মতুয়া সংগীত

হেরিয়ে মানুষের যত

(তাল-খেম্টা)
হেরিয়ে মানুষের যত কর্ম্ম কারখানা।
এ সে ঘোর কলিতে দুষ্কর্ম্মেতে, কত পায় দুঃখ যাতনা।।

১। মাতা পিতার গুণে পুত্রের, শান্তি অশান্তি,
স্বাস্থ্য চেহারা কিম্বা, শরীরের কান্তি।
কারও অতুল সম্পদ, কেহর যায় বাদ,
কারু জনম ভরি দেনা।।

২। হলে মাতা পিতা অশিক্ষিত, নিজ সন্তানেরে,
ক্রোধতরে অভিমাপ দেয়, সামান্যের তরে।
তাতে ব্যধি যুক্ত, মেয়ে পুত্র, দুঃখ যাতনা ঘুচেনা।।

৩। ভাগ্যক্রমে পুত্রের ঘরে, যদি সন্তান হয়,
কর্ম্ম অক্ষম করে দুষ্কাম, ব্যাধিগ্রস্ত রয়।
পেয়ে খেতে কষ্ট, অসন্তুষ্ট, হরিনাম মুখে আসে না।।

৪। এই ভাবে তার পূর্ব্ব পুরুষ, হীন হইয়ে রয়,
(শাপে) অর্থের অভাব, কু স্বভাব,
আর ব্যাধি নাহি যায়।
করে কম্ম মন্দ অসৎ সঙ্গ, দিবা নিশি কুভাবনা।।

৫। সুশিক্ষিত অতি জ্ঞানী, মাতা পিতা হলে,
অভিশাপ দেয় না কখনে, বহুকষ্ট পেলে।
তারা ভাবে মনে, ক্ষুদ্র জ্ঞানে, বলে মন্দ রাগ হব না।।

৬। (আদিত্য) বলে রিপুর ছলে, জ্ঞান হারাইও না,
হরি গোসাইর রণ নিয়ে কর সাধনা।
বোকা দীনবন্ধু সাধন বন্ধু, গুমানে হারাইওনা।।

…………………………..
লোক শিক্ষা
রাগিনী-লম্পট

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!