লালন বলে কুল পাবি না

সূফীবাদের গোড়ার কথা: ছয়

-কাজী দীন মুহম্মদ

অতএব মাহকামই শরিয়ত এবং মোতশাবেহই মারিফাত। মাহকাম বুঝতে কোরান-হাদিসই যথেষ্ট। এলমে জাহের- এজমা, কিয়াস, ফিকাহ, উসুল এসব জানলেই মাহকাম বুঝতে অসুবিধা হয় না। কিন্তু মোতাশাবেহ অনুরূপ জাহের এলেম কালাম দ্বারা বোঝা যাবে না।

সুতরাং মূল প্রতিপাদ্য বুঝতে হলে এবং অনুশীরন করতে হলে রসুলের মত গুণ এবং জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তির ব্যাখ্যা বা আত্মিক প্রভাবের একান্ত প্রয়োজন। রসুল এবং খলিফাদের দুটো কাজই করতে হয়েছে, সে যুগে তা প্রয়োজনও ছিল। এই যুগে জাহের এলেম-কালাম বা শরিয়ত বোঝার জন্যে অনুরূপ কারও দরকার হয় না।

কেননা কোরান ও হাদিস লিপিবদ্ধ হয়েছে এবং অপরাপর ধর্মপুস্তকের মত এদের কোথাও প্রক্ষেপ প্রবেশ লাভ করে নি। হজরত আলী (রা) এর পর থেকে তেমন উভয়বিধ গুণসম্পন্ন লোকের হাতে রাজশক্তি অর্পণ করা সম্ভব হল না। কাজেই শরিয়তই অনুরূপ জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তির পৃষ্ঠপোষকতা পেয়েছে।

হজরত মুহম্মদ যেভাবে ইসলামের ব্যাখ্যা করে গেছেন, তার পরবর্তকাল আজ প্রায় সাড়ে চৌদ্দশ বছর যাবত মানবজাতির সংস্কৃতির ইতিহাসে ব্যবহারিক শক্তি ও আধ্যাত্মিক উন্নতির এক প্রকার উৎস হয়ে আছে। তৌহিদ বা এক আল্লাহর উপর একনিষ্ঠ বিশ্বাস ও তার হুকুম ও নির্দেশ অনুযায়ী জীবন-ব্যবস্থার উপর ইসলামের প্রতিষ্ঠা।

এক আল্লাহর প্রতি অবিচল বিশ্বাসের বলে হজরত রসুলে করীম (সা) ছিলেন বলীয়ান। এবং আন্তরিক সত্য প্রেরণা ও মানসিক বলের দ্বারাই দুর্ধর্ষ বেদুইন আরব জাতিকে বশীভূত, অনুরাগী ও ভক্ত করে নিতে সমর্থ হয়েছিলেন।

এ জীবন-ব্যবস্থার মূল উৎস কোরান। শাণিত তরবারির মতো সংশয়চ্ছেদী সুদৃঢ় ইমান, আত্মবিশ্বাস, সর্বশক্তিমান করুণাময় আল্লাহ ও তার নিয়ন্ত্রণে বিশ্বাস ও নির্ভরতা এক শিক্ষা। ইহ-পরকালে বিশ্বাস, হাশরে ও বিচারে বিম্বাস, ঐহিক ও পারত্রিক বিশ্বাস এবং জীবনকে ভালবেসে আত্মমর্যাদায় বলীয়ান হয়ে অমর জীবনের অধিকারী হওয়ার দৃঢ় প্রত্যয়ের এক অমোঘ বাণী এ কোরান এনে দিয়েছে।

মানুষ যে কেবল আল্লাহর সৃষ্ট বান্দাই নয়, তার প্রিয় বন্ধুও আল্লাহর পরেই তার প্রতিনিধিরূপে প্রতিষ্ঠিত তার সত্তা, সে যে সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ, একথা এ যাবত আর কোন ধর্মপুস্তকে এমনি ভাবে, মানুষের মর্যাদাকে এতখানি ঊর্ধ্বে তুলে ধরতে পারেনি। এখানেই এর বিশ্বজনীনতা ও সার্বজনীনতা প্রতিষ্ঠিত।

হজরতের জীবনী, উপদেশ ও অনুভূতির বিকাশই কোরান প্রচারিত ধর্মের আধ্যাত্মিক ও বাহ্যিক আদর্শ। ছিন্ন বিক্ষিপ্ত আদর্শহীন গোটা মানবজাতিকে এই মানবতার ধর্মে দীক্ষিত করে, একই প্রেরণায় উদ্বুদ্ধ করে উচ্ছৃঙ্খল ও অমানুষিক অন্ধকার জীবন থেকে সুন্দর সুষ্ঠু আলোকোজ্জ্বল জীবনের সন্ধান প্রদান এ ইসলামের প্রবলতম মানসিক প্রেরণার আদর্শ।

এক আল্লাহর প্রতি অবিচল বিশ্বাসের বলে হজরত রসুলে করীম (সা) ছিলেন বলীয়ান। এবং আন্তরিক সত্য প্রেরণা ও মানসিক বলের দ্বারাই দুর্ধর্ষ বেদুইন আরব জাতিকে বশীভূত, অনুরাগী ও ভক্ত করে নিতে সমর্থ হয়েছিলেন।

তাদের মতে ইসলামের পরবর্তী সংস্কারণে এ সকল মত বিভ্রান্তির স্তরে নিয়ে যাবে এবং ইসলামের শুচিতা রক্ষা ও শরীয়তের মৌলত্ব থেকে দূরে নিয়ে যাবে এ আশঙকায় তারা উদগ্রীব।

প্রধানত: আরবজাতির সমাজের পরিধিল মধ্যে মানুষের কর্তব্য নিয়ে ব্যাপৃত ছিলেন বলে এবং বিদ্যা বিচারশীলতার আবহাওয়ায় বেড়েছেন বলে কোরানের বাণীর হুবহু ব্যাখ্যায় তার বাণী ও কর্মে গভীর আধ্যাত্মিক দৃষ্টি ও পারমার্থিক সত্যের উপলব্ধির পরিচয় ফুটে উঠেছে।

এ বিশ্বের কোন কিছুই স্থিতিশীল নয়, সব কিছুই গতিশীল। সব ব্যাপারের মতো ইসলামের মধ্যেও রয়েছে একটা গতি বা ক্রম বিকাশের ধারা লক্ষ্য করি। পরবর্তীকালে ক্রমান্বয়ে বিভিন্ন জাতির সংঘাত, সংস্রব ও মিলনের ফলে নতুন নতুন ভাবধারা এসে ইসলামে অণুপ্রবেশ লাভ করল।

এসব ভাবধারার গ্রহণ ও বর্জনের ফলে ইসলামের আরবীয় অনুষ্ঠানাদির মধ্যে পরিবর্তনের সূচনা করল। তাতে করে একদিকে ধর্মীয় ব্যাখ্যা যেমন সমৃদ্ধি লাভ করল তেমনি একদল লোকের কাছে নব নব ভাবধারা বেদায়াত বা অভিনব বলে মনে হল।

প্রাচীনপন্থী শরিয়তসর্বস্ব আলেমগণ এ বেদায়াতকে সুনজরে দেখতে পারলেন না এবং ধর্মের ব্যাপারে এ ধরনের মিশ্রণ ও নবীন মত এবং নবীন ব্যাখ্যার বিরোধিতা করতেও পিছপা হলেন না।

তাদের মতে ইসলামের পরবর্তী সংস্কারণে এ সকল মত বিভ্রান্তির স্তরে নিয়ে যাবে এবং ইসলামের শুচিতা রক্ষা ও শরীয়তের মৌলত্ব থেকে দূরে নিয়ে যাবে এ আশঙকায় তারা উদগ্রীব হয়ে পড়লেন।

তারই ফলে, ইসলামের প্রথম প্রসারের পর্যায়ে আরবীয় ইসলামের সঙ্গে ইরানী, সিরীয়, বিজান্তীয়, গ্রীক, মিশরীয় প্রভৃতি জাতির সঙ্গে যখন প্রথম সংঘর্ষ ও সংঘাত ঘটলো এবং পরবর্তীকালে অর্থনৈতিক, মানসিক ও ধর্মীয় ব্যাপারে যখন পরস্পর বোঝাপড়া আরম্ভ হলো এবং এর ফলে জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রের মতো ধর্মের ক্ষেত্রেও নানা দৃষ্টিভঙ্গী ও মতবাদের আত্মপ্রকাশ ঘটলো, তখন শরিয়তপন্থী প্রাচীন ও ‘গোঁড়া সম্প্রদায় এসব অভিনব মিশ্রিত ভাবধারা অনুষ্ঠানাদি আচারের বিরুদ্ধে দাঁড়ালেন।

এতে অনেক সময় বিচার-নিষ্ঠার চাইতে আচার-নিষ্ঠাই প্রাধান্য পেয়েছে, এতে কোন সন্দেহ নাই।

এসব নতুন ধারণা মতবাদের বিচারে সুফিবাদ সম্বন্ধেও মতানৈক্যের অবকাশ ঘটল। প্রকৃত সুফিবাদ যদিও হজরত রসুলে করীম থেকেই আরম্ভ হয়েছিল, সে সাধনার মূল যদিও তার জীবিকালেই শিকড় মেলে গোড়া শক্ত করে নিয়েছিল, তবু এ ধারায় সাধনায় যখন বিভিন্ন দেশীয় নানা উপাদান এসে মিশ্রিত হলো এবং সাধকদের অনুভূতি, দর্শন, দৃষ্টিভঙ্গী ও আচরণে ক্রমে শরিয়ত বহির্ভূত আচার প্রক্ষিপ্ত হলো তখন তা অনেকেই মনে প্রাণে গ্রহণ করলো, আবার অনেকেরই তা গ্রহণ করার স্থৈর্য রইল না। একে ইসলামের স্বাভাবিক বিকাশ ও গতি ও পরিণতির শুভ ফল বলে অনেকেই গ্রহণ করতে পারল না।

(চলবে…)

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- [email protected]
……………………………….

………………………..
আরো পড়ুন:
সূফীবাদের গোড়ার কথা: এক
সূফীবাদের গোড়ার কথা: দুই
সূফীবাদের গোড়ার কথা: তিন
সূফীবাদের গোড়ার কথা: চার
সূফীবাদের গোড়ার কথা: পাঁচ
সূফীবাদের গোড়ার কথা: ছয়
সূফীবাদের গোড়ার কথা: সাত
সূফীবাদের গোড়ার কথা: আট

সূফীবাদের গোড়ার কথা: নয়

…….
১. Maxmuller, Indian Philosophy, page 895
২. ইনিল হুকমু ইল্লা লিল্লাহি- আল কোরান।
৩. ওয়া ইজা আরাদা শাইয়ান আঁইয়াকুলা-লাহু কুন ফাইয়াকুন- আল কোরান।
৪. রবীন্দ্রনাথ।
৫. lower self এবং higher self কথাগুলো পাশ্চাত্য দর্শনের। আমাদের বিবেচনায় এ দুটোও প্রমাদপূর্ণ। কারণ self, self-ই। এর lower এবং higher নাই। যা আছে তা aspect এর বিভিন্নতা।
৬. আল-হাদিস
৭. আল কোরান।
৮. আনাল হক: আমিই সত্য; অহং ব্রহ্মাষ্মি : আমিই ব্রহ্ম; সো অহং : সেই আমি, আমিই সে।
৯. যুগে যুগে সম্ভবামি: গীতা।
১০. ইনি ৮৩০ খৃষ্টাব্দে ইন্তেকাল করেন।
১১. ইনি ৮৬০ খৃষ্টাব্দে ইন্তেকাল করেন।

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!