শ্রী রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব

আমরা সাধারণ মানুষ

-সত্যানন্দ মহারাজ

একবার ভাবুন- আমরা সাধারণ মানুষ ষড়রিপুর দাস। কাম, ক্রোধ, লোভ, মোহ, মদ্ ও মাৎসর্য্য এগুলো ষড়রিপু বলা হয়। রিপু হল শত্রু।

শত্রুকে আমরা সর্বদা ভয় পাই, ঘৃণা করি, অপছন্দ করি এবং শত্রুর নাশ কিভাবে করা যায় তার চেষ্টা করে থাকি সাধারণত।

কিন্তু আমাদেরই শরীর ও মনে যে এই ষড়-শত্রু সদা সর্বদা আমাদের নানারকম সমস্যা ও বিপদে ফেলেছে তার থেকে বাঁচার কোন চেষ্টাই কিন্তু আমরা বেশির ভাগ মানুষরাই করি না। এটা বড় আশ্চর্য লাগে।

যে কাম আমাদের শত্রু, সেই কাম-কেই আমরা ভালবাসি। যে ক্রোধ আমাদের শত্রু, সেই ক্রোধ-কেই আমরা পুরুষের গুণ বলে বিবেচনা করি। যে লোভ করলে বলি লোভে পাপ-পাপে মৃত্যু, সেই লোভ-কেই আমরা ভালোবাসি।

যে মোহ আমাদের চির জীবন বন্দি করে নানারকম দু:খ কষ্ট দেয়, সেই মোহ-বন্দি অবস্থাটাকেই আমরা আনন্দের জীবন বলে গ্রহণ করি।

যে মদ বা অহংকার পতনের মূল, সেই অহংকার-কেই বীর্য্য পুরুষকার বা আত্ম-বিশ্বাস ভেবে ভুল করে সেটাকেই আঁকড়ে ধরে জীবন-যাপন করি।

যে মাৎসর্য্য আমাদের মরুভূমিতে মরীচিকার মত জলের সন্ধানে ছুটিয়ে মারে, সেই মাৎসর্য্যের পিছনে আমরা ভ্রমের বশবর্তী হয়ে ছুটে বেড়াই!

মহাত্মারা বলেন- এই মনই আমাদের শত্রু এবং মন-ই আমাদের মিত্র। কিন্তু যে মানুষ মনের দাস সে কি করে প্রভুত্বের আনন্দ পেতে পারে?

তাই তো মহাত্মারা মন-কে বশীভূত করার জন্য যোগ শাস্ত্রে- যম, নিয়ম, আসন, প্রাণায়াম, প্রত্যাহার, ধারণা, ধ্যান ও সমাধি- এই অষ্টাঙ্গীক মার্গের কথা বলেছেন।

বিবেকহীন মানুষ-মানুষ নয়। তাই বিবেক জাগ্রত করার জন্য সাধুসঙ্গ, সৎসঙ্গ ও সদগুরু সঙ্গ করার কথা বারংবার বলছে। তাই মানুষিক শক্তি ও ব্যালেন্স জীবন চাই।

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- [email protected]
……………………………….

……………………………………
আরো পড়ুন:
গুরুজ্ঞান
গুরু শিষ্য ধারণা
ত্রিতাপ জ্বালা

সদগুরু সঙ্গ
এটা মহাপুরুষের দেশ
জীবাত্মা ও পরমাত্মা
ভগবান কোথায় থাকেন?

সংসার ধর্ম
কি ভাবে সংসার করবো?

ভগবানের সর্বব্যাপীত
ভগবানকে কেন ডাকি?
পরশ পাথর
খারাপ দিন
রথ ও রথের মেলা
জীবনধারা
আমরা সাধারণ মানুষ
সব থেকে বড় হৃদয়
আমার জীবন জুড়িয়ে দাও

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!