ভক্তের প্রকার ভক্তি ভক্ত

ভক্তের প্রকার: দ্বিতীয় কিস্তি

-মূর্শেদূল মেরাজ

সেই চরিত্রটা যদি ঐতিহাসিক হয় তাহলে তা কতটা বাস্তববাদী হবে সেটাই মূক্ষ্য। আবার চরিত্রটা যদি বিজ্ঞানের হয় তাহলে তাকে যুক্তির ছকে ফেলতেই হবে। অন্যদিকে চরিত্রটা যদি শিল্পে হয় তাহলে সেই চরিত্রটা শিল্পের খাতিরে কতটা উপস্থাপন হলো সেটাই মূক্ষ্য।

আবার সেই একই চরিত্র যদি ধর্মে হয়। তাহলে তার মধ্যে কখনো বিজ্ঞান, কখনো শিল্প, কখনো ইতিহাস, কখনো সংস্কৃতি ইত্যাদি ইত্যাদির উপস্থিতি থাকলেও সেখানে মূল ভিত্তি হলো ‘বিশ্বাস’। সেটাকে অন্যান্য টুলস দিয়ে পরিমাপ করতে গেলে সঠিক পথ পাওয়া দুষ্কর।

আবার আধ্যাত্মবাদ হলো সেই পথ যে পথে সাধককে নিজেকে নিজের প্রমাণ করতে করতে এগিয়ে যেতে হয়। তাই একে আধ্যাত্মবিজ্ঞানও বলা হয়। এতে সাধক বিজ্ঞানীর মতো বিশাল গবেষণাগার, প্রযুক্তির নানা যন্ত্রপাতি পায় না। এখানে সাধকের জন্য গবেষণাগারের একক হলো নিজের দেহ। যার পূর্ণাঙ্গতা হলো ব্রহ্মাণ্ড।

এখানেও তাকে সাধনা এগিয়ে নিতে নানা সূত্রকে প্রথমে মেনে নিয়ে। বিভিন্ন উপাদানের মান ‘এক্স-ওয়াই-জেড’ ধরে এগুতে হয়। যেমন বিজ্ঞান এগোয়। আর এগুতে এগুতে তাকে নিজেই এই মানগুলো নির্ণয় করে নিতে হয়। আর মান নির্ণিত হলেই তবে তা বিশ্বাস করে করে এগিয়ে যেতে হয়।

এর আগে বিশ্বাস করার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই আধ্যাত্মপথে। আধ্যাত্মবাদে নিজ গবেষণায় প্রাপ্ত সত্য সকলের কাছে প্রমাণের বাধ্যবাধকতাও থাকে না। কেবল আপন উপলব্ধিই এখানে মূক্ষ্য। বিজ্ঞানের একটা সুবিধা আছে। সেটা হলো একজন বিজ্ঞানী একটা বিষয় নিয়ে যতটা এগোয়।

পরবর্তী অন্য একজন বিজ্ঞানী চাইলে সেখানে থেকে আরো এগিয়ে নিতে পারে বিষয়টাকে। কিন্তু আধ্যাত্মবাদে সে পথ দুরূহ। কারণ এখানে প্রত্যেককে শুরু করতে হয়ে শুরু থেকে। তবে জন্ম-জন্মান্তরের একটা লীলা আছে। সেটা এই আলোচনার আর নাই বা আনলাম।

এক শ্রেণীর ভক্ত আছে যারা যথার্থ অর্থেই জ্ঞানী। যাদের মধ্যে কিঞ্চিৎ উপলব্ধিকৃত জ্ঞানের উপস্থিতি আছে। তাদের চেনার সহজ উপায় হলো। কথা বলার সময় তর্কে জয়ী হওয়ার প্রবণতা তাদের মধ্যে লক্ষ্য করা যায় না। তারা যখন কিছু বলে তখন তা ব্যক্তি লাভের চেয়ে সামষ্টিক চিন্তা থেকে বলে।

তবে আধ্যাত্মবাদকে বিজ্ঞানের সাথে মিলিয়ে তাকে জাতে উঠানোর জন্য এতো আলোচনা মোটেও নয়। দুটি ভিন্ন পথ। ভিন্ন পথ মেলানো যায় না। তারা রেললাইনের মতো। সমান্তরালে পাশাপাশি চলে। দূর থেকে দেখলে অনেক সময় মনে হয় মিশে গেছে। কিন্তু কাছে গেলে তার বিভ্রান্তি কাটতে থাকে।

বিজ্ঞান দিয়ে আধ্যাত্মবাদকে বোঝানোর কারণ হলো আমরা বেশিভাগ সময়ই বিজ্ঞান দিয়ে সকল কিছু বুঝতে চাই। তাই একে দিয়ে বোঝালে সহজ হবে তাই এই আলোচনা। অন্য কিছু নয়। অবশ্য এই কথাগুলো অন্য কিছু লেখাতেও উল্লেখ করেছি কিছু কিছু। প্রসঙ্গক্রমে এখানেও একটু আলোচনা করে নিতে হলো সে জন্য ক্ষমা প্রার্থী।

যাক। বলছিলাম জ্ঞানী ভক্তদের কথা। জ্ঞানী ভক্তদেরও আছে নানান শাখা-প্রশাখা। সে আলোচনায় গেলে মুশকিল। তারপরও অল্পকথায় কিছু বলবার চেষ্টা করা যাক।

এক শ্রেণীর ভক্ত আছে যারা যথার্থ অর্থেই জ্ঞানী। যাদের মধ্যে কিঞ্চিৎ উপলব্ধিকৃত জ্ঞানের উপস্থিতি আছে। তাদের চেনার সহজ উপায় হলো। কথা বলার সময় তর্কে জয়ী হওয়ার প্রবণতা তাদের মধ্যে লক্ষ্য করা যায় না। তারা যখন কিছু বলে তখন তা ব্যক্তি লাভের চেয়ে সামষ্টিক চিন্তা থেকে বলে।

আর যারা তথ্য সংগ্রহকারী জ্ঞানী ভক্ত। তারা সাধারণত জয়ী হওয়ার জন্য আলোচনায় অংশ নেয়। যাদের মধ্যে উপলব্ধিকৃত জ্ঞানের ধারা প্রবাহিত হয় নি। তাদের সাধারণ প্রবৃত্তি হলো জ্ঞান জাহির করা। এটি অবশ্য আমাদের সামাজিক অনুশীলন। তাই এদের চারপাশে সবচেয়ে বেশি মানুষজন জড়ো হয়।

যারা অনুসন্ধানী জ্ঞানী ভক্ত। অর্থাৎ যারা সাধনার জন্য জ্ঞান অনুসন্ধানের পথে পা বাড়ান। তারা সাধারণত জ্ঞান আলোচনার মাঝে গিয়ে হানা দেন। এদের মধ্যে মোটা দাগে তিন ভাগে বিভক্ত ভক্তদের দেখতে পাওয়া যায়। প্রথম শ্রেণী হলো তারা নিজেদের জ্ঞানকে যাচাই করার চেষ্টায় থাকেন।

আরেক জ্ঞানী ভক্ত শ্রেণী আছে যাদের বেকুব জ্ঞানী বলা যায়। তারা মূল বিষয়টা না বুঝলেও আলোচনা চালিয়ে যায়। তারা ধর্ম-দর্শন-বিজ্ঞান-ইতিহাস-ঐতিহ্য-শিল্প-সংস্কৃতি সব গুলিয়ে ফেলে। কোন প্রসঙ্গে কি বলতে হবে। বা কোথায় কি বলতে হবে তা তারা ঠিক ধরতে পারে না। কিন্তু আলোচনায় অংশ তাদের নিতেই হবে।

তারা যে কোনো আলোচনায় ঢুকে পরে যতটুকুই জানুক তা নিয়ে নিজের জানাকে জাহির করতে গিয়ে তর্ক জুড়ে দেয়। এরা একটু বিপদজনক। কারণ যে কোনো সময় তারা জয়ী হওয়ার জন্য মূল আলোচনার মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে।

দ্বিতীয় শ্রেণীর অনুসন্ধানী জ্ঞানী হলো তারা যারা মনোযোগ দিয়ে শোনেন। সামনে হয়তো কিছু বলেন না। কিন্তু আলোচনার আড়ালে সেই আলোচনার চৌদ্দগুষ্টি উদ্ধার করে বেড়ান।

তৃতীয় শ্রেণীর অনুসন্ধানী জ্ঞানী ভক্ত হলো তারা যারা কেবল শোনেই না, মননে নেয়ার চেষ্টাও করে। মনে মনে হিসেব কষে তার থেকে নিজের মতো করে কিছু শিখবার-বুঝবার চেষ্টা করে।

জ্ঞানী ভক্তদের আরেক বড় শ্রেণী হলো সবজান্তা জ্ঞানী। তারা সকল কিছুই জানেন। তাদের সকল কিছু মুখস্থ। কোন শাস্ত্রে, কোন প্যারায়, কোন লাইনে কি লেখা আছে সব তাদের জানা। তারা রেফারেন্স চাড়া কথা বলেন না। তাদের মধ্যে ভয়ঙ্করী সবজান্তা জ্ঞানী ভক্ত হলো তারা। যারা রেফারেন্স জানার গর্বে গর্বিত।

আরেক জ্ঞানী ভক্ত শ্রেণী আছে যাদের বেকুব জ্ঞানী বলা যায়। তারা মূল বিষয়টা না বুঝলেও আলোচনা চালিয়ে যায়। তারা ধর্ম-দর্শন-বিজ্ঞান-ইতিহাস-ঐতিহ্য-শিল্প-সংস্কৃতি সব গুলিয়ে ফেলে। কোন প্রসঙ্গে কি বলতে হবে। বা কোথায় কি বলতে হবে তা তারা ঠিক ধরতে পারে না। কিন্তু আলোচনায় অংশ তাদের নিতেই হবে।

আরেক জ্ঞানবাদী ভক্ত শ্রেণী আছে যারা চতুর জ্ঞানী। যারা প্রথমে এমন ভান করবে যে তারা কিছুই জানে না। চাতুরি করবে। তারপর সুযোগ মতো আপনাকে চেপে ধরবে। আপনি বিপদে পরে যত ছটফট করবেন তারা তত আনন্দিত হবে।

সাধুগুরুর কৃপা হলে অভক্তও ভক্ত হয়ে উঠতে পারে। আবার চরম ভক্তও হয়ে উঠতে পারে উচ্ছিষ্ট। এই রহস্যময় অন্তহীন-অসীম জগতে কোনটা লীলা কোনটা ভড়ং আর কোনটা বাস্তব তা বোঝা মোটেও সহজ নয়। যে পাগলামী করে বেড়াচ্ছে। লোকে যাকে ঢিল ছুড়ছে। তারই হয়তো লক্ষ লক্ষ ভক্ত-অনুসারী।

আরেক শ্রেণীর জ্ঞানীভক্ত আছেন, যাদের অভিনেতা জ্ঞানীভক্ত জন বলা যায়। তারা জ্ঞানীর ভাব ধরে থাকেন। কিছু কোটেশন মুখস্থ করে রাখেন। জায়গা মতো বলবার জন্য।

আরেক শ্রেণী আছেন গুপ্তজ্ঞানী ভক্ত। তারা সাধারণত তেমন কথা বলেন না। আলোচনায় যান না। কিন্তু কোনো ভাবে তাদের চেপে ধরতে পারলে মুগ্ধ হয়ে কেবল শুনে যেতে হয়। তারা সাধারণত মনের মানুষ না হলে মুখ খোলেন না।

এরূপ আরো অনেক প্রকারের জ্ঞানী ভক্তের সাক্ষাৎ মেলে সাধুরহাটে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েক প্রকার জ্ঞানী ভক্তের কথা বললাম। একটা বিষয় বলে নেয়া প্রয়োজন। এখানে প্রশ্ন উঠতে পারে, এদের সকলকে কি ভক্ত বলা চলে? যাদের মধ্যে এতো চাতুরী আছে তারা কি শুদ্ধ পথের পথিক হতে পারে?

আসলে এখানে যারা সাধনপথে ঘুরাঘুরি করে সকলকেই ভক্ত মেনে তাদের প্রকার করার চেষ্টা করা হয়েছে। কারণ কে বলতে পারে আজকে যাকে নানা বিবেচনায় ভক্ত বলে বাতিল করা হচ্ছে। আগামীকাল হয়তো সেই বাল্মিকী হয়ে উঠবে। তাই সকলের মধ্যেই সম্ভাবনা তো থেকেই যায়।

সাধুগুরুর কৃপা হলে অভক্তও ভক্ত হয়ে উঠতে পারে। আবার চরম ভক্তও হয়ে উঠতে পারে উচ্ছিষ্ট। এই রহস্যময় অন্তহীন-অসীম জগতে কোনটা লীলা কোনটা ভড়ং আর কোনটা বাস্তব তা বোঝা মোটেও সহজ নয়। যে পাগলামী করে বেড়াচ্ছে। লোকে যাকে ঢিল ছুড়ছে। তারই হয়তো লক্ষ লক্ষ ভক্ত-অনুসারী।

আবার যারা পরিপাটি করে ঘুরে বেড়াচ্ছে বেশভূষা নিয়ে। তার হয়তো একজনও ভক্ত নেই। আবার যার লক্ষ ভক্ত সেই যে গুণী বা সদগুরু তাই বা কে বলতে পারে। যার কোনো ভক্তই নেই তিনিই যে সদগুরু নন তাও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারে না। তাই সাধুরবাজারে কোনো কিছুই নিশ্চিত বা নির্দিষ্ট নয়।

বাবা লোকনাথ ব্রহ্মচারী বলেছেন- “ভক্তের বোঝা আমি নিজের কাঁধে বয়ে বেড়াই। তোদের সব দায়িত্বই আমার। কেবল তোদের সহজ সরল মনটুকু আমায় দে আমি যে তোদের প্রেমের কাঙ্গাল।”

সাধারণত জ্ঞানবাদী ভক্তদের কেউ বিশেষ পছন্দ করেন না। গুরুরাও নিজেরা যদি জ্ঞানবাদী না হন তাহলে তারা জ্ঞানবাদী ভক্তদের বিশেষ পছন্দ করেন না। শিষ্যরা জ্ঞানের চর্চা করুক তা অনেক গুরুই চান না। এতে প্রতিষ্ঠিত ধর্ম-মতাদর্শের প্রতিষ্ঠান চালানো মুশকিল হয়ে যায়।

কারণ জ্ঞানী এক সময় না এক সময় প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিকে প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড় করবেই করাবে। আর সেই প্রশ্নের উত্তরে সন্তুষ্ট না হলে। সে এক সময় না এক সময় স্থান ত্যাগ করবেই। তাই গুরুরা জ্ঞানবাদীদের ভক্ত করলেও তাদের খুব কম সংখ্যককেই জ্ঞানের ধারায় এগিয়ে যেতে দেন।

জ্ঞানের চর্চা হলে সেখানে দ্বন্দ্ব হওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। সকল সময় যে এতে গুরু-শিষ্যের সম্পর্ক নষ্ট হয় তা কিন্তু না। অনেক সময় সবচেয়ে মধুরও হয়। কিন্তু মাঝে একটা গণ্ডগোল লাগবার সম্ভাবনাও থাকে। তবে সন্দেহ-সংশয়-প্রশ্নের যথার্থ উত্তর যদি ভক্ত উপলব্ধি করে সন্তুষ্ট হয় তখন গুরুর প্রতি ভক্তি চরমে পৌঁছায়।

কর্মবাদী ভক্তের প্রকার

কর্মবাদী ভক্তরা সাধারণত কর্মকেই ধর্ম মানে। এদের মাঝেও অনেক শাখা-প্রশাখা আছে। মোটা দাগে কর্মবাদী ভক্তদের দুইভাগে ভাগ করা যায়। এক হচ্ছে ইচ্ছাকৃত কর্মবাদী ভক্ত। আরেক হচ্ছে চাপিয়ে দেয়া কর্মবাদী ভক্ত।

প্রথম শ্রেণী অর্থাৎ ইচ্ছাকৃত কর্মবাদীরও আছে নানান ভাগ-বিভাগ। এদের মধ্যে যারা ফলের আশা না করে কেবল কর্ম করে যায় তারা মহৎ প্রকৃতির ভক্ত। তারা কর্ম করে কিন্তু তা প্রকাশও করে না, তার ফলও প্রত্যাশা করে না। যেন এ সকলই তাদের কর্তব্য। তাই করে যাওয়া।

এরাই মূলত গুরুদের পেছন থেকে গুরুবাদের কর্মযজ্ঞকে চালিয়ে নিয়ে যায়। তাদেরকে সাধারণত দেখা পাওয়াও যায় না। দেখা পাওয়া গেলেও তাদের কর্মের কথা স্বীকারও করে না। তাদের প্রশংসা করলেও তারা লজ্জা পায়।

(চলবে…)

ভক্তের প্রকার: তৃতীয় কিস্তি>>

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- [email protected]
……………………………….

…………………….
আরো পড়ুন:
ভক্তের প্রকার: প্রথম কিস্তি
ভক্তের প্রকার: দ্বিতীয় কিস্তি
ভক্তের প্রকার: তৃতীয় কিস্তি
ভক্তের প্রকার: চতুর্থ কিস্তি
ভক্তের প্রকার: পঞ্চম কিস্তি

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!