মা সারদা শ্রীমা

-রাহাত বিন হাশেম

বাংলা ক্যালেন্ডার অনুসারে ১২৬০ সালের ৮ পৌষ, হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী অগ্রহায়ণ কৃষ্ণা সপ্তমী তিথি এবং ইংরেজী ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১৮৫৩ সালের ২২ ডিসেম্বর অর্থাৎ এখন থেকে ১৬৬ বছর আগে পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর মহকুমা এর অন্তর্গত  জয়রামবাটী নামের এক প্রত্যন্ত গ্রাম। ঐ দিনে এখানেই শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসের সাধন সঙ্গিনী, ভক্তবৃন্দের শ্রীশ্রীমা নামে পরিচিত সারদা দেবীর জন্ম হয় এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ পরিবারে।

পিতার নাম রামচন্দ্র মুখোপাধ্যায় এবং মাতা শ্যামাসুন্দরী দেবী। সারদা দেবীর জন্মের পর রামচন্দ্র ও শ্যামাসুন্দরীর কাদম্বিনী নামে এক কন্যা এবং প্রসন্নকুমার, উমেশচন্দ্র, কালীকুমার, বরদাপ্রসাদ ও অভয়চরণ নামে পাঁচ পুত্রের জন্ম হয় সারদা দেবীর পিতৃকূল মুখোপাধ্যায়-বংশ পুরুষানুক্রমে রামের  উপাসক ছিলেন।

“ছেলেবেলায় দেখতুম, আমারই মতো মেয়ে সর্বদা আমার সঙ্গে সঙ্গে থেকে আমার সকল কাজের সহায়তা করত-আমার সঙ্গে আমোদ-আহ্লাদ করত; কিন্তু অন্য লোক এলেই আর তাকে দেখতে পেতুম না। দশ এগারো বছর পর্যন্ত এরকম হয়েছিল’’।

অন্য আর দশজন গ্রাম্য বালিকাদের মত তার বাল্যকাল কাটলেও কোথাও যেন তিনি ছিলেন অন্য সবার থেকেই আলাদা। ঘরের সাধারণ কাজকর্মের পাশাপাশি ছেলেবেলায় তিনি তাঁর ভাইদের দেখাশোনা করতেন, জলে নেমে পোষা গরুদের আহারের জন্য ঘাস কাটতেন, ধানখেতে মুনিষদের (ক্ষেতমজুর) জন্য মুড়ি নিয়ে যেতেন, প্রয়োজনে ধান কুড়ানোর কাজও করেছেন।

ছোটবেলাতে প্রথাগত শিক্ষার প্রতি তাঁর তেমন আগ্রহ দেখা না গেলেও ভাইদের সাথে পাঠশালায় মাঝে মধ্যে গিয়ে অক্ষরজ্ঞান অর্জন করেছিলেন। পরবর্তী জীবনে কামারপুকুরে শ্রীরামকৃষ্ণের ভ্রাতুষ্পুত্রী লক্ষ্মী দেবী ও শ্যামপুকুরে একটি মেয়ের কাছে ভাল করে লেখাপড়া করা শেখেন।

তবে অক্ষরজ্ঞানে তাঁর অবস্থা যেমনই হোক তিনি যে ছেলেবেলা থেকেই দিব্যজ্ঞানী ছিলেন তাঁর প্রমাণ তাঁর কথাতেই মেলে- “ছেলেবেলায় দেখতুম, আমারই মতো মেয়ে সর্বদা আমার সঙ্গে সঙ্গে থেকে আমার সকল কাজের সহায়তা করত-আমার সঙ্গে আমোদ-আহ্লাদ করত; কিন্তু অন্য লোক এলেই আর তাকে দেখতে পেতুম না। দশ এগারো বছর পর্যন্ত এরকম হয়েছিল’’।

এরপর ১৪ বছর বয়সে প্রথম সারদা দেবী স্বামী সন্দর্শনে কামারপুকুরে আসেন। এই সময় তিনি যে তিন মাস শ্রীরামকৃষ্ণের সঙ্গে বাস করেছিলেন, তখনই ধ্যান ও অধ্যাত্ম জীবনের প্রয়োজনীয় নির্দেশ তিনি পান তাঁর স্বামীর থেকে।

এর মাঝেই কিন্তু বিয়ে হয়ে গিয়েছিল সারদা দেবীর, এবং বিয়েটাও নিছকই কোন ঘটনা নয়। মাত্র ৫ বছর বয়ষ পেছনে ফেলে ষষ্ঠ বছরে গিয়েই রামকৃষ্ণ পরমহংস এর সঙ্গে তাঁর বিবাহ সম্পন্ন হয়। শ্রীরামকৃষ্ণের বয়স তখন তেইশ। এই সময় শ্রীরামকৃষ্ণ কঠোর ব্রহ্মচর্য অনুশীলন করছিলেন।এবং মজার ঘটনা হল রামকৃষ্ণ নিজেই পাত্রীর সন্ধান দেন নিজের পরিবারকে।

বিবাহের পরেও সারদা দেবী তাঁর পিতামাতার তত্ত্বাবধানেই রইলেন। শ্রীরামকৃষ্ণ ফিরে গেলেন দক্ষিণেশ্বরে। এরপর ১৪ বছর বয়সে প্রথম সারদা দেবী স্বামী সন্দর্শনে কামারপুকুরে আসেন। এই সময় তিনি যে তিন মাস শ্রীরামকৃষ্ণের সঙ্গে বাস করেছিলেন, তখনই ধ্যান ও অধ্যাত্ম জীবনের প্রয়োজনীয় নির্দেশ তিনি পান তাঁর স্বামীর থেকে।

আঠারো বছর বয়সে তিনি শোনেন, তাঁর স্বামী পাগল হয়ে গেছেন। আবার এও শোনেন যে তাঁর স্বামী একজন মহান সন্তে রূপান্তরিত হয়েছেন।  তখন তিনি দক্ষিণেশ্বরে শ্রীরামকৃষ্ণকে দেখতে আসার সিদ্ধান্ত নিলেন। পদব্রজে দক্ষিণেশ্বরে আসতে গিয়ে তিনি অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং কথিত আছে কালীর মতো ঘোর কৃষ্ণবর্ণা এক নারী দিব্যদর্শনে তাঁকে সুস্থ হয়ে ওঠার অভয়বাণী শোনান।

১৮৭২ সালে দক্ষিণেশ্বরে আসার পর তাঁর ভয় ও সন্দেহ অপসারিত হয়। তিনি বুঝতে পারেন, তাঁর স্বামী সম্পর্কে যে সব গুজবগুলি রটেছিল তা কেবলই সংসারী লোকের নির্বোধ ধারণামাত্র। তিনি দেখলেন, শ্রীরামকৃষ্ণ তখন সত্যিই এক মহান আধ্যাত্মিক গুরু।

এই কারণে তাঁদের বৈবাহিক জীবনও ছিল এক শুদ্ধ আধ্যাত্মিক সঙ্গত।  স্বামী সারদানন্দের মতে, তাঁদের বিবাহ হয়েছিল বিশ্বে আদর্শ দাম্পত্য সম্পর্কের এক নজির স্থাপনের উদ্দেশ্যেই। কথিত আছে, শ্রীরামকৃষ্ণ দিব্যদৃষ্টিতে দেখেছিলেন যে তাঁর আধ্যাত্মিক প্রচারকার্য পরবর্তীকালে চালিয়ে নিয়ে যাবেন সারদা দেবী।

১৮৮৫ সাল অবধি তিনি দক্ষিণেশ্বরেই ছিলেন। শ্রীরামকৃষ্ণ তাঁকে আধ্যাত্মিক জীবনযাপনের প্রয়োজনীয় নির্দেশ দান করেন। এই সময় সারদা দেবী ও দিব্য মাতৃকাকে অভিন্ন জ্ঞান করে শ্রীরামকৃষ্ণ ষোড়শী পূজার আয়োজন করেন। কালীর আসনে বসিয়ে পুষ্প ও উপাচার দিয়ে শ্রীরামকৃষ্ণ পূজা করেন তাঁকে। অন্য সকল নারীর মতো সারদা দেবীকেও তিনি দেবীর অবতার বলে মনে করতেন।

এই কারণে তাঁদের বৈবাহিক জীবনও ছিল এক শুদ্ধ আধ্যাত্মিক সঙ্গত।  স্বামী সারদানন্দের মতে, তাঁদের বিবাহ হয়েছিল বিশ্বে আদর্শ দাম্পত্য সম্পর্কের এক নজির স্থাপনের উদ্দেশ্যেই। কথিত আছে, শ্রীরামকৃষ্ণ দিব্যদৃষ্টিতে দেখেছিলেন যে তাঁর আধ্যাত্মিক প্রচারকার্য পরবর্তীকালে চালিয়ে নিয়ে যাবেন সারদা দেবী।

সেই কারণে তিনি তাঁকে মন্ত্রশিক্ষা দেন এবং মানুষকে দীক্ষিত করে আধ্যাত্মিক পথে পরিচালিত করতে পারার শিক্ষাও দান করেন। কথিত আছে, ১৮৮৬ সালের আগস্ট মাসে শ্রীরামকৃষ্ণের মৃত্যুর পর বৈধব্যের চিহ্ন হিসেবে হাতের বালা খুলে ফেলতে গেলে তিনি স্বামীর দিব্যদর্শন পান।

এই দর্শনে শ্রীরামকৃষ্ণ তাঁকে বলেন, তিনি মারা যাননি, কেবল এক ঘর থেকে আর এক ঘরে গেছেন। সারদা দেবী বলেছিলেন, যতবারই তিনি বিধবার বেশ ধারণ করতে গিয়েছিলেন, ততবারই দিব্যদর্শনে শ্রীরামকৃষ্ণ তাঁকে নিরস্ত করেন।

শ্রীরামকৃষ্ণের দেহত্যাগের দুই সপ্তাহ পর লক্ষ্মী দেবী, গোপাল মা প্রমুখ শ্রীরামকৃষ্ণের গৃহস্থ ও সন্ন্যাসী শিষ্যদের সঙ্গে নিয়ে সারদা দেবী উত্তর ভারতের তীর্থ পর্যটনে যাত্রা করেন। কথিত আছে, এই বৃন্দাবনেই সারদা দেবীর নির্বিকল্প সমাধি লাভ হয়েছিল। এবং এই বৃন্দাবন থেকেই গুরু রূপে তাঁর জীবনের সূত্রপাত হয়।

মহেন্দ্রনাথ গুপ্ত, যোগেন মহারাজ প্রমুখ শ্রীরামকৃষ্ণের শিষ্যদের তিনি মন্ত্রদীক্ষা দান করেন। বৃন্দাবনেই শ্রীশ্রীমা রূপে তাঁর সত্তার সূচনা ঘটে।  তাঁর জীবনীকার ও শিষ্যদের মতে, তাঁকে মা বলে ডাকা কেবলমাত্র সম্মানপ্রদর্শনের বিষয়ই ছিল না। যাঁরাই তাঁর সাক্ষাতে আসতেন, তাঁরাই তাঁর মধ্যে মাতৃত্বের গুণটি আবিষ্কার করতেন।

১৮৮৮ সালে এই খবর শ্রীরামকৃষ্ণের ত্যাগী শিষ্যদের কানে পৌঁছলে তাঁরা তাঁকে কলকাতায়  নিয়ে এসে থাকার ব্যবস্থা করে দেন। স্বামী স্বারদানন্দ কলকাতায় তাঁর জন্য স্থায়ী বাসভবন নির্মাণ করান। ‘মায়ের বাটী’ নামে পরিচিত বাগবাজারে এই বাড়িটিতেই জয়রামবাটীর পর সারদা দেবী জীবনের দীর্ঘতম সময় অতিবাহিত করেছিলেন।

তীর্থযাত্রার শেষে সারদা দেবী কয়েকমাস কামারপুকুরে বাস করেন। এই সময় একাকী অত্যন্ত দুঃখকষ্টের মধ্যে দিয়ে তাঁর জীবন অতিবাহিত হতে থাকে। ১৮৮৮ সালে এই খবর শ্রীরামকৃষ্ণের ত্যাগী শিষ্যদের কানে পৌঁছলে তাঁরা তাঁকে কলকাতায়  নিয়ে এসে থাকার ব্যবস্থা করে দেন। স্বামী স্বারদানন্দ কলকাতায় তাঁর জন্য স্থায়ী বাসভবন নির্মাণ করান।

‘মায়ের বাটী’ নামে পরিচিত বাগবাজারে এই বাড়িটিতেই জয়রামবাটীর পর সারদা দেবী জীবনের দীর্ঘতম সময় অতিবাহিত করেছিলেন। প্রতিদিন অগণিত ভক্ত এই বাড়িতে তাঁর দর্শন, উপদেশ ও দীক্ষালাভের আশায় ভিড় জমাতেন।  তাঁর মাতৃসমা মূর্তি ও মাতৃসুলভ ব্যবহার সকলকে মানসিক শান্তি দিত। তাঁর নিজের সন্তানাদি না থাকলেও, শিষ্য ও ভক্তদের তিনি মনে করতেন তাঁর আধ্যাত্মিক সন্তান।

১৯১৯ সালের জানুয়ারি মাসে শ্রীমা জয়রামবাটী যাত্রা করেন এবং সেখানেই এক বছর কাটান। জয়রামবাটীতে অবস্থানের শেষ তিন মাস তাঁর স্বাস্থ্য ভেঙে পড়ে। ১৯২০ সালে ২৭ ফেব্রুয়ারি অশক্ত অবস্থায় তাঁকে কলকাতায় আনা হয়। পরের পাঁচ মাস তিনি রোগযন্ত্রণায় অত্যন্ত কষ্ট পান। মৃত্যুর পূর্বে এক শোকাতুরা শিষ্যাকে তিনি উপদেশ দিয়েছিলেন,‍ ‍

যদি শান্তি চাও, মা, কারও দোষ দেখো না। দোষ দেখবে নিজের। জগৎকে আপন করে নিতে শেখ। কেউ পর নয়, মা, জগৎ তোমার।”

মনে করা হয় এই উপদেশটিই বিশ্বের উদ্দেশ্যে তাঁর শেষ বার্তা। ১৯২০ সালের ২০ জুলাই রাত দেড়টায় কলকাতার উদ্বোধন ভবনে তাঁর প্রয়াণ ঘটে। বেলুর মঠে গঙ্গার তীরে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। এই স্থানটিতেই বর্তমানে গড়ে উঠেছে শ্রীমা সারদা দেবীর সমাধিমন্দির।

……………………………….
ভাববাদ-আধ্যাত্মবাদ-সাধুগুরু নিয়ে লিখুন ভবঘুরেকথা.কম-এ
লেখা পাঠিয়ে দিন- [email protected]
……………………………….

……………………..
আরো পড়ুন:
মা সারদা দেবী
প্রজ্ঞাপারমিতা শ্রীশ্রীমা সারদা
বহুরূপিনী বিশ্বজননী সারদামণি
মা মনোমোহিনী
শ্রীরামকৃষ্ণের সান্নিধ্যে সপ্তসাধিকা
মাতৃময়ী তিনরূপ
মা আনন্দময়ী
আনন্দময়ী মায়ের কথা
ভারত উপাসিকা নিবেদিতা
রাসমণি
নিরাহারা যোগিনী মায়ের সন্ধানে
পূণ্যশীলা মাতা কাশীমণি দেবীর সাক্ষাৎকার
আনন্দময়ী মা
মা মারিয়াম :: পর্ব-১
মা মারিয়াম :: পর্ব-২
মা মারিয়াম :: পর্ব-৩
মা মারিয়াম :: পর্ব-৪
মীরার কথা
অলৌকিক চরিত্র মাদার তেরেসা
মা আনন্দময়ীর কথা
বৈষ্ণব সাধিকা যশোদা মাঈ
আম্মার সঙ্গলাভ
শ্রীশ্রী সাধিকা মাতা
জগৎ জননী ফাতেমা-১
জগৎ জননী ফাতেমা-২
জগৎ জননী ফাতেমা-৩
জগৎ জননী ফাতেমা-৪
জগৎ জননী ফাতেমা-৫
জগৎ জননী ফাতেমা-৬
জগৎ জননী ফাতেমা-৭
জগৎ জননী ফাতেমা-৮
জগৎ জননী ফাতেমা-৯
জগৎ জননী ফাতেমা-১০
জগৎ জননী ফাতেমা-১১
জগৎ জননী ফাতেমা-১২

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!