যথা তথা উত্তরিল গিয়া।।
সেই খানে গাঁঠ বাঁধা নৌকা বার খান।
কেঁদে কহে হরিপাল বাওলির স্থান।।
কাছি বাঁধা খুঁটিগাড়া নোঙ্গর যে ছিল।
তাহা উধঘাটিয়া নৌকা মধ্য গাঙ্গে এল।।
গদাই বাওয়ালি অন্য লোক ল’য়ে ব’সে।
নৌকা উঠাইয়ে নিবে করে পরামিশে।।
হরিপাল বলে সেই বাওয়ালির ঠাই।
আমি মোর ডোবা নৌকা তুলে নিতে চাই।।
গদাই বলেছে নৌকা বাদায় ডুবিলে।
কোন বেটা নৌকা পাইয়াছে কোন কালে।।
কুম্ভীর জলেতে লোনা কাঙ্গট হাঙ্গর।
এই স্থান হ’তে নৌকা কে উঠাবে তোর।।
হরিপাল বলে যদি তুলে দাও নৌকা।
তুমি মোর ধর্মপিতা দিব কুড়ি টাকা।।
গদাই বলেছে তুমি কেন পিতা কও।
ইচ্ছা থাকে কুড়ি টাকা তুমি ল’য়ে যাও।।
তাহা শুনি হরিপাল নিরস্ত হইল।
নিজে নৌকায় এসে রাত্রিতে রহিল।।
বাবা হরিচাঁদ বলে ছাড়ে ঘন হাই।
শেষ রাত্রে চেঁচাইয়ে উঠিল গদাই।।
হেনকালে শব্দ উঠে নৌকা ঠেকাঠেকি।
জল শব্দ উঠে ঢেউ নৌকা ঢকঢকি।।
গদাই বাওয়ালি বলে সবে শুনে নেও।
উঠাও পালের নৌকা যদি ভাল চাও।।
এ নৌকা না উঠাইলে কারু বাঁচা নাই।
নতুবা সকল নৌকা ডুবিবে এ ঠাই।।
ব্যাঘ্রে চড়ি উগ্র এক মানুষ আসিয়ে।
প্রকাণ্ড শরীর তার কহে হুঙ্কারিয়ে।।
শীঘ্র করি এই তরী প্রভাতে উঠাও।
নৈলে ডুবাইব সব বাওয়ালির নাও।।
রাত্রি পোহাইল সবে করে ডাকাডাকি।
গদাই বাওয়ালি বলে তোরা আয় দেখি।।
জলে নক্র কে ডুবিবে কে বাঁধিবে কাছি।
হরিপাল বলে আমি নিজে ডুবিতেছি।।
ভাটার সময় ডুব দিল হরি বলে।
এক ডুবে কাছি বাঁধি উঠিলেন কূলে।।
হরিপাল বলে কাছি উপরে থাকুক।
ক্ষণেক বিলম্ব কর জোয়ার আসুক।।
বাবা হরিচাঁদ বলে উৎকণ্ঠিত প্রাণ।
ছয় জনে কাছি ধরি দিল এক টান।।
হাল দাঁড় বাঁধা গাছ নোঙ্গর সহিতে।
জাগিয়া উঠিল নৌকা ছই ছাপ্পরেতে।।
গদাই বাওয়ালি বলে কিছুকাল রও।
ভাটা হ’লে আপনি জাগিবে এই নাও।।
জল ফেলাইল সবে ভাটার সময়।
সেঁচা হ’য়ে পূর্ববৎ নৌকা ভেসে রয়।।
গদাই বাওয়ালি তার এ বার্ষিক আছে।
একটি মানুষ দেয় শার্দূলের কাছে।।
হরিপাল যবে নৌকা খুলিবারে চায়।
সেই দিন বাঘের বার্ষিক দিতে হয়।।
গদাই বাওয়ালি বলে হরিপাল শুন।
টাকা দিবা বলেছিলে দেহ টা এখন।।
হরিপাল বলে টাকা দিব কি কারণ।
নৌকা উঠাইয়া দিলে দেখিয়া স্বপন।।
শুনিয়া গদাই রাগ হ’ল অতিশয়।
মৌখিকেতে সাধুভাষা হরিপালে কয়।।
আশা ছিল হরিপাল দেশে ফিরে যাবে।
তারপর গদাই সে নৌকা তুলে নিবে।।
তাহা নাহি হ’ল আরো টাকা নাহি দেয়।
জানে প্রাণে মারিব যেমন দুরাশয়।।
গদাই বলেছে হরি ধর্মপুত্র তুমি।
চল বাছা চক দেখাইয়া আনি আমি।।
সাধুর তরণী কভু মারা নাহি যায়।
তোমা হ’তে এই কথা হইল প্রত্যয়।।
নৌকা পেলে গাছ পেলে বাপরে আমার।
আমার যা আছে তাহা সকলি তোমার।।
কতকগুলি গাছ কাঁটা আছে এই চকে।
মম সঙ্গে চল বাছা দিব তা তোমাকে।।
ধর্মপুত্র, তুমি, তোমা বড় ভালবাসি।
চল যাই তোমাকে দেখায়ে ল’য়ে আসি।।
এই গাছ দেশে ল’য়ে ওরে বাবা।
এই গাছ নামাইয়া সেই গাছ নিবা।।
এত বলি দুইজনে চড়ি ডিঙ্গিনায়।
হরিপালে লইয়া গদা বাদা মধ্যে যায়।।
দুই তিন জোলা খাল পার হ’য়ে গেল।
দুর্গম বাদার মধ্যে হাঁটিয়া চলিল।।
হরিপাল বলে ওরে গদাই বাওয়ালি।
কই তোর কাঁটা গাছ কোথা ল’য়ে আলি।।
গদা বলে হরিপাল বুঝিতে না পার।
সময় থাকিতে পরকাল চিন্তা কর।।
আমার নিয়ম আছে বার্ষিক এ স্থান।
একটি মানুষ দেই বাঘের যোগান।।
সেই জন্য আসিয়াছি তোমারে লইয়ে।
তোরে দিয়ে সেই বার্ষিক যাব শোধ হয়ে।।
হরিপালে ধরে তথা বসাইয়া রাখে।
দূরে গিয়ে গদাই চালান মন্ত্র ডাকে।।
বসিলেন হরিপাল নয়ন মুদিয়া।
মরিলাম হরিচাঁদ বিদেশে আসিয়া।।
কেন মোরে বাদায় পাঠালে স্বপ্নাদেশে।
রাখ মহাপ্রভু আমি মরিনু বিদেশে।।
এ বিপদে যদি পদে স্থান নাহি দিবে।
অকলঙ্ক নামে তব কলঙ্ক রহিবে।।
বাঘে খাবে এত ভাবি ছেড়ে দিল দেহ।
চক্ষেধারা জ্ঞান হারা পড়ে দিল মোহ।।
কতক্ষণ তথা অচৈতন্য হ’য়েছিল।
দৈবে এক মহা পুরুষ তথায় আসিল।।
হরিপালে উঠাইল ধরে দুই হাতে।
বলে আমি আসিয়াছি ওঢ়াকাঁদি হ’তে।।
ভয় নাই বাছারে নয়ন মেলে থাক।
গদাই কি করে তাহা ব’সে ব’সে দেখ।।
হরি গ্রীবা পরে হরি বসে পাছা দিয়ে।
দুই দিকে দুইপদ বক্ষে ঝুলাইয়ে।।
দাঁড়িয়ে রহিল এক লৌহ গদা হাতে।
হরিপাল বসিয়া রহিল নির্ভয়েতে।।
উরুযুগ বক্ষে চাপি বঙ্কিম জঙ্গায়।
যেন নরসিংহ মূর্তি ভয়ংকর কায়।।
হরিপাল বাহুযুগে উরু চাপি ধরি।
শ্রীচরণে হেরি দুনয়নে বহে বারি।।
জীবমানে হেরি নাই শ্রীচরণ তরী।
দেখিব দেখিব মনে আশা ছিল ভারি।।
সেই আশা পূর্ণ হ’ল নৌকা বিসর্জনে।
বর্তমানে দেখিলা গদাইর গুণে।।
মৃত্যুঞ্জয় বিরচিত স্তোত্র গীতি যাহা।
অঙ্গ চিহ্ন লক্ষণাদি দেখিলাম তাহা।।
মন্ত্র পঠি ডাকে গদা হ’ল এক শব্দ।
ভূমিকম্পে প্রায় শব্দে বনজন্তু স্তব্ধ।।
সব পক্ষী উড়িল নিদান ডাক ছাড়ি।
চকের মধ্যেতে যেন মহা হুড়াহুড়ি।।
ভীষণ শার্দূল এক তথায় আসিয়া।
হরিপাল সম্মুখে পড়িল লম্ফ দিয়া।।
ব্যাঘ্র এসে অল্প মাত্র রহিল তফাৎ।
ব্যবধান অনুমান চারি পাঁচ হাত।।
লক লক জিহ্বা একহাত পরিমাণ।
লালাইছে বাহির করিয়া জিহ্বা খান।।
গর্জন করিছে ব্যাঘ্র হেন জ্ঞান হয়।
ভীমনাদে মহাক্রোধে মাটি ফেটে যায়।।
দণ্ডচারি এইরূপে গর্জন করিল।
লম্ফ দিয়া দৌড়াইয়া ব্যাঘ্র পালাইল।।
গদাইর দিকেতে হইল ধাবমান।
তাহা দেখি উড়ে গেল গদাইর প্রাণ।।
শঙ্কা পেয়ে গদাই কহিছে অতঃপরে।
বলে বাবা হরিপাল রক্ষা কর মোরে।।
না বুঝিয়া হেন কার্য করিয়াছি তোমা।
তুমি সাধু হরি ভক্ত মোরে কর ক্ষমা।।
তুমি মম পিতা হও আমি তব ছেলে।
মরেছি মরেছি বাবা রাখ পুত্র বলে।।
আর আমি আসিব না বাওয়াল করিতে।
এইবার বাঁচাইয়া লহরে দেশেতে।।
স্কন্ধে থেকে প্রভু ডেকে বলে হরিপালে।
বাঁচাইয়া লহ ওরে হ’ল যদি ছেলে।।
এ বেটারে যদি অদ্য বাঘে ধরে খাবে।
দুর্গম বাদার পথ কে দে’খায়ে ল’বে।।
হরিপাল আজ্ঞা দিল ব্যাঘ্র ফিরে গেল।
ভয় নাই বলিয়া গদারে আশ্বাসিল।।
দয়া করি গদাইর প্রাণ দান করি।
তরীতে আসিল হরি বলে হরি হরি।।
পুনর্বার সায়রে জোয়ারে দিল টান।
এক সঙ্গে ভাসাইল তরী তের খান।।
খুলনা আসিল যবে ট্যাক্সের অফিসে।
হরিপালের নৌকা সকলের পাছে আসে।।
ট্যাক্স ঘাটে সকলের নৌকা লাগাইল।
বিশ ত্রিশ টাকা প্রতি নৌকায় লাগিল।।
হরির তরণী না রাখিল ট্যাক্স ঘাটে।
নিজ ঘাটে নৌকা বেয়ে এল নিঃসঙ্কটে।।
এইসব আশ্চর্য কার্যে বিস্ময় মানিল।
তারপর শ্রীশ্রীধাম ওঢ়াকাঁদি গেল।।
উত্তরিল ওঢ়াকাঁদি মনের আহলদে।
সাষ্টাঙ্গে প্রণাম করে গুরুচাঁদ পদে।।
মনের বাসনা যাতে ধন বৃদ্ধি হয়।
মনে মনে ভাবিলেন যাত্রার সময়।।
দেখা মাত্র গুরুচাঁদ বলিল বচন।
হরিবল হরি তব বাড়িবেক ধন।।
মনো কথা যত তার মনে মনে ছিল।
গুরুচাঁদ শ্রীচরণে সব নিবেদিল।।
ক্রমেতে সম্পত্তি তার বাড়িতে লাগিল।
হরিচাঁদ নামে বহু লোক মাতাইল।।
কতক খাতক হ’ল বহু শিষ্য হল।
অন্য জাতি স্বজাতীয় লোক মাতাইল।।
অর্জুন মাতিল আর নাগর বণিক।
হরিচাঁদ প্রেমে লোক মাতিল অধিক।।
হরিচাঁদ প্রেমে গুরুচাঁদের ভাবেতে।
মাতাইল পাল বংশ অনেক গ্রামেতে।।
পালপাড়া শুক্তাগ্রাম আর কুলুখালি।
ঘসিবেড়ে দিঘলীয়া মাতে হরি বলি।।
হরিপালের চরিত্র বিচিত্র অদ্ভুত।
শ্রবণে কলুষনাশ হারে রবিসুত।।
যেবা শুনে গায় হয় দুস্তারে নিস্তার।
হেন মধু পিও সাধু জন্ম নাহি আর।।
হরি প্রেম সাগরে সাঁতারে সাধুলোক।
শ্রীহরি চরিত্র সুধা ক্ষুধার্ত তারক।।

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!