সৃষ্টির শুরু এবং নবী নূর(দঃ)

সৃষ্টির শুরু এবং নবী নূর(দঃ)

-নূর মোহাম্মদ মিলু

অনাদি ও অনন্ত সত্ত্বা আল্লাহ রাব্বুল ‘আলামীন যখন একা ও অপ্রকাশিত ছিলেন, তখন তাঁর আত্মপ্রকাশের সাধ ও ইচ্ছা জাগরিত হলো। তখন তিনি একক সৃষ্টি হিসেবে নবী করিমের নূর মোবারক পয়দা করলেন এবং নাম রাখলেন মোহাম্মদ (কানজুদ্দাকায়েক: ইমাম গাজ্জালী)। সেই নূরে মোহাম্মদীর সৃষ্টি রহস্য ও প্রকৃতি সম্পর্কে স্বয়ং নবী করিম মারফু মুত্তাসিল হাদীসের মাধ্যমে পরিষ্কার ব্যাখ্যা করে গেছেন। সেই হাদিসটি বর্ণিত হয়েছে রাসূলে পাকের একনিষ্ঠ খাদেম ও মদিনার ৬নং সাহাবী হযরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ কর্তৃক। হাদিসটি প্রথম সংকলিত হয়েছে মোসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক নামক হাদীস গ্রন্থে। মোহাদ্দেস আব্দুর রাজ্জাক ছিলেন ইমাম বোখারীর দাদা ওস্তাদ এবং ইমাম মালেকের শাগরিদ। পরবর্তীতে সেই গ্রন্থ থেকে অনেক হাদীস বিশারদগণ নিজ নিজ গ্রন্থে হাদীসখানা সংকলিত করেছেন। যেমন- ইমাম কাস্তুলানী তাঁর রচিত নবী করিমের জীবনী গ্রন্থ মাওয়াহেবে লাদুন্নিয়ায় সেই হাদিসখানা সংকলন করেছেন। মিশরের আল্লামা ইউসূফ নাবহানী তাঁর রচিত আনওয়ারে মোহাম্মদীয়া নামক আরবী গ্রন্থেও সেই হাদিসখানা উল্লেখ করেছেন। কিতাবখানা নবী করিমের সৃষ্টি সম্পর্কে স্ববিখ্যাত এবং বিস্তারিত। তাই বিজ্ঞ পাঠকের সামনে সেই হাদীসখানা অনুবাদসহ তুলে ধরছি। এ রেওয়ায়েত ছাড়া অন্যান্য রেওয়ায়েত অসম্পূর্ণ, অস্পষ্ট ও খন্ডিত এবং উসূলে হাদীসের মাপকাঠিতে অনির্ভরযোগ্য বা মারজুহ্। হাদীসখানা নিন্মরুপ-

روى عبد الرزاق عن معمر عن ابن المنكدر عن جابر بن عبد الله رضي الله عنه قال قلت يارسول الله بأبي انت وامي أخبرني عن اول شيئ خلقه الله تعالى قبل الاشياء قال ياجابر ان الله تعالى خلق قبل الاشياء نور نبيك من نوره فجعل ذلك النور يلدور بالقدرة حيث شاء الله تعالى ولم يكن في ذلك الوقت لوح ولا قلم ولا جنة ولا نار ولا ملك ولا سمماء ولا ارض ولا شمس ولا قمر ولا جني ولا انسي. فلما اراد الله تعالى ان يخلق الخلق قسم ذلك النور اربعة اجزاء فخلق من الجزء الاول القلم ومن الثاني اللوح ومن الثالث العرش ثم قسم الجزء الرابع أربعة اجزاء فخلق من الجزء الاول حملة العرش ومن الثاني الكرسي ومن الثالث باقي الملائكة ثم قسم الجزء الرابع اربعة اجزاء فخلق من الاول السموات ومن الثاني الارضين ومن الثالث الجنة والنار ثم قسم القسم الرابع اربعة اجزاء فخلق من الاول نور ابصار المؤمنين ومن الثاني نور قلوبهم وهى المعربفة بالله تعالى ومن الثالث نور انسفهم وهو التوحيد لا اله الا الله محمد رسول الله. (الجزء المفقود من المنصنف).

অর্থ: ইমাম আব্দুর রাজ্জাক (ইমাম বোখারীর দাদা ওস্তাদ) মোয়াম্মার থেকে, তিনি ইবনে মুনকাদার থেকে, তিনি হযরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ আনসারী থেকে বর্ণনা করেছেন-

হযরত জাবের বলেন, আমি আরয করলাম, হে আল্লাহ’র রাসূল! আপনার উপর আমার পিতা-মাতা উৎসর্গীত হোক, আল্লাহ তা’আলা সর্বপ্রথম কোন বস্তু সৃষ্টি করেছেন? তদুত্তরে নবী করিম বললেন, “হে জাবের, আল্লাহ তা’আলা সর্বপ্রথম সমস্ত বস্তুর পূর্বে তাঁর ‘নিজ নূর থেকে’ তোমার নবীর নূর পয়দা করেছেন। তারপর আল্লাহ তা’আলার ইচ্ছানুযায়ী ঐ নূর (লা-মকানে) পরিভ্রমণ করতে থাকে। কেননা ঐ সময় না ছিল লাওহে-মাহফুয, না ছিল কলম, না ছিল বেহেস্ত, না ছিল দোযখ, না ছিল ফেরেশতা, না ছিল আকাশ, না ছিল পৃথিবী, না ছিল সূর্য, না ছিল চঁন্দ্র, না ছিল জ্বীন জাতি, না ছিল মানবজাতি। অতঃপর যখন আল্লাহ তা’আলা অন্যান্য বস্তু সৃষ্টি করার মনস্থ করলেন, তখন আমার ঐ নূরকে চারভাগে বিভক্ত করে প্রথমভাগ দিয়ে কলম, দ্বিতীয়ভাগ দিয়ে লাওহে-মাহফুয এবং তৃতীয়ভাগ দিয়ে আরশ সৃষ্টি করলেন। অবশিষ্ট এক ভাগকে আবার চার ভাগে বিভক্ত করে প্রথমভাগ দিয়ে আরশ বহনকারী ফেরেশতা, দ্বিতীয় অংশ দিয়ে কুরসি এবং তৃতীয় অংশ দিয়ে অন্যান্য ফেরেশতা সৃষ্টি করলেন। দ্বিতীয় চার ভাগের এক ভাগকে আবার চার ভাগে বিভক্ত করে প্রথমভাগ দিয়ে আকাশ, দ্বিতীয় ভাগ দিয়ে জমিন (পৃথিবী) এবং তৃতীয় ভাগ দিয়ে বেহেস্ত ও দোযখ সৃষ্টি করলেন। তৃতীয়বার অবশিষ্ট এক ভাগকে পুনরায় চার ভাগে বিভক্ত করে প্রথমভাগ দিয়ে মো’মেনদের নয়নের নূর – (অন্তর্দৃষ্টি), দ্বিতীয় ভাগ দিয়ে মুমিনদের কলবের নূর – তথা আল্লাহর মা’রেফাত এবং তৃতীয় ভাগ দিয়ে মু’মিনদের মহব্বতের নূর – তথা তাওহীদী কলেমা ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু মোহাম্মাদুর্ রাসুলুল্লাহ’ সৃষ্টি করেছেন।” (২৫৬ ভাগের এক ভাগ থেকে অন্যান্য সৃষ্টিজগত পয়দা করলেন)। – মাওয়াহেবে লাদুন্নিয়া ও মুসান্নাফ আব্দুর রাযযাক – (আল জুয্উল মাফকুদ অংশ)।

ব্যাখ্যা: সেই হাদীসে বর্ণিত (من نوره) বা তাঁর ‘নিজ নূর’ থেকে শব্দটির ব্যাখ্যায় মোল্লা আলী ক্বারী (رحمة الله عليه) মিশকাত শরীফে লিখেছেন – “আয়-মিন লামআতে নূরিহী’ – অর্থাৎঃ আল্লাহ তা’আলা আপন যাতি নূরের জ্যোতি দিয়ে নবীজীর নূর পয়দা করেছেন।

মুজাদ্দেদ আলফেসানী (رحمة الله عليه) মাকতুবাত শরীফের ৩য় খন্ডে ১০০ নম্বর মকতুবে বলেছেন, “আল্লাহ তা’আলা তাঁকে স্বীয় খাস নূর দ্বারা সৃষ্টি করেছেন।”

যারকানী (رحمة الله عليه) (من نوره) ব্যাখ্যায় বলেছেন- “মিন নূরিন হুয়া যাতুহু” অর্থাৎ- “আল্লাহর যাত বা সত্ত্বা হলো নূর – সেই যাতী নূরের জ্যোতি থেকেই নূরে মোহাম্মদী পয়দা” (যারকানী)। দেওবন্দী মৌঃ আশরাফ আলী থানবীও একই ব্যাখ্যা দিয়েছেন তার ‘নশরুত ত্বীব’ গ্রন্থের পঞ্চম পৃষ্ঠায়।

অন্য এক হাদীসে, হযরত আলী ইবনে হুসাইন ইবনে আলী (رضي الله عنه) তাঁর পিতা ও দাদার সূত্রে নবী করিম থেকে বর্ণনা করেছেন। নবী করিম এরশাদ করেছেন-

كنت نورا بين يدي ربي قبل خلق أدم بأربعة عشر ألف عام

অর্থ: “আমি ( নবী) আদম সৃষ্টির চৌদ্দ হাজার বৎসর পূর্বে আমার প্রতিপালকের নিকট নূর হিসেবে বিদ্যমান ছিলাম।” (ঐ জগতের এক দিন পৃথিবীর এক হাজার বৎসরের সমান। অংকের হিসাবে ৫১১, ০০, ০০০০০ (পাঁচ শত এগার কোটি) বৎসর হয়। (বেদায়া ও নেহায়া এবং আনওয়ারে মোহাম্মদীয়া গ্রন্থসূত্রে এই হাদীসখানা উদ্ধৃত করা হয়েছে।

তাফসীরে রুহুল বয়ানে সূরা তাওবার আয়াত لقد جاءكم رسول من انفسكم অর্থ: “তোমাদের নিকট এক মহান রাসূলের আগমন হয়েছে।”

এই আয়াতের তাফসীর প্রসঙ্গে নবী করিম কোথা থেকে আসলেন- সে সম্পর্কে হযরত আবু হোরায়রা (رضي الله عنه) থেকে নিন্মোক্ত হাদীস বর্ণনা করা হয়েছে।

عن أبي هريرة أنه عليه السلام سأل جبريل عليه السلام فقال ياجبريل كم عمرك من السنين-فقال يارسول الله لست أعلم غير أن في الحجاب الرابع نجما يطلع في كل سبعين ألف سنة مرة-رأيته إثنين وسبعين ألف مرة فقال يا جبريل وعزة ربي أنا ذلك الكوكب

অর্থ: “একদিন নবী করিম কথা প্রসঙ্গে হযরত জিব্রাইল (عليه السلام) কে তাঁর বয়স সম্পর্কে এভাবে জিজ্ঞেস করলেন, হে জিব্রাঈল! তোমার বয়স কত? তদুত্তরে হযরত জিব্রাঈল (عليه السلام) বললেন- আমি শুধু এতটুকু জানি যে, নূরের চতুর্থ হিজাবে একটি উজ্জ্বল তারকা ৭০ হাজার বছর পর পর একবার উদিত হত। (অর্থাৎ- সত্তর হাজার বৎসর উদিত অবস্থায় এবং সত্তর হাজার বৎসর অস্তমিত অবস্থায় ঐ তারকাটি বিরাজমান ছিল) আমি ঐ তারকাটিকে ৭২ হাজার বার উদিত অবস্থায় দেখেছি। তখন নবী করিম বললেন- “খোদার শপথ আমিই ছিলাম ঐ তারকা।” (তাফসীরে রুহুল বয়ান ৩য় খন্ড ৫৪৩ পৃঃ সূরা তাওবা এবং সীরাতে হালবিয়া ১ম খন্ড ৩০ পৃষ্ঠা)

নবী করিমের এই অবস্থানের সময় ছিল ঐ জগতের হিসাবে এক হাজার আট কোটি বৎসর। পাঁচ শত চার কোটি বৎসর ছিলেন উদীয়মান অবস্থায় এবং পাঁচ শত চার কোটি বৎসর গায়েবী অবস্থায়। দুনিয়ার হিসাবে কত হাজার কোটি বৎসর হবে – আল্লাহই জানেন। হযরত জিব্রাইল (عليه السلام) শুধু দেখেছেন হুযূরের বাহ্যিক রূপ। বাতেনী দিকটি ছিল তাঁর অজানা।

রাসূলে করীম-এঁর সৃষ্টি রহস্য এত গভীর যে, আল্লাহ ছাড়া আর কেহই প্রকৃত স্বরূপ জানে না। দেওবন্দ মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা কাশেম নানুতবী সাহেব নবী করিমের বাহ্যিক আবরণের ভিতরে যে প্রকৃত নূরানী রূপটি লুক্কায়িত ও রহস্যাবৃত রয়েছে, তা মুক্ত কন্ঠে স্বীকার করেছেন এভাবে-

رہا جمال پہ تیرے حجاب بشریت،

اورنہ نہ جانا کسے نے تجہے بجز ستار-

অর্থ: “হে প্রিয় নবী! আপনার প্রকৃত রূপটি তো বাশারিয়তের আবরণে ঢাকা পড়ে আছে। আপনাকে আপনার প্রভূ (ছাত্তার) ছাড়া অন্য কেহই চিনতে পারেনি।”

এখানে স্মরণ রাখা প্রয়োজন যে, রাসূলে করীম-এর রূপ বা অবস্থা তিনটি যথা – ছুরতে বাশারী, ছুরতে মালাকী ও ছুরতে হক্কী। (তাফসীরে রুহুল বয়ান ও তাফসীরে কাদেরী)। সাধারণ মানুষ শুধু দেখতে পায় বশরী ছুরতটি। অন্য দুটি ছুরত বা অবস্থা খাস লোক ছাড়া দেখা ও অনুধাবন করা সম্ভব নয়।

বিস্তারিত বাংলার কলম সম্রাট আল্লামা এম এ জালিল(রঃ) নূরনবি গ্রন্থ দেখুন।

কোরআন শরীফের আলোকেঃ

নবী কারিম(সাল্লাল্লাহুআলায়হিওয়াসাল্লাম)নূর থেকে সৃস্টি তার দলিল সহ প্রমান।   

“আল্লাহ তায়া’লা ইরশাদ করেন”     

قد جاءكم من الله نور و كتاب مبين-

অর্থ: নিশ্চয়ই তোমাদের নিকট আল্লাহর পক্ষ থেকে একটা নূর এবং স্পষ্ট কিতাব এসেছে।। (সূরা মায়িদা আয়াত- ১৫)

আলোচ্য আয়াতে নূর দ্বারা নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কে বুঝানো হয়েছে। নিম্নে আরো কয়েকটি প্রসিন্ধ তাফসীরের আলোকে দলিল উপস্থাপন করা হলঃ-

দলিল নং ১
বিশ্ব বিখ্যাত মুফাসসিরে কোরআন হযরত ইবনে আববাস (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) এর বিশ্ব বিখ্যাত তাফসীর গ্রন্থ ইবনে আববাস এর মধ্যে আছে-

قد جاءكم من الله نور و كتاب مبين يعني محمدا صلي الله عليه ؤسلم-

অর্থ: নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট থেকে তোমাদের  কাছে নূর অর্থাৎ মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এসেছেন। (তাফসীরে ইবনে আববাস পৃষ্ঠা ৭২)।

দলিল নং ২
ইমাম আবু জাফর মুহাম্মদ ইবনে জারীর আত্-তবারী (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) তাঁর বিখ্যাত তাফসীর গ্রন্থ ইবনে জারীর এর মধ্যে বলেন-

قد جاءكم من الله نور و كتاب مبين يعني باالنؤر محمدا صلي الله عليه ؤسلم الذي انار الله به الحق واظهربه الاسلام ومحق به الشرك-

অর্থ: নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট থেকে তোমাদের  কাছে নূর অর্থাৎ মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এসেছেন, যে নূর দ্বারা আল্লাহ সত্যকে উজ্জ্বল ও ইসলামকে প্রকাশ করেছেন এবং শিরিককে নিশ্চিহ্ন করেছেন। ( তাফসীরে ইবনে জারীর ৬ষ্ঠ খন্ড, পৃষ্ঠা ৮৬, সূরা মায়িদা আয়াত ১৫)।

দলিল নং ৩
মুহীউস্সুন্নাহ আল্লামা আলাউদ্দীন আলী ইবনে মুহাম্মদ (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) (যিনি ‘খাজিন’ নামে পরিচিত) তাফসীরে খাজেনের মধ্যে বলেন-

قد جاءكم من الله نور و كتاب مبين يعنى باالنؤر محمدا صلي الله عليه وسلم انما سماه الله نور الانه يهداى بالنور في الظلام-

অর্থ: নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট থেকে তোমাদের  কাছে নূর অর্থাৎ মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এসেছেন। আল্লাহ তায়া’লা তাঁর নামকরণ করেছেন নূর, কারণ তাঁর নূরেতে হেদায়ত লাভ করা যায়। যেভাবে অন্ধকারে নূর দ্বারা পথ পাওয়া যায়। (তাফসীরে খাজিন ১ম খন্ড, পৃষ্ঠা ৪১৭)।

দলিল নং ৪
ইমাম হাফেজ উদ্দীন আবুল বারাকাত আব্দুল্লাহ ইবনে আহমদ আন- নাসাফী (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) এই আয়াত শরীফ  ( قد جاءكم من الله نور و كتاب مبين) প্রসঙ্গে বলেন-

والنور محمد عليه والسلام لانه يهتداي به كما سمي سراجا منيرا-

আর নূর হলেন মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। কেননা তাঁর নূরেতে হেদায়ত লাভ করা যায়, যেমন তাঁকে উজ্জ্বল প্রদীপ বলা হয়েছে। (তাফসীরে মাদারিক ১ম খন্ড, পৃষ্ঠা ৪১৭)।

দলিল নং ৫
ইমামুল মুতাকাল্লেমীন আল্লামা ফখরুদ্দীন রাযী (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) এই আয়াত শরীফ  ( قد جاءكم من الله نور و كتاب مبين) প্রসঙ্গে বলেন-

ان المراد بالنور محمد صلي الله عليه و سلم وبالكتاب القران-

অর্থ: নিশ্চয়ই নূর দ্বারা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং কিতাব দ্বারা আল কোরআন মজীদকে বুঝানো হয়েছে। (তাফসীরে কবীর ৩য় খন্ড, পৃষ্ঠা ৩৯৫, সূরা মায়িদা আয়াত ১৫)।

আর যারা বলে যে ‘নূর ও কিতাবে মুবীন’ দ্বারা কুরআন মজীদকেই বুঝানো হয়েছে, ইমাম রাযী (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) সে সম্পর্কে বলেন-

هذا ضعيف لان العطف يوجب المغايرة بين المعطوف والمعطوف عليه-

এই অভিমত দুর্বল, কারণ আতফ (ব্যাকরণগত সংযোজিত) মা‘তুফ (সংযোজিত) ও মা‘তুফ আলাইহি (যা তার সাথে সংযোজন কারা হয়েছে ) এর মধ্যে ভিন্নতা  প্রমাণ করে। (তাফসীরে কবীর ৩য় খন্ড, পৃষ্ঠা ৩৯৫)।

দলিল নং ৬
ইমাম জালালুদ্দীন সুয়ূতী (রা) বলেনঃ

قد جاءكم من الله نور هو نور النبى صلي الله عليه وسلم-

অর্থ: নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট থেকে তোমাদের কাছে নূর এসেছে, তা হল নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নূর মোবারক।

(তাফসীরে জালালাইন শরীফ পৃষ্ঠা ৯৭)

দলিল নং ৭
আল্লামা মাহমূদ আলূসী বাগদাদী (রা) বলেন-

 قد جاءكم من الله نور هو نورعظيم هو نور الانوارالنبى المختار صلى الله عليه وسلم الى ذهب قتادة والزجاج-

অর্থ: নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট থেকে তোমাদের কাছে মহান নূর এসেছে । আর তিনি হলেন নূরুল আনোয়ার নবী মোখতার সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। এটাই হযরত কাতাদাহ ও যুজাজের অভিমত। (তাফসীরে রুহুল মাআনী ৬ষ্ঠ খন্ড, পৃষ্ঠা ৯৭)।

দলিল নং ৮
আল্লামা ইসমাঈল হক্কী (রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহু) বলেন-

قيل المراد باالاول هو الرسول صلى الله عليه وسلم وبالثانى القران-

অর্থ: বলা হয়েছে যে, প্রথমটা অর্থাৎ নূর দ্বারা রাসূলে করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কে বুঝানো হয়েছে এবং দ্বিতীয়টা অর্থাৎ কিতাবে মুবীন দ্বারা কুরআন কে বুঝানো হয়েছে। (তাফসীরে রুহুল বয়ান ২খন্ড, পৃষ্ঠা ২৬৯)

আর অগ্রসর হয়ে বলেন-

سمى الرسول نورا لان اول شيئ اظهره الحق بنور قدرته من ظلمة العدم كان نور محمد صلي الله عليه و سلم كما قال اول ما خلق الله نورى-

অর্থ: আল্লাহ তায়া‘লা রসূল আকরাম  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নাম রেখেছেন নূর। কেননা আল্লাহ তায়া‘লা তাঁর কুদরতের নূর থেকে সর্বপ্রথম যা প্রকাশ করেছেন তা তো মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাল্লাম।

নবী পাক (দ:) যে নূর, তার দলীল সরূপ এই রেফারেন্স গুলো দেওয়া হলো। সত্যতা যাচাই করার অনুরোধ রইল।
কোরআন আলোকে নবী নূর:
→সূরা মা’ইদাহ- আয়াত-১৫.
→সূরা আহযাব-আয়াত-৪৬.
এই আয়াত গুলোর তাফসির দেখুন:-
তাফসিরে ইবনে আব্বাস (রা:)- পৃষ্ঠা -৭২
তাফসিরে জালালাইন-পৃ:৯৭
তাফসিরে কাবীর :৩য় খণ্ড,পৃ:৩৯৫
তাফসিরে বায়যাবী:১ম খন্ড,পৃ:৩৬০
তাফসিরে জামেউল বয়ান:৬ষ্ঠ খন্ড,পৃ:৯২
তাফসিরে ইবনে কাসীর:৪র্থ,পৃ:৩৬০
তাফসিরে সাভী:১ম খন্ড,পৃ:২৭৫
তাফসিরে আবিস সা’ঊদ:৪র্থ,পৃ:৩৬
তাফসিরে রুহুল বয়ান :২য় খন্ড,পৃ:৩৭০
তাফসিরে মাযহারী:৩য় খন্ড,পৃ:৬৭
তাফসিরে মা’ আলিমুত তানযিল:২য় খন্ড,পৃ:৬২৭
শরহে যারকানী:৩য় খন্ড,পৃ:১৭১
কিতাবুশ শেফা:১ম খন্ড,পৃ:১০
মাওয়াহেবে লাদুন্নীয়া:৩য় খন্ড,পৃ:১৭১
তাফসিরে আরা ইসুল বয়ান:১ম খন্ড,পৃ:৫৪৮
তাফসিরে নিশাপুরী:৮ম খন্ড,পৃ:৫৫
তাফসিরে হুসাঈনী:পৃ:১৪০

তাফসিরে দুররে মানসুর তাফসিরে রুহুল মাআ’নী। এই সব তাফসির সহ অসংখ্য কিতাবে নূর দ্বারা নবী পাককে বুঝানো হয়েছে। সহীহ হাদীসের আলোকে নবী নূর:
বোখারী শরীফ:১ম খন্ড:পৃ:১৮১
মিশকাত শরীফ :পৃষ্ঠা :৫১৩,৫১৮,৫৪৭
তিরমিজী শরীফ:২য় খন্ড,পৃ:২০২
ইবনে মাজাহ শরীফ:পৃ:১১৯
আল মুস্তাদরাক লিল হাকীম:২য় খন্ড,পৃ:৬১৬
সুনানে দারেমী:১ম খন্ড,পৃ:১৭
মীরকাত:১ম খন্ড:পৃ:১৬৭
হুজ্জাতুল্লাহি আলাল আলামীন:পৃ:৪৮৪,৪৮৫,৪৮৮,৪৯১,৬৮৮
আল খাসাইসুল কুবরা:১ম খন্ড,পৃ:৩৯,৪১,৪২,৪৫,৪৬,১১৫,১৫৬,৪৬,১০৭,১৭৯,১৮৪
আল বেদায়া ওয়ান নিহায়া:২য় খন্ড,পৃ:২৭৫
আয যুরকানী আলাল মাওয়াহীব:১ম খন্ড,পৃ:১১৬
আল মাওরেদ লিল মাওলেদ:১ম খন্ড,পৃ:১৬৬
জাওয়াহীরূল বিহার:৩য় খন্ড,পৃ:১১৪৪
মাদারেজুন নবুওয়াত:১ম খন্ড:পৃ:১২
মাদারেজুন নবুওয়াত:২য় খন্ড,পৃ:২
সীরাতে হালাবিয়্যাহ:১ম খন্ড,পৃ:৭৭,৯১,৯২,১৪৭
নাশরুত তীব্ব:পৃ:১৭
মাওয়াহেবে লাদুন্নীয়া:১ম খন্ড,পৃ:৯,১০,২২,২৫০
মা-সাবাতা বিস্ সূন্নাহ:পৃ:৫৩
ওয়াফাউল ওয়ফা:১ম খন্ড,পৃ:৩৬
আস সীরাতুন নববিয়্যাহ লি ইবনে হিশাম:১ম খন্ড,পৃ:১৬৬

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!