ভবঘুরে কথা

রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

সখী উপায় বল না পিরিতি

সখী উপায় বল না পিরিতি বাড়াইয়া এবে ঘটিল যন্ত্রণা। সাধে সাধে পিরিত করি এখন তারে পাই না লোকের নিন্দন তীর বরিষন সহ্য করা যায় না। পাড়ার লোকে কয় অসতী কুল ছাড়া মুই ললনা কুঞ্জবনে ঘুরিয়া ফিরি তারত দেখা পাই না। ভাবিয়া রাধারমণ বলে ঠেকিলাম পিরিতের কলে উল্টা কলে ধরছে টানি ছাড়ার দিশা পাই না।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

মনিয়ার পাখী রে

মন-চোরা মনিয়ার পাখী রে, পাখী কে নিল ধরিয়া। এগো, কুখনে হেরিয়া আইলাম জলের ঘাটে গিয়া গো।। আর আগে যদি জানতাম পাখি রে, পাখি যাইবায় রে ছাড়িয়া। এগো, মাথার কেশ দু ফাঁক করি’ রাখিতাম বান্ধিয়া গো। আর ভাইবে রাধারমণ বলে, শুনোরে কালিয়া : এগো জয়মণি কয়– ছাফ কাপড়ে ছাড়ছ দাগ লাগাইয়া।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

বলে না ছিলাম গো পিয়ারি

বলে না ছিলাম গো পিয়ারি অ তুই পিরিত করিছ না পিরিতি বিষম জ্বালা প্ৰাণে তো বাঁচবি না।। বনে থাকে ধেনু রাখে শ্যামকালিয়া সোনা অবলা রমণীর মরম রাখালে জানে না।। কতই না বুঝাইয়াছিলাম শুনেও শুনলে না। নয়নের জল হইল সম্বল সার হৈল ভাবনা।। রাধারমণ বলে প্ৰেম করিলে পাইতে হয় লাঞ্ছনা তাই ভাবিয়া প্ৰেম না করিয়া আছে […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

বন্ধে পিরিত করি

বন্ধে পিরিত করি আইল না প্ৰাণ বন্ধুরে চউখে দেখলাম না।। আর দুধের মাঝে সর-লনী। মাথার বিযে মাইলাম। আমি পাড়ার লোকে বিশ্বাস কইল না।। বন্ধে ঔষধি লইয়া আইল না ব’ দাদা, বন্ধে ঔষধ লইয়া আইল না। আগে যে বাড়াইয়া প্ৰেম শেষে দেয় জালা।। আর ভাইবে রাধারমণ বলে পিরিত করি যে জন মারে দুধের মাঝে ছাই মিশাইছে।।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

পিরিতে আরিলাম মান কুল-গো

পিরিতে আরিলাম মান কুল-গো সই এখন আমি আর যাব কই? সাধ করে কলঙ্কের ডালি হস্তে তুলি মাথে লই চুনী খাইয়ে মুখ জ্বালিয়ে মাইলাম ভেবেছিলাম খাসা দই। জগতে কলঙ্কী বলুক তাতে মুই লজ্জিত নই নিন্দার বোঝা মাথে লইয়া যদি বন্ধের দাসী হই। যার লাগি উদাসী হইলাম। সে বা কোথা আমি কই জগতে কলঙ্ক রইলো দুক্ষ আমি […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

পাইলাম না সই প্ৰাণবন্ধু

পাইলাম না সই প্ৰাণবন্ধু রে রজনী হইল ভোর– স্বপনে দেখিলাম কাছে জাগিয়া দেখি দূর।। কঠিন অবলার বন্ধু কঠিন তার হিয়া– কুলটা বানাইলো মোরে তার প্ৰেমে মজাইয়া– মা ছাড়লাম বাপ ছাড়লাম ছাড়লাম। সুয়ামী — ঘরের বাহির করি ফেলি গেলে কই যাই আমি। প্ৰেমানলে অঙ্গ জ্বলে ভিতরে জ্বলে হিয়া এমন বান্ধব নাই আনিল দেয় নিবাইয়া। চউখ হইলো […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

খাইয়া গরল বিষ ত্যেজিমু

খাইয়া গরল বিষ ত্যেজিমু পরান রে বন্ধু কইলে অপমান খাইয়া গরল বিষ ত্যেজিমু পরান।। যারজির মতে বন্ধু থাকে এক এক মান ঘরের বাইর করি তুই কইলে অপমান। পরান আকুলি সুরে বাঁশিয়ে দিলে সান সেই সুরে কর্ণে প্ৰবেশি আকুল কইলো প্ৰাণ। পরান আকুল করতে ছাড়িয়া শুনো মান রাধারমণ কুল ছাড়িয়া হইলো অপমান।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

কালার সঙ্গে প্ৰেম করিয়ে

কালার সঙ্গে প্ৰেম করিয়ে গো লাঞ্ছনা তোমার। এগো কেন গলে দিয়াছিলে প্ৰেম ফুলহার পুরুষেরি এমন ধারা আগে প্ৰেম বাড়াআিড় গো তারা হয়ে গেলে মতলব সারা একলা সে হয়। পার।। ঢুলু ঢুলু দুইটি আঁখি তারা পাতা ভার রাধারমণ বলে শীঘ্ৰ করি প্রাণ রাখা রাধার।।

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

ও বন্ধু কঠিন হৃদয়

ও বন্ধু কঠিন-হৃদয় কালিয়া, প্ৰেম কইলাম তার মাম না জানিয়া। এগো, এখন বন্ধে প্ৰাণে মাইল– বিশখা প্ৰেম শিখাইয়া।। আর আগে যদি জানতাম গো এমন– ও সই, পিরিতে মন দিতাম না কখন। এগো, এখন বন্ধে ছাড়িয়া গেল– কিনা দোষ জানিয়া।। আর নতুন প্ৰেমে, নতুন প্ৰেমে নতুন গো কালা– ও সেই নতুন প্ৰেমে দিল গো জ্বালা। ও […]

বিস্তারিত পড়ুন
রাধারমণ দত্ত রাধারমণ :: আক্ষেপানুরাগ পদ

এগো সই প্ৰাণ কান্দে

এগো সই প্ৰাণ কান্দে যার লাগিয়া অকুলে ভাসাইলা মোরে কি দোষ জানিয়া। আমার মন্দিরে ডাকিগো বন্ধুরে মারি গো ঝুরিয়া দুঃখিনীরে থুইয়া যাইবে কার হাতে সঁপিয়া আগে যদি জানতাম বন্ধু রে যাইবায় রে ছাড়িয়া তেনি করিতাম পিরিতরে বিনা দড়াইয়া।। ভেবে রাধারমণ বলে গো মনেতে ভাবিয়া পরা কি আপন হয় পিরিতের লাগিয়া।।

বিস্তারিত পড়ুন
error: Content is protected !!