পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব

পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব দশ

-মূর্শেদূল মেরাজ

  • বায়ু [পঞ্চবায়ু]
    • উদান বায়ু
      • কণ্ঠ থেকে মাথার উপরে ভাগের শেষ পর্যন্ত জায়গায় বিস্তৃত।
    • প্রাণ বায়ু
      • কণ্ঠ থেকে বুকের পাজরের খাঁচা অর্থাৎ যকৃতের উপর পর্যন্ত জায়গায় বিস্তৃত।
    • সামান বায়ু
      • যকৃতের উপর থেকে গুহ্দ্বার পর্যন্ত জায়গায় বিস্তৃত।
    • অপাণ বায়ু
      • গুহদ্বার থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত জায়গায় বিস্তৃত।
    • বিহান বায়ু
      • সমগ্র দেহে বিস্তৃত।
  • আকাশ [পঞ্চ আকাশ]
    • মাথা
      • মাথার ভেতর মস্তিষ্কের বাইরে একধরণের শূন্যতা থাকে অর্থাৎ মস্তিষ্কের আর মাথার মাঝে শূন্য জায়গা থাকে। মাথায় আকাশ অনাহত শব্দের আশ্রয় হিসেবে আকাশের অবস্থান।
    • কণ্ঠ
      • কণ্ঠের মাঝে মাঝে শূন্য জায়গা থাকে। শ্বাস-প্রশ্বাসের আধার হিসেবে কণ্ঠে আকাশের অবস্থান। শ্বাস নালী শূন্যতা থাকে বলেই শ্বাস-প্রশ্বাস চলতে পারে।
    • হৃদয়
      • হৃদয়ে মাঝে শূন্য জায়গা থাকে। হৃদয়ের পীতের আধার হিসেবে আকাশের অবস্থান।
    • উদার
      • উদারে মাঝে শূন্য জায়গা থাকে। পান করা পানির আধার হিসেবে অর্থাৎ পান করা পানি অবস্থান করার জন্য আকাশ।
    • কটিদেশ
      • কটিদেশ মাঝে শূন্য জায়গা থাকে। কটিদেশ বা কোমরে গন্ধের আধার হিসেবে আকাশের অবস্থান।
    • মাটি
      • দেহের দৃশ্যমান সকল কিছুই মাটি তত্ত্বের উপস্থিতি।
  • জল
    • দেহের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশই জল।
    • আনুমানিক প্রাপ্তবয়স্ক মানবদেহে প্রায় ৬০% জল থাকে।
    • আনুমানিক নবজাতকের ক্ষেত্রে প্রায় ৭৫% জল থাকে।
    • আনুমানিক স্থূলকায় ব্যক্তির ক্ষেত্রে প্রায় ৪৫% জল থাকে।

ফকির লালন সাঁইজি বলেছেন-

কেমন দেহভাণ্ড চমৎকার
ভেবে অন্ত পাবে না তার
আগুন জল আকাশ বাতাস আর
মাটিতে গঠন তার
সেই পঞ্চতত্ব করে একত্র
কীর্তি করে কীর্তিকর্মার।।

মেরুদণ্ড শতখণ্ড
তাহার উপর হয় ব্রহ্মাণ্ড
সাতসমুদ্র চৌদ্দভুবনের
নয় নদী বয় নিরন্তর
ইড়া পিঙ্গলা সুষস্মা দেখ
রঙ হয় তিন প্রকার
উপরে ব্রক্ষনাড়িতে ব্রক্ষরন্ধ্রে
রয় মূলাধার।।

সপ্তদল পাতালের নিচে
চতৃদল আর
কুলকুণ্ডলিনী সদাই স্থির
তার ঊর্ধ্বে বিজনেতে দশমদল
কমলের উপর মণিপুরের ঘর
তার ঊর্ধ্বে দ্বাদশদলে
ঊনপঞ্চাশ পবনের ঘর
পানঅপান সমানউদানের
ব্যাস হতে গতিকার।।

ষড়দলে দুলক্ষ যোজনের ’পরে
ষোলকলা গণ্য শরীরে
বিশুদ্বাক্ষ নাম তার ঊর্ধ্বে
মহাজ্ঞানে দ্বিদল কমলের ’পরে
চণ্দ্রবিন্দু অঙ্গ ইন্দুরে
জীবের বিন্দু ঝরে
সিন্ধু হয় পাথার
লালন বলে জোড়াপদ্ম নীলপদ্ম
ভেদ কর মন অতিদীপ্তকার।।

পঞ্চতত্ত্বের অন্যান্য রূপ –

পঞ্চভূত- ক্ষিতি, অপ, তেজ, মরুৎ, ব্যোম।
পঞ্চাত্মা- জীবাত্মা, ভূতাত্মা, পরমাত্মা, আত্মারাম, আত্মারামেশ্বর।
পঞ্চতত্ত্ব- গৌরাঙ্গ, নিত্যানন্দ, অদ্বৈত, গদাধর, শ্রীনিবাস।
পঞ্চপ্রাণ- প্রাণ, অপান, ব্যান, সমান, উদান।
পঞ্চ রস- শান্ত, দাস্য, সখ্য, বাৎসল্য, মধুর।
পঞ্চরসিক- জয়দেব, বিল্বমঙ্গল, বিদ্যাপতি, চন্ডীদাস, রায় রামানন্দ।
পঞ্চগব্য- দধি, দুগ্ধ, ঘৃত, গোময়, গোচনা।
পঞ্চশস্য- ধান, তিল, যব, মাষকলাই, সরিষা।
পঞ্চগুণ- রূপ, রস, গন্ধ, শব্দ, স্পর্শ।
পঞ্চাশ্রয়- নাম, মন্ত্র, ভাব, প্রেম, রস।
পঞ্চলোভ- লোভ, মারুব্র, রুচি, আসক্তি, ভাব।
পঞ্চবান- মদন, মাদন, পোষণ, স্তম্ভন, মোহন।
পঞ্চকোষ- অন্ন, প্রাণ, মন, বিজ্ঞান, আনন্দ।
পঞ্চগঙ্গা- ভাগীরথী, গৌতমি, কৃষ্ণবেণী, পিনাকিণী, কাবেরী।
পঞ্চকর্ম- বামনা, বীরচানা,বাস্টি, ন্যাস্যা, রক্ত মোক্ষা।
পঞ্চদেবতা- সূর্য, গণেশ, দুর্গা, শিব, বিষ্ণু।
পঞ্চ নদ- শতদ্রু, বিপাশা, ইরাবতী, চন্দ্রভাগা, বিতস্তা।
পঞ্চরত্ন- হীরক, মুক্তা, পদ্মরাগ, স্বর্ণ, বিদ্রুম।
পঞ্চামৃত- দধি, দুগ্ধ, ঘৃত, মধু, চিনি।
পঞ্চবট- অশ্বত্থ, বট, বিল্ব, আমলকী, অশোক।
পঞ্চকষায়- কুল, বকুল, জাম, শিমুল, বেড়েলা।
পঞ্চ যজ্ঞ- ব্রহ্ম যজ্ঞ, পিতৃ যজ্ঞ, দেব যজ্ঞ, ভূত যজ্ঞ, নৃ যজ্ঞ।
পঞ্চ পাণ্ডব- যুধিষ্ঠির, ভীম, অর্জুন, নকুল, সহদেব।
পঞ্চ কন্যা- অহল্যা, দ্রৌপদী, কুন্তী, তারা, মন্দ্যোদরী।
পঞ্চমুণ্ডি- অপঘাতে মৃত চন্ডালের মাথা, সাপের মাথা, নেউলের মাথা, শেয়ালের মাথা, হনুমানের মাথা।
পঞ্চ ম’কার- মদ্য, মাংস, মৎস্য, মুদ্রা ও মৈথুন।
পঞ্চাঙ্গ- দিনের পাঁচটি বৈশিষ্ট্য- তিথি, নক্ষত্র, যোগ, করণ ও বার।
পঞ্চ পার্বণ- অষ্টমী, চতুর্দশী, অমাবস্যা, পূর্ণিমা ও সংক্রান্তি।
পঞ্চ পিতা- জন্মদাতা, ভয়ত্রাতা, শ্বশুর, দীক্ষাদাতা অন্নদাতা।
পঞ্চ কাশী- কাশী, গুপ্তকাশী, উত্তরকাশী, দক্ষিণকাশী, শিবকাশী।
পঞ্চ কেদার- কেদারনাথ, মদমহেশ্বর, তুঙ্গনাথ, রুদ্রনাথ, কল্পেশ্বর।
পঞ্চ জীব- স্থূলজীব, তটস্থজীব, বদ্ধজীব, মুক্তজীব, সূক্ষ্মজীব।
পঞ্চনাথ- উত্তরের বদ্রীনাথ, দক্ষিণের রঙ্গনাথ, পশ্চিমের দ্বারকানাথ, পুরীর জগন্নাথ।
পঞ্চ সরোবর- বিন্দু সরোবর (সিদ্ধপুর), নারায়ণ সরোবর (কচ্ছ), পম্পা সরোবর (মহীশূর), পুস্কর সরোবর (রাজস্থান), মানস সরোবর (তিব্বত)।
পঞ্চ পল্লব-
বৈদিক পূজা- আম, পাকুড়, বট, অশ্বত্থ, যজ্ঞ ডুমুর।
তান্ত্রিক পূজা- আম, কাঁঠাল, বট, বকুল, অশ্বত্থ।
পঞ্চ বাণ/পঞ্চ শর-
অশোক, শ্বেত পদ্ম, নীল পদ্ম, মল্লিকা, আম্র মঞ্জরী।
অশোক, পদ্ম, আম্র, নব মল্লিকা, রক্তোৎপল।
সম্মোহন, উন্মাদন, শোষণ, তাপন, স্তম্ভন।
পঞ্চ নদ/পঞ্চ অপ-
শতদ্রু, বিপাশা, বিতস্তা, ইরাবতী, চন্দ্রভাগা।
শতলেজ, বিয়াস, ঝিলম, রাভী, চেনাব।

(চলবে…)

<<পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব নয় ।। পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব এগারো>>

………………….
কৃতজ্ঞতা স্বীকার-
পুরোহিত দর্পন।
উইকিপিডিয়া।
বাংলাপিডিয়া।
শশাঙ্ক শেখর পিস ফাউন্ডেশন।
পঞ্চভূত – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।
বাতাসের শেষ কোথায় : ইমরুল ইউসুফ।
ন্যায় পরিচয় -মহামহোপাধ্যায় ফনিভূষণ তর্কবাগীশ।
পঞ্চভূত স্থলম ও পঞ্চভূত লিঙ্গম- দেবাদিদেব শিবঠাকুরের খোঁজে: আশিস কুমার চট্টোপাধ্যায়ের।

…………………………..
আরো পড়ুন-
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব এক
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব দুই
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব তিন
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব চার
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব পাঁচ
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব ছয়
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব সাত
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব আট
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব নয়
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব দশ
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব এগারো
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব বারো
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব তেরো
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব চোদ্দ
পঞ্চভূতের পঞ্চতত্ত্ব : পর্ব পনের

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!