শ্রীশ্রীমা সারদার ১০৮ নাম

শ্রীশ্রীমা সারদার ১০৮ নাম

শ্রীশ্রীমা সারদার ১০৮ নাম-

১. মহালক্ষী।
২. ঠাকুরমণি।
৩. ক্ষেমঙ্করী।
৪. সারদামণি।
৫. জগদ্ধাত্রী।
৬. জ্ঞানদায়িনী।
৭. সরস্বতী।
৮. শক্তি।
৯. ভবতারিণী।
১০. কালী।
১১. বিন্দুবাসিনী।
১২. ষোড়শী।
১৩. আনন্দময়ী।
১৪. কপালমোচনী।
১৫. সত্যিকারের মা।
১৬. জগৎ জননী।
১৭. সতী।
১৮. সীতা।
১৯. ভগবতী।
২০. জানকী মাঈ।
২১. মায়া।
২২. মৃত্যুঞ্জয়ী।
২৩. সতেরও মা, অসতেরও মা।
২৪. অনন্তভূজা।
২৫. ষষ্ঠী।
২৬. শীতলা।
২৭. দেবী।
২৮. বারুণী।
২৯. সঙ্ঘ জননী।
৩০. অন্তর্যামী।
৩১. জ্যান্ত দুর্গা।
৩২. জগদম্বা।
৩৩. মা-ঠাউন।
৩৪. অভয়া।
৩৫. বরদা।
৩৬. পরমা প্রকৃতি।
৩৭. পবিত্রতা স্বরূপিনী।
৩৮. রামকৃষ্ণগতপ্রাণা।
৩৯. ভক্তিবিজ্ঞানদাত্রী।
৪০. যোগীন্দ্রপূজ্যা।
৪১. যুগধর্মপাত্রী।
৪২. প্রণতার্তিহন্ত্রী।
৪৩. দয়া।
৪৪. আদ্যাশক্তি।
৪৫. সঙ্ঘের হাইকোর্ট।
৪৬. কুন্ডলিনী শক্তি।
৪৭. অন্নপূর্ণা।
৪৮. দশমহাবিদ্যা।
৪৯. ভুবনেশ্বরী।
৫০. তারা।
৫১. নিত্যাসিদ্ধা।
৫২. পরশপাথর।
৫৩. রাজরাজেশ্বরী।
৫৪. বিশ্বেশ্বরী।
৫৫. রাধা।
৫৬. যশোধরা।
৫৭. বিষ্ণুপ্রিয়া।
৫৮. ব্রহ্মময়ী।
৫৯. রঙ্গময়ী।
৬০. চিন্তা স্বরূপিনী।
৬১. পর্বতবাসিনী।
৬২. বিপদনাশিনী।
৬৩. ক্ষমারূপা তপস্বিনী।
৬৪. মহামায়ী।
৬৫. কৃপাময়ী।
৬৬. মুক্তকেশী।
৬৭. ইচ্ছাময়ী।
৬৮. চতুর্ভুজা।
৬৯. কমলা।
৭০. কৈলাসেশ্বরী।
৭১. গোপাল।
৭২. ধ্রুব মন্দির।
৭৩. মহত্তমা নারী।
৭৪. আশ্রয়।
৭৫. বিশ্বাস দর্পণ।
৭৬. মেরী মা।
৭৭. অধ্যাত্ম জননী।
৭৮. ম্যাডোনা।
৭৯. মুক্তিদাত্রী।
৮০. প্রাণদাত্রী।
৮১. বগলে।
৮২. করুণাময়ী।
৮৩. চণ্ডী।
৮৪. পতিত পাবনী।
৮৫. নিত্যশুদ্ধা।
৮৬. অদোষদর্শিনী।
৮৭. মুক্তহস্তা।
৮৮. জগদ গুরু।
৮৯. মূর্তিমতী সরলতা।
৯০. শরণাগত-বৎসলা।
৯১. যোগেশ্বরী।
৯২. যুগেশ্বরী।
৯৩. যজ্ঞেশ্বরী।
৯৪. পরিবার-মধ্যমণি।
৯৫. আল্লার দূত।
৯৬. পীর।
৯৭. আটপৌরে ঈশ্বরী।
৯৮. অসামান্যা।
৯৯. অপরূপা।
১০০. রামকৃষ্ণ-রূপ।
১০১. সর্বভূতে মাতৃরূপা।
১০২. বুদ্ধি।
১০৩. শান্তি।
১০৪. লজ্জা।
১০৫. তুষ্টি।
১০৬. কান্তি।
১০৭. শ্রদ্ধা।
১০৮. জন্মজন্মান্তরের মা।

একদিন রামচন্দ্র দেখেন সপন, অপরূপা বালিকার গৃহে আগমন। কোমল বাহুতে গলা জড়াইয়া ধরে, ভাবিলেন ‘লক্ষ্মী’ (১) বুঝি আসিছেন ঘরে। শুভ দিন কন্যা এক জন্মিল তাঁহার, ‘ঠাকুরমণি’ (২) নাম দিল কোষ্ঠীর বিচার। ‘ক্ষেমঙ্করী’ (৩) নামে ডাকে কন্যার জননী, আদরে ডাকেন মাসী ‘সারদামণি’ (৪)। ধ্যানরতা সারদার সুকোমল মুখে, ভাসে জগদ্ধাত্রী (৫) রূপ রাম ঘোষাল- চোখে। ‘জ্ঞানদায়িনী’ (৬) ও যে সারদা- ‘সরস্বতী’ (৭), কহেন শ্রীরামকৃষ্ণ ‘ও আমার শক্তি’ (৮)। ‘ভবতারিণী’র রূপে (৯) দেখিবারে পাই, ‘আনন্দময়ী’ (১০) রূপ দেখি যা সদাই। অধ্যাত্ম জগতে এক অপূর্ব ঘটন, রামকৃষ্ণ পূজিলেন সারদার চরণ।

সাধনার লব্ধ ফল সমর্পিয়া সবই, পূজিতা ‘ষোড়শী’ (১১) রূপে দেবী মানবী। ধন্য হ’ল বসবাসে ক্ষুদ্র নহবৎ, ‘বিন্দুবাসিনী’ (১২)- রূপ দেখিল জগৎ। ‘কালী’ (১৩) রূপে দেখা দিলে ডাকাত বাবায়, ধন্য তেলোভেলো মাঠ মায়ের লীলায়। কালীরূপ স্বীকারিলে হয়ে জিজ্ঞাসিত, পথ চলে শিবরাম অতি হৃষ্টচিত।

শিবরাম কহে ‘খুড়ী কপালমোচনী’ (১৪), ‘সত্যিকারের মা’ (১৫) তিনি ‘জগৎ জননী’ (১৬)। রামকৃষ্ণ ভগবান শ্রীমা ‘ভগবতী’ (১৭), শিবানন্দ কহিলেন তিনি যে মা ‘সতী’ (১৮)। ‘সীতা’ (১৯) তিনি রামকৃষ্ণ স্বামীজীর জ্ঞানে, গোলাপ মা স্বীকারোক্তি শুনিলেন কানে।

বিষ্ণুপুরে কুলি কহে তু ‘জানকী মাঈ’ (২০) দীক্ষালাভে ধন্য সে যে কৃপার শেষ নাই। স্বগতোক্তি করিলেন আমিই যে ‘মায়া’ (২১), জীবদুঃখ ঘুচাইতে ধরেছেন কায়া। ‘অনন্তভুজা’ (২২) মায়ের কর্ম সারা বেলা, ‘মৃত্যুঞ্জয়ী’ (২৩), না জানে সুরবালা।

‘সৎ – অসৎের মা’ (২৪) আমি ‘ষষ্ঠী’ (২৫) ‘শীতলা’ (২৬), মহা ‘দেবী’ (২৭) নরদেহে করিছেন লীলা। ভক্ত ছেলেদের ক’ন আমি তো ‘বারুনী’ (২৮), সন্তানের হৃদি মাঝে ‘অন্তর্যামীনি’ (২৯)।

স্বামীজী কহেন তাঁরে ‘সঙ্ঘজননী’ (৩০), ‘জ্যান্তদুর্গা’ (৩১) পূজা মঠে করিলেন তিনি। ‘জগদম্বা’(৩২) রূপে দেখেন রাজা মহারাজ, ‘মা ঠাউন’ (৩৩) কহিতেন লাটু মহারাজ। ‘অভয়া; (৩৪) ‘বরদা’ (৩৫) মাতা ‘পরমাপ্রকৃতি’ (৩৬), ‘পবিত্রতা স্বরূপিণী’ (৩৭) মূর্তিমতী সতী।

‘রামকৃষ্ণগতপ্রাণা’ (৩৮) ‘ভক্তিবিজ্ঞানদা ত্রী’ (৩৯), ‘যোগীন্দ্রপূজ্যা’ (৪০ ) তুমি ‘যুগধর্মপাত্রী’ (৪১)। ‘প্রণতার্তিহন্ত্রী’ (৪২) তুমি তুমিই মা ‘দয়া’ (৪৩), স্তব রচি অভেদানন্দ মাগে পদছায়া। ‘আদ্যাশক্তি’ (৪৪) রূপে মাকে পূজে যোগানন্দ, ‘সঙ্ঘের হাইকোর্ট’ (৪৫) মা কহে শিবানন্দ।

‘কুণ্ডলিনী শক্তি’ (৪৬) রূপা মা যে ‘নিত্যাসিদ্ধা’ (৪৭), ‘তারা’ (৪৮), ‘ভুবনেশ্বরী’ (৪৯) ‘দশমহাবিদ্যা’ (৫০)। স্বামী প্রেমানন্দ ক’ন মা তো ‘অন্নপূর্ণা’ (৫১), ‘পরশ পাথর’ (৫২) তিনি স্পর্শে হই সোনা। কাঙালিনী ছদ্দবেশে ‘রাজরাজ্যেশ্বরী ’ (৫৩), অখন্ডানন্দজী ক’ন মা তো ‘বিশ্বেশ্বরী’ (৫৪)।

সীতা, ‘রাধা’ (৫৫), ‘যশোধরা’ (৫৬) আর ‘বিষ্ণুপ্রিয়া’ (৫৭), যুগে যুগে কত রূপে ধরেছেন কায়া। ত্রিগুনাতীত সম্ভাষণে মা ‘ব্রহ্মময়ী’ (৫৮), লীলা হেরি সারদানন্দ গাহেন ‘রঙ্গময়ী’ (৫৯)। ভাষেণ বিজ্ঞানানন্দ ‘চিন্তা স্বরূপিনী’ (৬০), শশী মহারাজ ক’ন ‘পর্বত বাসিনী’ (৬১)।

শ্রীম’য়ের ভাবেতে মা ‘বিপদ নাশিনী’ (৬২), ‘কথামৃত’ প্রকাশের প্রেরণা দায়িনী। ‘ক্ষমারূপা তপস্বিনী’ (৬৩) কহে বলরাম, পররজে গৃহ তাঁর হ’ল পুণ্যধাম। ভক্ত নাগমহাশয় ডাকে ‘মহামায়ী’ (৬৪), ভাবাবেগে স্বর কাঁপে মা গো ‘কৃপাময়ী’ (৬৫)। ‘ইচ্ছাময়ী’ রূপে (৬৬) দেখে অক্ষয় কুমার, যাঁহার ইচ্ছায় চলে জগত সংসার।

গোলাপ মা কহিলেন তুমি ‘মুক্তকেশী’ (৬৭), ‘চতুর্ভুজা’ (৬৮) রূপে দেখে সখী ভানু পিসী। ‘কমলা’ (৬৯), ‘কৈলাসেশ্বরী’ (৭০) কহেন গৌরী মা, মা- ঠাকুরে ইষ্ট ‘গোপাল’ (৭১) দেখে গোপাল মা। নিবেদিতার ‘ধ্রুব মন্দির’ (৭২) ‘নারী মহত্তমা’ (৭৩), ধরায় যাঁহার কোন না মেলে উপমা।

‘আশ্রয়’ (৭৪) মা সবাকার ‘বিশ্বাসদর্পণ’ (৭৫), ‘মেরী মা’ (৭৬) কে জোসেফিনের শ্রদ্ধা অর্পণ। সারা ওলি বুল কহে ‘অধ্যাত্ম জননী’ (৭৭), ‘ম্যাডোনা’(৭৮) কহে লেগেট মাতৃরূপে চিনি। রাধুর বিশ্বাস দৃঢ় মোর ‘মুক্তিদাত্রী’ (৭৯), গিরিশ, গোকুল ভাবে মোর ‘প্রানদাত্রী’ (৮০)। ওঠো গো ‘করুণাময়ী; পদ্মবিনোদ ডাকে, (৮১), মত্ত হরিশ শান্ত হয় ‘বগলা’ রূপ দেখে (৮২)।

‘চণ্ডী’ (৮৩) রূপে পূজিলেন স্বপনে সুমতি, ‘পতিতপাবনী’ (৮৪) তরায় নাই যার গতি। ‘অদোষদর্শিনী’ (৮৫) তিনি ‘নিত্যশুদ্ধা’ (৮৬) পরা, ‘মুক্তহস্তা’ (৮৭), ‘জগদগুরু’ (৮৮) নাহি যায় ধরা। ‘মূর্তিমতি সরলতা’ (৮৯) নির্ঝরিনী কয়, ‘শরণাগত বৎসলা’ (৯০) দীনের আশ্রয়। লাবণ্য কুমার কহে মা যে ‘যুগেশ্বরী’ (৯১), মা মোদের ‘যোগেশ্বরী’ (৯২) এবং ‘যজ্ঞেশ্বরী’ (৯৩)।

‘পরিবারের মধ্যমণি’ (৯৪) কহে মঞ্জুলালী, ‘আল্লার দূত’ (৯৫), ‘পীর’ (৯৬) রূপে স্মরেণ রসন আলি। ‘আটপৌরে ঈশ্বরী’ (৯৭) মা আশাপূর্ণার ভাব, ‘অসামান্যা’ (৯৮), ‘অপরূপা’ (৯৯) কহিল সোরাব। ‘রামকৃষ্ণ’ (১০০) রূপা তুমি ভক্ত- বন্দিতা, ‘সর্বভূতে মাতৃরূপে’ (১০১) সদা বিরাজিতা।

‘বুদ্ধি’ (১০২) তুমি, ‘শ্রদ্ধা’ (১০৩) তুমি তুমি মা ‘শান্তি’ (১০৪), ‘লজ্জা’ (১০৫) তুমি ‘তুষ্টি’ (১০৬) তুমি তুমি মা ‘কান্তি’ (১০৭)। অনন্ত ব্রহ্মাণ্ডে তব্ব অনন্ত রূপ রাজে, ধারণা করিতে নারি ক্ষুদ্র সাধ্য মাঝে। বিশ্ব চরাচর মাগো তোমার প্রকাশ, মাতৃরূপে জীবে দাও পরম আশ্বাস। ‘আর কেহ নাহি থাক’ জানি যে নিশ্চয়, একজন ‘মা’ আছেন মোদের আশ্রয়। চিরশিশু তব, জানি শুধু মাতৃনাম, ‘জন্ম জন্মান্তরের মা’ (১০৮) লহ গো প্রণাম।

……………….
আরো পড়ুন:
আল্লাহর ৯৯ নাম
বুদ্ধের ২৮ নাম
মহাদেবের ১০৮ নাম
শ্রীকৃষ্ণের ১০৮ নাম
মা দুর্গার ১০৮ নাম
মা কালীর ১০৮ নাম
মা লক্ষ্মীর ১০৮ নাম
মা সরস্বতীর ১০৮ নাম
শ্রীশ্রী নৃসিংহদেবের ১০৮ নাম
শ্রীশ্রী গণেশের ১০৮ নাম
শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর ১০৮ নাম
প্রভু জগদ্বন্ধু সুন্দরের ১০৮ নাম
লোকনাথ বাবার ১০৮ নাম

শ্রী রামকৃষ্ণ ১০৮ নাম
শ্রীশ্রীমা সারদার ১০৮ নাম
শ্রীশ্রী বামাক্ষ্যাপার ১০৮ নাম

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!