শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী

লোকনাথ ব্রহ্মচারীর বাণী: দুই

৩১.
যারা ঠিকভাবে শ্রদ্ধাপূর্ণ চিত্তে আমার স্মরণ নেবে, তারাই আমার কৃপা উপলব্ধি করবে।

৩২.
বাবা মঙ্গলময়, সুতরাং যেখানে তার মূর্তি বিরাজমান, সেখানে অমঙ্গল ঘটতে পারে না।

৩৩.
দীন দারিদ্র্য অসহায় মানুষের হাতে যখন যা দিবি তা আমিই পাব, আমিই গ্রহণ করবো।

৩৪.
তোদের ডাকে আমার অন্তর বিগলিত হয়, তাই তো তোদের কাছে ধরা না দিয়ে পারি না।

৩৫.
আমি যা ইচ্ছা তাই করতে পারি, তোদের বিশ্বাস নেই, কাজেই তোদের কানে ফল হয় না।

৩৬.
তোদের ছেড়ে আমি যাবই বা কোথায়? সমস্ত অস্তিত্বের মধ্যে আমি পূর্ণ হয়ে বিরাজ করছি।

৩৭.
জানি এতে তোদের প্রশ্রয় দেয়া হয়। কিন্তু সব বুঝেও কিছু না করেই বা থাকতে পারি কই?

৩৮.
সৎকর্ম, সদুপদেশ গ্রহণ, লোক সমাজে গুরুর সম্মানার্থে গুরুর প্রিয় কাজ করাই গুরু সেবা।

৩৯.
যারা ঠিকভাবে শ্রাদ্ধপূর্ণ চিত্তে আমার স্মরণ করবে তারাই আমার কৃপা উপলদ্ধি করতে পারবে।

৪০.
ইচ্ছায় হোক, অনিচ্ছায় হোক, যে সন্তান মায়ের আদেশ পালন করে, ভগবান তার মঙ্গল করেন।

৪১.
আমার সন্তানদের উপর কারুর শাসন চলবে না। কোনোদিন উপদেশ দেইনি; এ আদেশের স্থল।

৪২.
আমি ধরা দিই বলেই তো আমাকে ধরতে পারিস, না হলে কার বাপের সাধ্য আমার কাছে ঘেঁষে?

৪৩.
তোরা সত্যকে ধরে থাকবি নিষ্ঠা সহকারে ভগবানের শরণাগতি নিয়ে গুরু প্রদর্শিত পথে এগিয়ে চল।

৪৪.
জন্ম জন্ম ধরে কত পাপই সঞ্চয় করেছিস। এই শারীরিক মানসিক ভোগ ছাড়া যে বেহায়ের পথও নেই।

৪৫.
সঙ্গ হতে কাম, পুন: দুষ্প্রবৃত্তি হতে বুদ্ধিনাশ এবং বুদ্ধিনাশ হলেই জীব অধ:পতনের চরম সীমায় উপনীত হয়।

৪৬.
যাতে তাপ লাগে, তাই পাপ। যে কাজ করেই তুই তাপগ্রন্ত হস্ বা সমাজকে তাপগ্রস্ত করিস্, তা-ই পাপ কাজ।

৪৭.
গুরু প্রদত্ত মন্ত্রের শুদ্ধাশুদ্ধ বিচার করা শিষ্যের কর্ম নয়। গুরু যা দিয়েছেন শিষ্য নির্বিচারে তাই জপ করে যাবে।

৪৮.
আগে খণ্ডকে জানতে হবে, কারণ খণ্ডকে চাইতে না জানলে অখণ্ডের মহানন্দ চাওয়ার ভাবটি আসবে কোথা থেকে?

৪৯.
আমার যা খুশি আমি তাই করতে পারি। তোদের বিশ্বাস নেই তাই তোদের চাওয়াটাও ঠিক হয় না। পাওয়াটাও হয় না।

৫০.
এ দেহপতের সঙ্গে সঙ্গে সব শেষ হয়ে যাবে মনে করিস না। আমি যেমনটি ছিলাম, যেমন আছি, তেমনি চিরকাল থাকবো।

৫১.
নিজেকে বড় না করে তাকে বড় কর, নিজে কর্তা না সেজে তাকে কর্তা জ্ঞান করার চেষ্টা কর, তাহলেই ত্যাগ আসবে।

৫২.
মুসলমান কথা এসেছে ‘মুছল্লম ঈমান’ কথা থেকে; যার অর্থ ষোল আনা ঈমান যার মধ্যে প্রতিষ্ঠিত কেবল সেই মুসলমান।

৫৩.
তার ওপর নির্ভর করে সুখ-দু:খ বা লোকের গঞ্জনার দিকে লক্ষ্য না করে, কাকেও দু:খ না দিয়ে, আপনার কাজ করে যাও।

৫৪.
গীতা শুধুমাত্র একটা পাঠ্যপুস্তক নয়, যে তুই নিয়মিত পাঠ করবি, কষ্ট করবি সব সংস্কৃত শ্লোক, গীতা হবার সাধনা কর।

৫৫.
আমি নিত্য জাগ্রত। তোদের সুখে সুখি, তোদের দু:খে দু:খি। আমার বিনাশ নেই, আমি অবিনশ্বর, আমি আছি, আছি, আছি।

৫৬.
এতো পাহাড়-পর্বত পরিভ্রমণ করে দুজন ব্রাহ্মণ বৈ দেখিনি; একজন মক্কার আব্দুল গফুর; অপরজন কাশীর ত্রৈলাঙ্গস্বামী।

৫৭.
সত্য পালনই প্রকৃত ধর্ম। যারা সত্য রক্ষা করে না, তারা বিধর্মী -তারা অপরাধী। তাদের গতি নরকে, তারা শাস্তি পাবার যোগ্য।

৫৮.
দুই শত বছরের যোগীও যদি আমার কাছে আসে এবং সে যদি আমার স্বদেশী না হয়, তবে অবশ্য আমি তাকে ছেলে মানুষ বলব।

৫৯.
আমি কে জানার দরকার নেই। শুধু অন্তর দিয়ে প্রাণভরে আমার দয়া ভিক্ষা চাইবি। তাহলেই আমি তোদের সব কষ্ট হতে মুক্তি দেব।

৬০.
ওরে, সে জগতের কথা মুখে বলা যায় না, বলতে গেলে কম পরে যায়। বোবা যেমন মিষ্টির স্বাদ বলতে পারে না, সেই রকম আর কি।

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!