ভবঘুরেকথা

সচৈতন্য থাকে না ঘরে

সচৈতন্য থাকে না ঘরে,
ভ্রমে ঘুম ধরে।
আমার মা ঘুমালেন মূলাধারে,
আমারে কোলে ক’রে।।

সচৈতন্য রূপ হন যিনি,
আঁধারে চৈতন্য-রূপিণী,
অচৈতন্যেতে এই জগৎ সৃজন হয় জানি;
যদি অচেতন সবাই হ’ল,
তবে চেতন করায় কে কারে।।

যদি অচেতনে হয় এই দেহ সৃজন,
কিসে হবে সংশোধন,
চারি বেদ, চৌদ্দ শাস্ত্র,
নব্য ব্যাকরণ।
শব্দ-সন্ধি প’ড়ে সন্ধি পাওনি,
বন্দী হবে ফন্দির ফেরে।।

ক্ষ্যাপা গৌরচাঁদ কয়,-
বোবায় গান করছে,
কালা বসে তাই শুনছে,
পঙ্গু উঠে নৃত্য করছে,
ঠুঁটোয় বাজাচ্ছে,
কাণায় ব’সে রঙ্গ দেখছে,
হায় কি মজা এ সংসারে।।

……………………
অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের ‘বাংলার বাউল ও বাউল গান’ গ্রন্থ থেকে এই পদটি সংগৃহিত। ১৩৬৪ বঙ্গাব্দে প্রথম প্রকাশিত এই গ্রন্থের বানান অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। লেখকের এই অস্বাধারণ সংগ্রহের জন্য তার প্রতি ভবঘুরেকথা.কম-এর অশেষ কৃতজ্ঞতা।

এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- বর্ধমান জেলার বেতালবন গ্রামের বাউল সমাবেশ হইতে বিশেষভাবে সংগৃহিত-

…………………….
আপনার গুরুবাড়ির সাধুসঙ্গ, আখড়া, আশ্রম, দরবার শরীফ, অসাম্প্রদায়িক ওরশের তথ্য প্রদান করে এই দিনপঞ্জিকে আরো সমৃদ্ধ করুন-
voboghurekotha@gmail.com

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- voboghurekotha@gmail.com
……………………………….

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!