বিশুদ্ধ চক্র

ধ্যান-পর্ব নয় (বিশুদ্ধ চক্র)

-দ্বীনো দাস

বিশুদ্ধ চক্র

(Throat Chakra – ছের, থাইরয়েড গ্রন্থি – Throud gland)

এই চক্রের কাজ অনেকটা টিভি রেডিও অ্যান্টেনার মতো। এর দ্বারা উচ্চস্তর বা তরঙ্গ থেকে আসা বার্তা, বাণী এবং অন্তরাত্মার আওয়াজ শোনা যায়।

এটি অবস্থিত কণ্ঠে, সমুদ্রের মত নীল রঙের ১৬ দল পদ্ম বিশিষ্ট। এই চক্র নিজের মনোভাব ও অভিব্যক্তিকে অন্যের কাছে পৌঁছানোর প্রধান কেন্দ্র।

যোগানুসারে এর কর্মেন্দ্রিয় হল বাণী ও শব্দ। সদা সর্বদা সত্যবাচন ব্যবহার করলে এই চক্রে শক্তির বিকাশ হয় এবং শব্দ বাণীর প্রভাব বৃদ্ধি হয়।

সত্য বল সুপথে চল
ওরে আমার মন।।
-সাঁইজি লালন ফকির

এর সাথে সম্পর্ক যুক্ত অঙ্গ হলো- ক্লোমগ্রন্থি বা থাইরয়েড (Thyroid) গলা, উপরের দিকের ফুসফুস, হৃদয়, কণ্ঠ, যকৃত, বাহু, খাদ্যনালী ও রক্তপ্রবাহ।

এর বৈকালে কফ, শ্লেষ্মা সম্পর্কিত রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। এর তত্ত্ব হল- আকাশ।

একে কেউ কেউ কণ্ঠ চক্র বলে ও ধুম্রবর্ণ পদ্মাকারে ১৬ দলে ক্রমে অং-অঃ এই ১৬টা বর্ণ রক্তবর্ণে সন্নিবেশিত আছে।

ইহা ব্যতীত এক এক দলক্রমে- ষড়জ, ঋষভ, গান্ধার, মধ্যম, পঞ্চম, ধৈবত, নিষাদ এই সপ্তস্বর ও বিষ, হুঁ -অমৃত এই ৯টা মোট ৭+৯=১৬ এই ষোড়শ প্রকার ভিন্ন ভিন্ন পদার্থ ও ১৬ দলে বিদ্যমান আছে। ইহার কর্ণিকা মধ্যে গোলাকার আকাশ মণ্ডল আছে।

এই আকাশ মণ্ডল হইতে অপর স্থূল ভূত চতুষ্টয় ক্রমান্বয়ে চক্ররূপে উৎপন্ন হইয়াছে। এই চক্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল এর মাধ্যমে নিজের মনের ভাবকে অন্যের কাছে খুব সহজে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়।

এটি সুস্থ থাকলে বাণীতে বাচনে ওজ ও প্রভাব বাড়ে। শরীরের কামশক্তি ও এই চক্র নিয়ন্ত্রণ করে। এটি অপ্রত্যক্ষভাবে সাধিষ্ঠান চক্রের সাথে সম্পর্কযুক্ত।

চক্রের সংক্ষেপ বিবরণ-

১. নাম- বিশুদ্ধ চক্র-ছের, (Throat chakra-Thyroid gland)।
২. স্থান- কণ্ঠদেশ।
৩. আকৃতি- ধুম্রবর্ণ ধোয়াটে আলোকে আলোকিত ১৬টি পাপড়ি যুক্ত পদ্ম।
৪. রঙ- আকাশী নীল (Light Blue)।
৫. দলের অক্ষর- অ-অঃ এই ১৬টি অক্ষর।
৬. তত্ত্ব- আকাশ।
৭. সম্পর্ক- থাইরয়েড Thyrod গ্রন্থি।
৮. ফল- মানসিক বা মনের বিশুদ্ধতা।
৯. শক্তির উৎস- কৃতজ্ঞতা ও দুঃখ।
১০. নিয়ন্ত্রণ- গলা ও ফুসফুসদ্বয়।

(চলবে…)

…………….
আরো পড়ুন:
ধ্যান-১
ধ্যান-২

ধ্যান-৩
ধ্যান-৪
ধ্যান-৫
ধ্যান-৬
ধ্যান-৭
ধ্যান-৮
ধ্যান-৯
ধ্যান-১০
ধ্যান-১১
ধ্যান-১২

…………….
আরো পড়ুন:
অবশ জ্ঞান চৈতন্য বা লোকাল অ্যানেস্থেসিয়া
ঈশ্বর প্রেমিক ও ধৈর্যশীল ভিখারী
সুখ দুঃখের ভব সংসার
কর্ম, কর্মফল তার ভোগ ও মায়া
প্রলয়-পূনঃউত্থান-দ্বীনের বিচার

ভক্তি-সংসার-কর্ম

………..
বি.দ্র.
আমার এই লেখা কিছু ইতিহাস থেকে নেওয়া কিছু সংগৃহীত, কিছু সৎসঙ্গ করে সাধুগুরুদের কাছ থেকে নেওয়া ও আমার মুর্শিদ কেবলা ফকির দুর্লভ সাঁইজি হতে জ্ঞান প্রাপ্ত। কিছু নিজের ছোট ছোট ভাব থেকে লেখা। লেখায় অনেক ভুল ত্রুটি থাকতে পারে তাই ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।। আলেক সাঁই। জয়গুরু।।

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!