ব্রাহ্মসামাজ

ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ ও ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ

কোন ভিন্ন সম্প্রদায়ের লোক ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ করিয়া ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ করিতে ইচ্ছুক হইলে তাঁহার বয়স অন্তত: ১৮ বৎসর হওয়া আবশ্যক। তাঁহার চরিত্র নির্ম্মল হওয়া আবশ্যক। তাহার কোন উপাসক মণ্ডলীর সহিত অন্তত: এক বৎসর কাল যোগ থাকা আবশ্যক।

তিনি ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণের ও ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশের জন্য উৎসুক হইলে তাঁহার ধর্ম্মবন্ধুদিগের মধ্যে কেহ উপাসকমণ্ডলীর আচার্য্যের নিকটে এই সংবাদ ব্যক্ত করিবেন। আচার্য্য তাঁহার সহিত আলাপ করিয়া বুঝিয়া লইবার চেষ্টা করিবেন যে তিনি ঈশ্বরের উপাসনাব্রতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হইয়াছেন কি না, এবং জীবনে ব্রাহ্মসমাজের আদর্শ সকল রক্ষা করিতে কৃতসঙ্কল্প হইয়াছেন কি না।

তিনি যে ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ করিয়া ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশার্থী, আচার্য্য এই সংবাদ ব্রাহ্মধর্ম্মগ্রহণ অনুষ্ঠানের অন্তত: দুই সপ্তাহ পূর্ব্বে উপাসকমণ্ডলীকে জানাইবেন।

নির্দ্দিষ্ট দিনে সামাজিক উপাসনাস্থলে অথবা অন্য কোনও ভবনে ব্রাহ্মধর্ম্মগ্রহণার্থীকে ও বন্ধুদিগকে লইয়া সর্ব্বপ্রথমে ব্রহ্মোপাসনা হইবে। আরাধনার পরে ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ-অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হইবে। তাহার প্রণালী এইরূপ হইতে পারে-

কোনও ধর্ম্মবন্ধু প্রবর্ত্তকরূপো ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহনার্থীকে আচার্য্যের সমীপে উপস্থিত করিবেন ও বলিবেন- শ্রদ্ধাস্পদ আচার্য্য মহাশয়, আপনার নিকটে ব্রাহ্মধর্ম্মগ্রহণার্থী শ্রীমান [বা শ্রীমতি] …কে উপস্থিত করিতেছি এবং আমি যথাজ্ঞান ইহাকে তৎসম্বন্ধে উপযুক্ত বলিয়া জানাইতেছি।

ইহার পর আচার্য্য নিম্নলিখিতভাবে প্রশ্ন করিবেন ও ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণার্থী ন্মিনলিখিতভাবে সেই প্রশ্নের উত্তর প্রদান করিবেন।

আচার্য্য- তুমি কি ব্রাহ্মধর্ম্মের মূল সত্য সকল জান এবং তাহা বিশ্বাস কর?

ব্রাহ্মধর্ম্মগ্রহণার্থী- আমি জানি এবং বিশ্বাস করি।

আ- ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ করিতে তুমি যে কৃতসঙ্কল্প হইয়াছ, তোমার এই সঙ্কল্পে কি তুমি ঈশ্বরের অনুমোদন ও প্রেরণা অনুভব করিতেছ?

ব্রা- অনুভব করিতেছি।

আ- জীবনের সকল বিষয়ে ব্রাহ্মধর্ম্মের অনুগত হইয়া চলিতে এবং ব্রাহ্মসমাজের পারিবারিক ও সামাজিক আদর্শ সকল রক্ষা করিতে তুমি কি স্থিরপ্রতিজ্ঞ হইয়াছ?

ব্রা- হাঁ হইয়াছি। ঈশ্বর ইহাতে আমার সহায় হউন।

আ- তবে তুমি মুক্তকণ্ঠে এই ধর্ম্মবুন্ধুগণের সমক্ষে তোমার বিশ্বাস ও সঙ্কল্প কর।

ব্রা- ঈশ্বর একমাত্র; তিনি চিন্ময় ও অনন্ত ; তাঁহাকে প্রীতি করা ও তাঁহার প্রিয় কার্য্য সাধন করাই তাঁহার উপাসনা ; সকল নরনারী সমভাবে তাঁহার কৃপার ও তাহার পূজার অধিকারী- ব্রাহ্মধর্ম্মের এই মূল সত্যসকলে বিশ্বাস পূর্ব্বক আমি অদ্য ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ ও ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ করিতেছি।

আমি প্রতিদিন একমাত্র চিন্ময় অনন্ত পরমেশ্বরের উপাসনা করিব। ঈশ্বর জ্ঞানে অথবা ঈশ্বরের অবতার অথবা ঈশ্বরের ও মানবাত্মার মধ্যবর্ত্তী জ্ঞানে কোন সৃষ্টি বস্তুর বা জীবের পূজা করিব না।

যে কার্য্য সৎ ও যাহা ঈশ্বরের প্রিয় কার্য্য, আমি তাহাই করিব। যাহা অসৎ, ঈশ্বরের অপ্রিয়, তাহা হইতে বিরত থাকিবে।

জাতিভেদ কিংবা অন্য কোনরূপ সামাজিক কুরীতির অনুসরণ বা সমর্থন করিব না। আমার পরিবারে ব্রাহ্মধর্ম্মকে প্রতিষ্ঠিত করিতে প্রাণপণে যত্ন করিব!

বর্ষে বর্ষে ও সাংসারিক সকল শুভ কর্ম্মে ব্রাহ্মসমাজে যথাশক্তি দান করিব।

হে পরমেশ্বর, তোমার এই ধর্ম্ম পালন করিতে তুমি আমাকে দয়া করিয়া বল বিধান কর।”

ইহার পর আচার্য্য ব্রাহ্মধর্ম্মগ্রহণার্থীকে উপদেশ প্রদান করিবেন ও প্রার্থনা করিবেন।

উপস্থিত বন্ধুগণের মধ্যে কোন কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তি যদি (শেষ প্রার্থনার পূর্ব্বে) ব্রাহ্মধর্ম্মগ্রহণার্থীকে অভ্যর্থনাসূচক দু একটি কথা বলেন, তবে ভাল হয়।

উপাসনা শেষে বন্ধুগণ ধর্ম্মপুস্তক কিংবা উপাসনার অন্যবিধ উপকরণ উপহার দিতে পারেন।

ব্রাহ্মসমাজে নবপ্রবিষ্ট ব্যক্তির সহিত ঘটিষ্ঠ যোগ স্থাপন করিবার জন্য এবং সব্বপ্রকারে তাঁহাকে ব্রাহ্মসমাজের অঙ্গীভূত করিয়া লইবার জন্য ব্রাহ্মসমাজস্থ বন্ধুগণের যত্ন করা কর্ত্তব্য।

…………………………
ব্রাহ্মধর্ম্ম ও ব্রাহ্মসমাজ

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- voboghurekotha@gmail.com
……………………………….

………
আরও পড়ুন-
ব্রাহ্মসমাজ
সাধারণ ব্রাহ্মসমাজের সভ্য হইবার যোগ্যতা
ব্রাহ্ম ধর্মের মূল সত্য
ব্রহ্ম মন্দিরের ট্রাস্টডিড
ব্রাহ্মধর্ম্মের মূল সত্য
আত্মা
মানুষের ভ্রাতৃত্ব
উপাসনা ও প্রার্থনা
শাস্ত্র
গুরু
মধ্যবর্ত্তী ও প্রেরিত
সুখ-দু:খ : দু:খবাদ ও আনন্দবাদ
পাপ ও পুণ্য
পুনর্জ্জন্ম
পরকাল
স্বর্গ ও নরক
ধর্ম্ম রক্ষা
পরিবারে পুরুষ ও নারীর অধিকার-সাম্য
ব্রাহ্মসমাজের প্রতি ব্রাহ্মদিগের কর্ত্তব্য
সমবেত উপাসনা
পূর্ণাঙ্গ উপাসনার আদর্শ 
স্তুতি
বিবিধ অবস্থায় প্রার্থনা
নৈমিত্তিক অনুষ্ঠান
সন্তান জন্ম
ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ ও ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ
ধর্ম্মসাধন ব্রতে দীক্ষা
ব্রাহ্মধর্ম্ম গ্রহণ ও ধর্ম্মদীক্ষা
বিবাহ ও তাহার আনুসঙ্গিক অনুষ্ঠান
বিবাহের বাগদান
বিবাহ
মৃত্যু ও অন্ত্যেষ্টি ক্রিয়া
শ্রাদ্ধ
গৃহ প্রবেশ
ব্রহ্ম ও ব্রহ্মের স্বরূপ
ব্রহ্ম ধ্যান
ব্রাহ্মধর্ম
সকলেই কি ব্রাহ্ম?
ব্রাহ্মোপসনা প্রচলন ও পদ্ধতি
আদি ব্রাহ্ম সমাজ ও “নব হিন্দু সম্প্রদায়”
পূর্ণাঙ্গ উপাসনার আদর্শ

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

error: Content is protected !!