ফকির লালন বাউল সাধুসঙ্গ

কবে হবে আমার সে রাগের উদয়

কবে হবে আমার সে রাগের উদয়।
কবে রাই-রূপলাবণ্যে, নির্বিকার মনে
অবগাহন ক’রে হইব তন্ময়।।

রূপ-সায়রেতে কবে যাব আমি,
আমার আমিত্ব দিয়ে ভজিব হে আমি,
সতীর আদর্শ যেন হয় নিজ স্বামী,
আমার প্রাণ তেমনি হবে ভাবময়।।

তত্ত্বজ্ঞানী যারা রূপ-রসে ভরা,
অধিরূঢ় ভাব রাগে মাতোয়ারা,
তারাই অধর ধরে হ’য়ে আপ্তসারা,
সেই ভাবে ভরা শচীর তনয়।।

রাইরূপ-সায়রে তিন ধারা চলে,
মাসে মাসে উদয় সুধাবিন্দু খেলে,
সাধুসঙ্গ হ’লে অনায়াসে মেলে
দুর্ভাগ্য কপালে সে তো হবার নয়।।

নামে নিষ্ঠা হ’লে রুচি উপজিবে,
রুচিতে আসক্তি হ’লে রতি যে বাড়িবে,
হ’লে রতি-পতিজ্ঞান প্রাপ্তি ভগবান,
কর স্বরূপে সন্ধান শ্রীরূপ-আশ্রয়।।

এই অষ্ট সাত্ত্বিক ভাবেতে বিভোরা,
রাধা রাধা ব’লে কেঁদে বেড়ায় গোরা,
তিন বাঞ্ছা লাগি’ বয় দু’নয়নে ধারা,
ধারা ধ’রে গোরা বিভোর হয়।।

তার পর সহজ-অন্বেষণ কর,
তিন ধারার শেষে নজর দিয়ে ধর,
গোঁসাই নরহরি নর-বপু-চিহ্ন স্মর,
অনুরাগী হের আপন হৃদয়।।

……………………
অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের ‘বাংলার বাউল ও বাউল গান’ গ্রন্থ থেকে এই পদটি সংগৃহিত। ১৩৬৪ বঙ্গাব্দে প্রথম প্রকাশিত এই গ্রন্থের বানান অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। লেখকের এই অস্বাধারণ সংগ্রহের জন্য তার প্রতি ভবঘুরেকথা.কম-এর অশেষ কৃতজ্ঞতা।

এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- বর্ধমান জেলার বেতালবন গ্রামের বাউল সমাবেশ হইতে বিশেষভাবে সংগৃহিত-

…………………….
আপনার গুরুবাড়ির সাধুসঙ্গ, আখড়া, আশ্রম, দরবার শরীফ, অসাম্প্রদায়িক ওরশের তথ্য প্রদান করে এই দিনপঞ্জিকে আরো সমৃদ্ধ করুন-
voboghurekotha@gmail.com

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- voboghurekotha@gmail.com
……………………………….

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

error: Content is protected !!