ভবঘুরেকথা

ফণিশিরে মণি আছে

ফণিশিরে মণি আছে;
মণি পেয়েছে কয়জন।
মণি-আশে ফণী পুষে,
ফণীর বিষে যায় জীবন।।

ফণী দেখিতে সরল,
পরশে শীতল,
কুটিলমতি, খল জাতি সে
উগারে গরল।
ফণীর শ্বাসে আসে সর্বনাশ,
বল-বুদ্ধি করে হরণ।।

মণি কেমনেতে পাই,
আমার নিগম জানা নাই,
বে-হুঁশিয়ারে অন্ধকারে
সাপ ধরিতে যাই।
নিগম না জানিয়ে
প্রবেশিয়ে
যেমন অভিমন্যুর হয় পতন।।

যাদের ব্যবসা সাপ-ধরা,
মণি চায় নাকো তারা,
তাদের ধর্ম নিত্যকর্ম-
সাপের গাড় খোঁড়া।
তাই বে-হুঁশারে যাচ্ছে মারা
ক’রে আত্মসমর্পণ।।

মণি কেমনেতে পাই,
কেবল গুরুজীর কৃপায়,
যত্নে মণি দিবেন আনি’
ব্রজ-নায়িকায়।
প্রাপ্তি সারে নবম দশায়,
দশম দশায় সম্পূরণ।।

কহেন গোঁসাই হরিচাঁদ,
মণি স্বশরীরে বাঁধ,
ক্ষ্যাপা নিত্য রে তুই হরি ব’লে
নিত্য নিত্য কাঁদ;
মণিমুক্তার অভাব কি রে
আছে মুক্তালতার বন।।

……………………
অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের ‘বাংলার বাউল ও বাউল গান’ গ্রন্থ থেকে এই পদটি সংগৃহিত। ১৩৬৪ বঙ্গাব্দে প্রথম প্রকাশিত এই গ্রন্থের বানান অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। লেখকের এই অস্বাধারণ সংগ্রহের জন্য তার প্রতি ভবঘুরেকথা.কম-এর অশেষ কৃতজ্ঞতা।

এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- এই পদটি সংগ্রহ সম্পর্কে অধ্যাপক উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য মহাশয় লিখেছেন- বর্ধমান জেলার বেতালবন গ্রামের বাউল সমাবেশ হইতে বিশেষভাবে সংগৃহিত-

…………………….
আপনার গুরুবাড়ির সাধুসঙ্গ, আখড়া, আশ্রম, দরবার শরীফ, অসাম্প্রদায়িক ওরশের তথ্য প্রদান করে এই দিনপঞ্জিকে আরো সমৃদ্ধ করুন-
voboghurekotha@gmail.com

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- voboghurekotha@gmail.com
……………………………….

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!