ব্রাহ্মসামাজ

ধর্ম্ম রক্ষা

ব্রাহ্ম সর্ব্বদা সর্ব্বপ্রযত্নে আপন ধর্ম্ম রক্ষা করিবেন। তিনি দশের মুখ দেখিয়া চলিতে গিয়া আপনার ধর্ম্মদর্শের অবমাননা করিবেন না। তিনি যে একেশ্বরবাদী, তিনি যে কখনও কোনও কারণে পৌত্তলিকতার সমর্থন করিতে পারেন না, একথা কাহারও নিকটে গোপন করিবেন না। দুর্গা পূজা, স্বরস্বতী পূজা প্রভৃতি যে সকল মূর্ত্তিপূজা ও দেশে সমারোহের সাহিত সম্পন্ন হয়, অনুরোধ কিংবা শাসন কিছুরই জন্য ব্রাহ্ম তাহাদের যোগদান করিবেন না।

গুরুর নিকটে ‘মন্ত্র’ গ্রহণ, গুরু দ্বারা ‘শক্তি সঞ্চার’, গুরুবাক্য অবিচারে পালন, প্রভৃতি হইতে ব্রাহ্ম সযত্নে দূরে থাকিবেন।

‘ভাল দিন’ ও ‘মন্দ দিন’ দেখা, ‘শুভ ক্ষণ’ ও ‘অশুভ ক্ষণ’ মানা, কোনও কোনও নির্দিষ্ট মাসে শুভ কর্ম্ম বর্জ্জন প্রভৃতি কুসংস্কার হইতে ব্রাহ্ম সযত্নে থাকিবেন। জন্ম ও মরণ ঘটিলে পারিবারস্থ মনুষেরা ‘অশুচি’ হয়, ব্রাহ্ম ও ভ্রান্ত বিশ্বাসের বশবর্ত্তী হইবেন না। জাতিবিশেষে জন্ম বলিয়া মৃত আত্মীয়ের শ্রাদ্ধ এতদিনেই করিতে হইবে, ব্রাহ্ম এরূপ নিয়মে চলিবেন না ; যাহা যুক্তি সঙ্গত, তাহাই করিবেন।

ব্রাহ্ম সর্ব্বপ্রকার সঙ্কীর্ণতা পরিহার করিবেন। হিন্দুকুলোদ্ভব ব্রাহ্ম শুধু হিন্দুসমাজ ও হিন্দু শাস্ত্রের সহিত যোগ রক্ষা করিয়া চলিবেন না। কিন্তু মুসলমান ধর্ম্ম, মুসলমান সমাজ, মুসলমান সাধু ও মুসলমান শাস্ত্রের সহিত এবং খ্রিস্টিয় ধর্ম্ম সমাজ সাধু ও শাস্ত্রের সহিত জ্ঞানগত প্রীতিগত এবং কার্য্যগত-সর্ব্ববিধ যোগ রক্ষা করিবেন।

ব্রাহ্ম জাতিভেদ-সমর্থন কোন কার্য্য করিবেন না। যাহারা ‘নিম্ন জাতি’ বলিয়া কথিত, তাহাদিগকে অবস্থা করিবেন না। ব্রাহ্মের নিকটে কোনও মনুষ্য অস্পৃশ্য হইতে পারে না, কাহারও স্পৃষ্ট জল বা অন্ন তাহার জাতি-হেতু অশুদ্ধ হইতে পারে না।

ব্রাহ্ম উপবীত রাখিবেন না। কোনও ব্রাহ্ম হিন্দু সমাজের গণনায় হীন কূলে জাত হইলে তিনি সে ‘জাতি’ গোপন করিবার কোন চেষ্টাও করিবেন না। জন্মের জন্য তাঁহাকে অবজ্ঞা করিবার অধিকার কাহারও নাই, ইহা জানিয়া সর্ব্বত্র তিনি মস্তক উন্নত করিয়া বিচরণ করিবেন।

অসবর্ণ বিবাহের দ্বারা জাতিভেদ উন্মূলন এবং হিন্দু-মুসলমানে বিবাহের দ্বারা ভারতে একীকরণ- ইহা সকল ব্রাহ্মের পক্ষে একান্ত আগ্রহের বিষয় হওয়া উচিত।

এখন ব্রাহ্মসমাজে ক্রমশ: অনেক অসবর্ণ বিবাহ ও বিভিন্ন প্রদেশবাসীর মধ্যে বিবাহ হইতেছে। দুই একটি করিয়া হিন্দু মুসলমানেও বিবাহ হইতেছে। দুই একটি করিয়া হিন্দু মুসলমানেও বিবাহ হইতেছে। য়ুরোপীয়ের সহিত ভারতীয়ের বিবাহ অনেকগুলি হইয়াছে। ব্রাহ্মগণ এ সকল মিশ্র বিবাহ আনন্দের চক্ষে দর্শন করিবেন।

ব্রাহ্ম সর্ব্বপ্রকার সঙ্কীর্ণতা পরিহার করিবেন। হিন্দুকুলোদ্ভব ব্রাহ্ম শুধু হিন্দুসমাজ ও হিন্দু শাস্ত্রের সহিত যোগ রক্ষা করিয়া চলিবেন না। কিন্তু মুসলমান ধর্ম্ম, মুসলমান সমাজ, মুসলমান সাধু ও মুসলমান শাস্ত্রের সহিত এবং খ্রিস্টিয় ধর্ম্ম সমাজ সাধু ও শাস্ত্রের সহিত জ্ঞানগত প্রীতিগত এবং কার্য্যগত-সর্ব্ববিধ যোগ রক্ষা করিবেন।

বিদ্যালয় অফিস প্রভৃতি স্থানে যদি অনেক লোক মিলিত হইয়া সুনীতির আদর্শবিরুদ্ধ লঘু ভাবের আলাপ করে অথবা যদি অনেক লোক একত্র ইহয়া স্থির করে যে অসত্য কথা বলিতে হইবে বা অপবিত্র আমোদে লিপ্ত হইতে হইবে, ব্রাহ্ম সেখানে আপনার আদর্শ রক্ষা বিষয়ে বিশেষ সতর্ক হইবেন। সহস্রের মধ্যে একাকী বলিয়া তিনি কদাচ ভীত হইবেন না।

হিন্দু সমাজ হইতে আগত ব্রাহ্ম কখনও সাম্প্রদায়িক বুদ্ধির বশবর্ত্তী হইয়া মুসলমান বা খ্রিস্টিয় ধর্ম্মের প্রতি বিদ্বেষপরায়ণ হইবেন না। তাঁহারা ইসলাম হইতে একেশ্বরবাদ ও পৌত্তলিকতাবর্জ্জন বিষয়ে দৃঢ়তা এবং স্বীয় বিশ্বাস সর্ব্বলমক্ষে অসঙ্কুচিত ভাবে স্বীকার বিষয়ে সাহস- এই সকল শিক্ষা গ্রহণ করিবেন ; খ্রিস্ট ধর্ম্ম হইতে বিবেকপরায়ণতা ও পরসেবায় আত্মোৎসর্গ প্রভৃতি শিক্ষগ্রহণ করিবেন।

বিশেষত: খ্রিস্টিয় প্রচারকগণ ভারতের নিম্ন শ্রেণরি মানুষের অজ্ঞানান্ধকার দূর করিবার জন্য যেরূপ যত্ন ও পরিশ্রম করিতেছেন, সে জন্য তাঁহাদিগের নিকটে ব্রাহ্মগণ সর্ব্বদা কৃতজ্ঞ থাকিবেন।

বিদ্যালয় অফিস প্রভৃতি স্থানে যদি অনেক লোক মিলিত হইয়া সুনীতির আদর্শবিরুদ্ধ লঘু ভাবের আলাপ করে অথবা যদি অনেক লোক একত্র ইহয়া স্থির করে যে অসত্য কথা বলিতে হইবে বা অপবিত্র আমোদে লিপ্ত হইতে হইবে, ব্রাহ্ম সেখানে আপনার আদর্শ রক্ষা বিষয়ে বিশেষ সতর্ক হইবেন। সহস্রের মধ্যে একাকী বলিয়া তিনি কদাচ ভীত হইবেন না।

ব্রাহ্ম গৃহী এমন লোকের সঙ্গে ও এমন পরিবারে নিজ পুত্র কন্যার বিবাহ দিবেন, যাঁহাদের সহিত সম্বন্ধের ফলে সেই পুত্র বা কন্যা ভবিষ্যতে ব্রাহ্মধর্ম্ম বিরোধী ভাবে চলিতে শিখিবে না বা বাধ্য হইবে না।

বিবাহের পণ দান অথবা গ্রহণ অতিশয় ঘৃণ্য ও ব্রাহ্মধর্ম্মবিরোধী কার্য্য। ব্রাহ্ম কখনও এরূপ কার্য্য করিবেন না বা সমর্থন করিবেন না।

…………………………
ব্রাহ্মধর্ম্ম ও ব্রাহ্মসমাজ

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- voboghurekotha@gmail.com
……………………………….

………
আরও পড়ুন-
ব্রাহ্মসমাজ
সাধারণ ব্রাহ্মসমাজের সভ্য হইবার যোগ্যতা
ব্রাহ্ম ধর্মের মূল সত্য
ব্রহ্ম মন্দিরের ট্রাস্টডিড
ব্রাহ্মধর্ম্মের মূল সত্য
আত্মা
মানুষের ভ্রাতৃত্ব
উপাসনা ও প্রার্থনা
শাস্ত্র
গুরু
মধ্যবর্ত্তী ও প্রেরিত
সুখ-দু:খ : দু:খবাদ ও আনন্দবাদ
পাপ ও পুণ্য
পুনর্জ্জন্ম
পরকাল
স্বর্গ ও নরক
ধর্ম্ম রক্ষা
পরিবারে পুরুষ ও নারীর অধিকার-সাম্য
ব্রাহ্মসমাজের প্রতি ব্রাহ্মদিগের কর্ত্তব্য
সমবেত উপাসনা
পূর্ণাঙ্গ উপাসনার আদর্শ 
স্তুতি
বিবিধ অবস্থায় প্রার্থনা
নৈমিত্তিক অনুষ্ঠান
সন্তান জন্ম
ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ ও ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ
ধর্ম্মসাধন ব্রতে দীক্ষা
ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ ও ধর্ম্মদীক্ষা
বিবাহ ও তাহার আনুসঙ্গিক অনুষ্ঠান
বিবাহের বাগদান
বিবাহ
মৃত্যু ও অন্ত্যেষ্টি ক্রিয়া
শ্রাদ্ধ
গৃহ প্রবেশ
ব্রহ্ম ও ব্রহ্মের স্বরূপ
ব্রহ্ম ধ্যান
ব্রাহ্মধর্ম
সকলেই কি ব্রাহ্ম?
ব্রাহ্মোপসনা প্রচলন ও পদ্ধতি
আদি ব্রাহ্ম সমাজ ও “নব হিন্দু সম্প্রদায়”
পূর্ণাঙ্গ উপাসনার আদর্শ

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

error: Content is protected !!