ব্রহ্মা সৃষ্টি রহস্য ব্রহ্মাণ্ড মহাবিশ্ব জগৎ ভু

৬১. ত্রেতা, দ্বাপর ও কলির পরিমান

ইতরেষু সসংধ্যেষু সসংধ্যাংশেষু চ ত্রিষু।
একাপাযেন বর্তন্তে সহস্রাণি শতানি চ।।৭০

ত্রেতা-দ্বাপরাদিতে যুগের পরিমাণ ক্রমে এক সহস্র বৎসর কইয়া ও সন্ধাংশের পরিমান এক শত বৎসর করিয়া ন্যূন হইয়া যায় অর্থাৎ তিনি সহস্র বৎসরে ত্রেতাযুগ, তিনশত বৎসর তাহার সন্ধ্যা ও তিন শত বৎসর সন্ধ্যাংশ। দুই সহস্র বৎসরের দ্বাপরযুগ, দুই শত বৎসর তাহার সন্ধ্যা; দুই শত বৎসর সন্ধ্যাংশ হয়। সহস্র বৎসরে কলিযুগ, এক শত বৎসর তাহার সন্ধ্যা ও এক শত বৎসর সন্ধ্যাংশ হয়। ৭০

৬২. দেবযুগ

যদেতত্ পরিসঙ্খ্যাতমাদাবেব চতুর্যুগম্।
এতদ্ দ্বাদশসাহস্রং দেবানাং যুগমুচ্যতে।।৭১

ত্রেতে-দ্বাপরাদিতে যুগের পরিমাণ ক্রমে এক সহস্র বৎসর করিয়া ও সন্ধ্যাংশের পরিমাণ এক শত বৎসর করিয়া ন্যুন হইয়া যায় অর্থাৎ তিন সহস্র বৎসরে ত্রেতাযুগ, তিন শত বৎসর তাহার সন্ধ্যা ও তিন শত বৎসর সন্ধ্যাংশ। দুই সহস্র বৎসরে দ্বাপরযুগ, দুইশত বৎসর তাহার সন্ধ্যা ও দুই শত বৎসর সন্ধ্যাংশ হয়। সহস্র বৎসরে কলিযুগ, এক শত বৎসর তাহার সন্ধ্যা ও এক শত বৎসর সন্ধ্যাংশ হয়। ৭০

৬৩. ব্রহ্মার দিবা ও রাত্রি

দৈবিকানাং যুগানাং তু সহস্রং পরিসঙ্খ্যযা।
ব্রাহ্মমেকমহর্জ্ঞেযং তাবতীং রাত্রিমেব চ।।৭২

দৈবপরিমাণের সহস্র যুগসংখ্যাতে ব্রহ্মার এক দিন হয় এবং ঐ পরিমাণে তাঁহার এক রাত্রি হয়। ৭২

৬৪. অহোরাত্রবেত্তা

তদ্ বৈ যুগসহস্রান্তং ব্রাহ্মং পুণ্যমহর্বিদুঃ।
রাত্রিং চ তাবতীমেব তেঽহোরাত্রবিদো জনাঃ।।৭৩

দৈবপরিমাণে সহস্র যুগ পরিসমাপ্তিতে ব্রহ্মার এক দিন হয় ও ঐ পরিমাণে তাঁহার এক রাত্রি হয়। এই পবিত্র দিবারাত্রির পরিমান যাঁহারা অবগত আছেন, তাঁহাদিগকে অহোরাত্রবেত্তা বলা যায়। ৭৩

৬৫. মনঃসৃষ্টি

তস্য সোঽহর্নিশস্যান্তে প্রসুপ্তঃ প্রতিবুধ্যতে।
প্রতিবুদ্ধশ্চ সৃজতি মনঃ সদসদাত্মকম্।।৭৪

পরমাত্মা পূর্ব্বোক্ত স্বীয় অহোরাত্রের অবসানে প্রতিবুদ্ধ হয়েন এবং প্রতিবুদ্ধ হইয়াই ভূলোকাদি সৃষ্টি করিবার জন্য মনকে নিয়োগ করেন। ব্রহ্মার এইপ্রকার নিয়োগের নাম মনঃসৃষ্টি। ৭৪

৬৬. মহত্তত্বের উৎপত্তি

মনঃ সৃষ্টিং বিকুরুতে চোদ্যমানং সিসৃক্ষযা।
আকাশং জাযতে তস্মাত্ তস্য শব্দং গুণং বিদুঃ।।৭৫

পরমাত্মা সৃষ্টি করিবার ইচ্ছা করিলে পর সেই ইচ্ছায় প্রেরিত মহত্তত্ব হইতে আকাশ উৎপন্ন হয়। মন্বাদি আকাশের গুণ শব্দ বলিয়াছেন। ৭৫

৬৭. স্পর্শগুণ

আকাশাত্ তু বিকুর্বাণাত্ সর্বগন্ধবহঃ শুচিঃ।
বলবাঞ্জাযতে বাযুঃ স বৈ স্পর্শগুণো মতঃ।।৭৬

বিকৃতভাবাপন্ন আকাশ হইতে সুগন্ধ ও দুর্গন্ধবহ প্রবল পবিত্র বায়ু সমুদিত হয়। মন্বাদি উহার স্পর্শগুণ বলিয়াছেন। ৭৬

৬৮. তেজ উৎপত্তি

বাযোরপি বিকুর্বাণাদ্ বিরোচিষ্ণু তমোনুদম্।
জ্যোতিরুত্পদ্যতে ভাস্বত্ তদ্ রূপগুণমুচ্যতে।।৭৭

বিকৃতভাবাপন্ন আকাশ হইতে তমোনাশক, সকল বস্তুর প্রকাশক, দীপ্তমান তেজ উৎপন্ন হয়; ঐ তেজের গুণ রূপ। ৭৭

৬৯. পঞ্চভূতের উৎপত্তিক্রম

জ্যোতিষশ্চ বিকুর্বাণাদাপো রসগুণাঃ স্মৃতাঃ।
অদ্ভ্যো গন্ধগুণা ভূমিরিত্যেষা সৃষ্টিরাদিতঃ।।৭৮

তেজ বিকৃতভাবাপন্ন হইলে বিকারজনক তেজ হইতে জল জন্মে, জলের গুণ রস। জল হইতে গন্ধগুণসম্পন্ন পৃথিবী উৎপন্ন হয়, মহাপ্রলয়াবসানে সৃষ্টির প্রথমে পঞ্চভূতের উৎপত্তিক্রম এইরূপ। ৭৮

৭০. মন্বন্তর

যদ্ প্রাগ্ দ্বাদশসাহস্রমুদিতং দৈবিকং যুগম্।
তদেকসপ্ততিগুণং মন্বন্তরমিহোচ্যতে।।৭৯

পূর্ব্বে দ্বাদশ সহস্র সংখ্যায় পরিগণিত দৈবপরিমাণে যে যুগনির্ণয় করা হইয়াছে, তাহাকে একসপ্ততি গুণ করিলে যে ফল হয়, অর্থাৎ (৮,৫২,০০০) আট লক্ষ বাহান্ন সহস্র দৈববৎসর, তাহাকে এক মন্বন্তর বলা যায়। ৭৯

মন্বন্তরাণ্যসঙ্খ্যানি সর্গঃ সংহার এব চ।
ক্রীডন্নিবৈতত্ কুরুতে পরমেষ্ঠী পুনঃ পুনঃ।।৮০

পরমেষ্ঠী পিতামহ ব্রহ্মা যেন ক্রীড়া করিতে করিতে বার বার অসংখ্য মন্বন্তর এবং অনন্ত সৃষ্টি ও সংহার করিতেছেন। ৮০

৭১. যুগভেদে ধর্ম্মের স্থিতি

চতুষ্পাত্ সকলো ধর্মঃ সত্যং চৈব কৃতে যুগে।
নাধর্মেণাগমঃ কশ্চিন্ মনুষ্যান্ প্রতি বর্ততে।।৮১

সত্যযুগে সকল ধর্ম্মই সর্ব্বাঙ্গসম্পূর্ণ ছিল, মনুষ্যমাত্রেরই মিথ্যা বলা ছিল না, অধর্ম্ম দ্বারা ধনাগম ও বিদ্যাদির উপার্জ্জন ছিল না। ৮১

ইতরেষ্বাগমাদ্ ধর্মঃ পাদশস্ত্ববরোপিতঃ।
চৌরিকানৃতমাযাভির্ধর্মশ্চাপৈতি পাদশঃ।।৮২

ত্রেতা যুগে অধর্ম্ম দ্বারা ধন ও বিদ্যাদির আগম জন্য ধর্ম্মের এক এক পদ হীন হইতে লাগিল, অর্থাৎ ত্রেতায় ত্রিপাদ ধর্ম্ম, দ্বাপরে দ্বিপাদ ও কলিতে একপাদ ধর্ম্মামাত্র রহিল। ৮২

৭২. যুগভেদে মনুষ্যের পরমায়ুঃ

অরোগাঃ সর্বসিদ্ধার্থাশ্চতুর্বর্ষশতাযুষঃ।
কৃতে ত্রেতাদিষু হ্যেষামাযুর্হ্রসতি পাদশঃ।।৮৩

সত্যযুগে সকলে রোগশূন্য ছিল, যে যাহা কামনা করিত, তৎক্ষণাৎ সমুদয় সম্পন্ন হইত। সকলের চারি শত বৎসর পরমায়ু ছিল, কিন্তু ত্রেতাদি যুগত্রয়ে সকলের এক শত বৎসর করিয়া পরমায়ুর হ্রাস হইতে লাগিল, অর্থাৎ ত্রেতায় তিন শত বৎসর, দ্বাপরে দুই শত বৎসর, কলিতে শত বৎসর পরমায়ু হইল। উক্ত পরমায়ু স্বাভাবিক; অধিক আয়ুস্কর কর্ম্মবশতঃ অধিক আয়ুও হইয়া থাকে। ৮৩

বেদোক্তমাযুর্মর্ত্যানামাশিষশ্চৈব কর্মণাম্।
ফলন্ত্যনুযুগং লোকে প্রভাবশ্চ শরীরিণাম্।।৮৪

লোকে যুগানুসারেই মনুষ্যদিগের পরমায়ু কাম্য, কর্ম্মের ফলপ্রার্থনা এবং ব্রাহ্মণাদির শাপ, অনুগ্রহ প্রভৃতি প্রভাব ফলিত হইয়া থাকে। ৮৪

৭৩. যুগভেদে ধর্ম্মভেদ

অন্যে কৃতযুগে ধর্মাস্ত্রেতাযাং দ্বাপরেঽপরে।
অন্যে কলিযুগে নৄণাং যুগহ্রাসানুরূপতঃ।।৮৫

সত্যযুগে একপ্রকার ধর্ম্ম, ত্রেতায় আর এক প্রকার, দ্বাপরে অন্যপ্রকার এবং কলিযুগেও অন্য একপ্রকার ধর্ম্ম হয়। ফলতঃ যুগের অপচয় অনুসারে ধর্ম্মেরও বৈলক্ষণ্য হইয়া থাকে। ৮৫

তপঃ পরং কৃতযুগে ত্রেতাযাং জ্ঞানমুচ্যতে।
দ্বাপরে যজ্ঞমেবাহুর্দানমেকং কলৌ যুগে।।৮৬

সত্যযুগে তপস্যাই প্রধান ধর্ম্ম ছিল, ত্রেতায় জ্ঞানই প্রধান, দ্বাপরে যজ্ঞই প্রধান, কলিতে কেবলমাত্র দানই প্রধান হয়। ৮৬

৭৪. ব্রাহ্মণাদির পৃথক্‌ পৃথক্‌ কর্ম্মব্যবস্থা

সর্বস্যাস্য তু সর্গস্য গুপ্ত্যর্থং স মহাদ্যুতিঃ।
মুখবাহুরুপজ্জানাং পৃথক্ কর্মাণ্যকল্পয়ৎ।। (১/৮৭)

এই সকল সৃষ্টির অর্থাৎ ত্রিভুবনের রক্ষার জন্য মহাতেজযুক্ত প্রজাপতি ব্রহ্মা নিজের মুখ, বাহু, উরু এবং পাদ- এই চারটি অঙ্গ থেকে জাত ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য ও শূদ্রদের পৃথক পৃথক কার্যের ব্যবস্থা করিয়া দিলেন।

৭৫. ব্রাহ্মণের কর্ত্তব্য

অধ্যাপনমধ্যয়নং যজনং যাজনং তথা।
দানং প্রতিগ্রহঞ্চৈব ব্রাহ্মণানামকল্পয়ৎ।। (১/৮৮)

অধ্যাপন, স্বয়ং অধ্যয়ন, যজন, যাজন, দান ও প্রতিগ্রহ (উপহার বা দান-সামগ্রি গ্রহণ)- এই ছয়টি কাজ ব্রহ্মা ব্রাহ্মণদের জন্য নির্দেশ করে দিলেন।

<<মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব চার ।। মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব ছয়>>

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- [email protected]
……………………………….

…………….
আরও পড়ুন-
মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব এক
মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব দুই
মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব তিন
মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব চার
মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব পাঁচ
মনুসংহিতায় সৃষ্টিরহস্য-বিজ্ঞানপ্রকরণ : পর্ব ছয়

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!