গৌরাঙ্গ মহাপ্রভু চৈতন্য নিমাই বৈষ্ণব

বৃথা মান-বৃথা অহঙ্কার

অনিত্যানি শরীরাণি বিভবো নৈব শাশ্বত।
নিত্যঙ সন্নিহিতো মৃত্যু: কর্ত্তব্যো ধর্ম্ম সঞ্চয়:।।

সত্য, ত্রেতা আর দেখ দ্বাপর যুগেতে।
আয়ু নির্দ্ধারিত ছিল আছয়ে শাস্ত্রেতে।।
কিন্তু কলিকালে নাহি আয়ু পরিমাণ।
শিশু, ছেলে, যুবা মরে গর্ভের সন্তান।।
সত্যযুগে দেহে ছিল প্রাণ মজ্জাগত।
ত্রেতাযুগে প্রাণ আছিলেক অস্থিগত।।
দ্বাপর যুগেতে ছিল চর্ম্মগত প্রাণ।
কলিকালে অন্নগত হয় যে পরাণ।।
তাই বলি ধন মান ত্যজ অহঙ্কার।
অস্থায়ী জিনিসে গর্ব কর কি প্রকার।।
যদি বল কলিকালে শতবর্ষ বাঁচে।
তবে পিতৃ অগ্রে পুত্র কেন বা মরিছে।।
ভাগ্যবলে কেহ শতবর্ষ আয়ু পায়।
বৃথা মায়ামোহে পড়ি কাল যে কাটায়।।
নিদ্রায় অর্দ্ধেক আয়ু ক্ষয় হয় তার।
এরূপে পঞ্চাশ বর্ষ হয়ে গেল পার।।
ইতিমধ্যে বাল্যে গত হয় দশ বর্ষ।
ছয় বর্ষ কাটে যুবা হয়ে মনে হর্ষ।।
দ্বাদশ বৎসর যায় অর্থ উপার্জ্জনে।
আর দশ বর্ষ যায় কুটুম্ব পোষণে।।
শেষের দ্বাপর বর্ষ বৃদ্ধ জরাগ্রস্ত।
কহিতে বলিতে আয়ু-সূর্য্য হয় অস্ত।।
পাপে পরিপূর্ণ ঘেরা মায়াজলে।
জীবনের বৃথা গর্ব্ব এই কলিকালে।।
ভেবে দেখ বাল্যকালে কেহ মরে যায়।
কেহ শতবর্ষ বাঁচি কূল নাহি পায়।।
বৃথা অভিমান আর বৃথা অহঙ্কারে।
ধনী মানী কুলীনেরা বৃথা গর্ব্ব করে।।
দু:খী আর নীচ জাতি প্রতি করে ঘৃণা।
অর্থ লোভে মত্ত হবে না চিনে আপনা।।
কিন্তু দেহস্থিত প্রাণ একই সমান।
উচ্চ নীচ সমতুল্য যাইলে শ্মাশান।।
ধনী মানী কুলীনেরা যেই কার্য্য করে।
দীনদু:খী নীচ জাতি সেরূপ আচরে।।
দীন ও দরিদ্র যথা কালেতে মরয়।
সেইমত মহারাজে কালেতে গ্রাসয়।।
দরিদ্র লোকেরা থাকে অনেক চিন্তায়।
ধনী সদা ব্যস্ত থাকে ধনের আশায়।।
কুলীনজনেরা সদা কুল গর্ব্ব করে।
চোর ঘুরে এথা সেখা চুরি করিবারে।।
এইমত আশাবদ্ধ লোক সমুদয়।
মায়াবদ্ধ জীবসদা মায়াতে মজয়।।
একজন মরে যদি কাঁদে তিনজন।।
মরিবে আপনি ইহা না ভাবে কখন।।
কোথা হতে আসে জীব যায় কোন্ দেশে।
ইহা ভুলি সদা জীব মজে মায়ারসে।।
হিংসা নিন্দা পরচর্চ্চা আত্ম অহঙ্কারে।
মায়াভ্রান্তি ভেদাভেদ অনেক প্রকারে।।
কিন্তু কিসে তরিবে যে এ ভব সংসার।
দুর্লভ মনুষ্য জন্ম পাবে কি আবার।।
চুরাশী লক্ষটা যোনি ভ্রমণ করিয়া।
মনুষ্য কুলেতে জন্ম লভেছে আসিয়া।।
গর্ভ যন্ত্রণার কথা কহিব কি আর।
জঠর যন্ত্রণা কত লাগে সহিবার।।
কৃমিকীট মলমূত্র যত কষ্টচয়।
সর্ব্বদা এ সব আসি শরীর পীড়য়।।
এইমত কষ।টভোগ সবল যোনিতে।
ক্রমেতে চুরাশী লক্ষ হইবে ভ্রমিতে।।
শুন মুন সাধুজন হেয় এক মন।
চুরাশী যোনির কথা করিব বর্ণনা।।

……………………………………..
তত্ত্বরসামৃত জ্ঞানমঞ্জরী
-শ্রীশ্রী চরণ দাস

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!