মাওলা আলীর বাণী: ১০

মাওলা আলীর বাণী: ১০

২২৬
লোভী লোক অপমানের শিকল গলায় পরে।

২২৭
ইমান হলো হৃদয়ের প্রশংসা, কথায় স্বীকৃতি ও অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দ্বারা আমল।

২২৮
দুনিয়ার জন্য যারা দুঃখ করে তারা মূলত আল্লাহর বণ্টনে অপ্রসন্ন। যে আপতিত বিপদ সম্পর্কে বলে বেড়ায় সে তার প্রভুর বিরুদ্ধে অভিযোগ করে। যে ধনী লোকদের কাছে গিয়ে তার ধনের কারণে তার প্রতি ঝুঁকে পড়ে সে তার দ্বীনের দুই-তৃতীয়াংশ হারিয়ে ফেলে।

যদি কেউ কোরান পড়ে এবং মরে গেলে দোজখে যায় তাতে বুঝা যাবে সে আল্লাহর বাণী নিয়ে রসিকতা করেছে। কারো হৃদয় যদি দুনিয়ার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ে তাহলে সে হৃদয় তিনটি জিনিস ধারণ করে- উদ্বীগ্নতা তাকে ত্যাগ করে না, লোভ তাকে ছেড়ে যায় না এবং তার আকাঙ্খা কখনও পরিপূর্ণ হয় না।

২২৯
তৃপ্তি জমিদারি স্বরূপ এবং উত্তম নৈতিক চরিত্র আশীর্বাদ স্বরূপ।

২৩০
‘পুরুষ অথবা নারীর মধ্যে যে কেউ সৎকর্ম করে, আর সে মুমিন হয়, তবে আমি তাকে পবিত্র জীবন দান করব।’ (কোরান ১৬:৯৭) -কোরানের এই আয়াত সম্পর্কে আলী বলেন, এটা দ্বারা তৃপ্তি বুঝানো হয়েছে।

২৩১
যার প্রচুর জীবিকার সংস্থান আছে তার অংশীদার হয়ো। কারণ তার ধন-সম্পদ আরো বেড়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে, যাতে তোমার অংশও বেড়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।

২৩২
‘নিশ্চয়ই, আল্লাহ ন্যায় বিচার ও বদান্যতার নির্দেশ দিয়েছেন।’ (কোরান ১৬:৯০)। আলী এ আয়াত সম্পর্কে বলেন, এখানে আদল অর্থ সুষম বন্টন এবং ইহসান অর্থ হলো আনুকূল্য।

২৩৩
ক্ষুদ্র দানের জন্য বিশাল পুরস্কার পাওয়া যায়।

২৩৪
আলী তাঁর পুত্র হাসানকে বলেন, ‘কখনো কাউকে যুদ্ধের জন্য আহবান করো না। কিন্তু কেউ তোমাকে যুদ্ধে আহ্বান করলে সাড়া দিয়ো, কারণ যুদ্ধে আহ্বানকারী বিদ্রোহী এবং বিদ্রোহী ধ্বংস হবার যোগ্য।’

২৩৫
নারীর উৎকৃষ্টতম বৈশিষ্ট্য পুরুষের নিকৃষ্টতম বৈশিষ্ট। যথা- আত্মশ্লাঘা, কাপুরুষতা ও কৃপণতা। কাজেই নারী ব্যর্থ হলেও কাউকে তার কাজে প্রবেশ করতে দেয় না।

যেহেতু সে কৃপণ সে নিজের স্বামীর সম্পদ সংরক্ষণ করে এবং যেহেতু সে দুর্বল-মনা সে কারণে যে কোন বিপদে সে ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে।

২৩৬
সে ব্যক্তি হলো জ্ঞানী যে সবকিছুকে যথাযোগ্য অবস্থানে রাখতে পারে। সে ব্যক্তি হলো অজ্ঞ যে সবকিছুকে যথাযোগ্য অবস্থানে রাখতে পারে না।।

২৩৭
আল্লাহর কসম, তোমাদের এ দুনিয়া আমার দৃষ্টিতে কুষ্ঠরোগীর হাতে থাকা শূকরের হাড় অপেক্ষা নিকৃষ্ট।

২৩৮
কিছু লোক আছে যারা পুরস্কারের আশায় আল্লাহর ইবাদত করে। নিশ্চয়ই, এটা ব্যবসায়ীদের ইবাদত। আবার কিছু লোক ভয়ে আল্লাহর ইবাদত করে-এটা দাসদের ইবাদত। এরপরও কিছু লোক কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্য আল্লাহর ইবাদত করে -এটা স্বাধীন মানুষের ইবাদত।

২৩৯
কিছু বিচার করে বলা যায় নারী মন্দ; কিন্তু এর নিকৃষ্টতম অবস্থা হলো কেউ তাকে ছাড়া চলতে পারে না।

২৪০
যে ব্যক্তি কুঁড়ে স্বভাবের সে নিজের অধিকার হারিয়ে ফেলে আর যে ব্যক্তি পরনিন্দাকারীকে বিশ্বাস করে সে বন্ধু হারায়।

২৪১
অসৎ উপায়ে প্রাপ্ত একটি পাথরও যদি কোন ঘরে থাকে। তবে তা সে ঘরের ধ্বংস নিশ্চিতভাবে ডেকে আনবে।

২৪২
জালেমের ওপর মজলুমের দিন মজলুমের ওপর জালেমের দিন অপেক্ষা অধিক কঠোর হবে।

২৪৩
আল্লাহকে কিছু না কিছু ভয় করো। যদিও তা ক্ষুদ্র হয় এবং আল্লাহ ও তোমার মাঝে কিছুটা পর্দা রেখো। যদিও তা পাতলা হয়।

২৪৪
এক প্রশ্নের বিভিন্নমুখী জবাব দিতে গেলে আসল পয়েন্ট থেকে যায়।

২৪৫
নিশ্চয়ই প্রত্যেক আশীর্বাদে আল্লাহর অধিকার রয়েছে। যদি কেউ সে অধিকার পূরণ করে তবে আল্লাহ তাঁর নেয়ামত বাড়িয়ে দেন। কেউ যদি আল্লাহর অধিকার পালন না করে তবে সে নেয়ামত হারাবার বিপজ্জনক অবস্থায় পরতে পারে।

২৪৬
যখন সামর্থ্য বেড়ে যায়। তখন আকাঙ্খা কমে যায়।

২৪৭
আল্লাহর নেয়ামত যাতে ফসকে না যায় সে দিকে সতর্ক প্রহরা থাকা উচিত। কারণ এমন অনেক জিনিস আছে যা হারালে আর ফিরে পাওয়া যায় না।

২৪৮
ঔদার্য মানুষকে এমনভাবে কল্যাণের দিকে নিয়ে যায় যা জ্ঞাতিত্বের প্রতি সম্মানবোধও দিতে পারে না।

২৪৯
তোমার সম্পর্কে যদি কারো সু-ধারণা থাকে। তবে তা সত্যে পরিণত করার চেষ্টা করো।

২৫০
সবচেয়ে উত্তম আমল তা যা করার জন্য তোমার নিজকে বল প্রয়োগে বাধ্য করতে হয়।

(চলবে…)

…………………………….
সূত্র: নাহজ আল-বালাঘা

…………………………….
আরো পড়ুন:
মাওলা আলীর বাণী: ১
মাওলা আলীর বাণী: ২

মাওলা আলীর বাণী: ৩
মাওলা আলীর বাণী: ৪
মাওলা আলীর বাণী: ৫
মাওলা আলীর বাণী: ৬
মাওলা আলীর বাণী: ৭
মাওলা আলীর বাণী: ৮
মাওলা আলীর বাণী: ৯
মাওলা আলীর বাণী: ১০
মাওলা আলীর বাণী: ১১

মাওলা আলীর বাণী: ১২
মাওলা আলীর বাণী: ১৩
মাওলা আলীর বাণী: ১৪
মাওলা আলীর বাণী: ১৫

মাওলা আলীর বাণী: ১৬
মাওলা আলীর বাণী: ১৭
মাওলা আলীর বাণী: ১৮
মাওলা আলীর বাণী: ১৯
মাওলা আলীর বাণী: ২০

প্রাসঙ্গিক লেখা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: Content is protected !!