ভবঘুরেকথা

হারাবি অমূল্য ধন

বে-হুঁশিয়ারী হ’য়ো না রে মন,
বে-হুঁশিয়ারী হ’লে পরে
হারাবি অমূল্য ধন।।

কত মহাজনের ভারা
বে-হুঁশারে যায় রে মারা,
অগ্নির মুখে রেখে পারা
করতে হয় ধন-উপার্জন।।

অগ্নির মুখে পারা ছুটে,
যায় না যেন চ’টে-ফেটে,
হ’তে হবে মাথার মুটে,
সাধু-গুরুর এই করণ।।

রমণীর মন হরণ ক’রে-
থাকতে হয় জীযন্তে ম’রে,
অনুরাগের দীপক ধ’রে
রূপে দিয়ে দু’নয়ন।।

মুখ থাকিতে বাধ্য বন্ধ,
নয়ন থাকতে হ’তে হয় অন্ধ,
যেখানে যাই কাম-সম্বন্ধ,
শুধুই কেবল প্রেম-রতন।।

লোভেতে পানা-পুকুরে
ডুব দিলি রে ঠিক দুপুরে,
পোদো ম’ল সদ্য জ্বরে
আশী-চৌরাশী ক’রে ভ্রমণ।।

……………………
অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের ‘বাংলার বাউল ও বাউল গান’ গ্রন্থ থেকে এই পদটি সংগৃহিত। ১৩৬৪ বঙ্গাব্দে প্রথম প্রকাশিত এই গ্রন্থের বানান অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। লেখকের এই অস্বাধারণ সংগ্রহের জন্য তার প্রতি ভবঘুরেকথা.কম-এর অশেষ কৃতজ্ঞতা।

এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- বর্ধমান জেলার বেতালবন গ্রামের বাউল সমাবেশ হইতে বিশেষভাবে সংগৃহিত-

…………………….
আপনার গুরুবাড়ির সাধুসঙ্গ, আখড়া, আশ্রম, দরবার শরীফ, অসাম্প্রদায়িক ওরশের তথ্য প্রদান করে এই দিনপঞ্জিকে আরো সমৃদ্ধ করুন-
voboghurekotha@gmail.com

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- voboghurekotha@gmail.com
……………………………….

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!