ভবঘুরেকথা
গৌরাঙ্গ মহাপ্রভু চৈতন্য নিমাই বৈষ্ণব

চরণামৃত ধারণ
শ্রীকৃষ্ণের চরণামৃত অগ্রে বৈষ্ণবদিগকে প্রদান করিয়া পরে প্রণামপূর্ব্বক পান করত: নিম্নলিখিত মন্ত্রে মস্তকে ধারণ করিবে। যথা-

অকাল মৃত্যুহরণং সর্ব্বব্যাধি নিবাশনম্।
বিষ্ণুপাদোদকং পীত্বা শিরসা ধারাযাম্যহম্।

চরণামৃত ধারণে কোটি ব্রহ্মহত্যা পাপ বিনষ্ট হয়, কিন্তু উহা মাটিতে পড়িলে তাহার অষ্টগুণ পাপ হইবে।

অনিবেদিত দ্রব্য ভোজন
অন্ন, জল, ঔষধাদি যাহা কিছু নিজের আহারের জন্য গ্রহণ করা হইবে, তৎসমস্ত শ্রীবিষ্ণুকে নিবেদন করিয়া ভোজন করিবে।

অনিবেদিত বস্তু ভোজনে প্রায়শ্চিত করিতে হয়। নতুবা তাহার পিতৃগণ অনন্তকাল নরক ভোগ করেন।

বিষ্ণুনৈবেদ্য বা মহাপ্রসাদ ভোজন
কোটি যজ্ঞ, কোটি মাস উপবাস করিলে যে পূণ্য হয়; একমাত্র বিষ্ণুনৈবেদ্য গ্রহণে সেই ফল পাওয়া যায়। মহাপ্রসাদ শুষ্ক ও বাসী হইলেও প্রাপ্তিমাত্র ভক্ষণ। ইহাতে স্থান ও কারের বিচার করিতে নাই। সুরগণ, সিদ্ধগণ ও ঋষিগণ বিষ্ণুর নৈবেদ্যকে পবিত্র বলিয়া উল্লেখ করিয়াছেন। অন্য দেবতার নৈবেদ্য বা পানীয় গ্রহণ, স্পর্শন, দর্শণ বা ভক্ষণ করিবে না।

……………………………………..
তত্ত্বরসামৃত জ্ঞানমঞ্জরী
-শ্রীশ্রী চরণ দাস

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

error: Content is protected !!